Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ২৭ চৈত্র ১৪২৭, ২৬ শাবান ১৪৪২ হিজরী

আহমেদাবাদের উইকেটে ‘ব্যাট ধরলেন’ ভিভ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ মার্চ, ২০২১, ১২:০১ এএম

বহুল আলোচিত ভারত-ইংল্যান্ডের দিবারাত্রি টেস্টের স্থায়িত্ব ছিল মাত্র দেড় দিন। আহমেদাবাদে সিরিজের তৃতীয় টেস্টে ১০ উইকেটে জিতেছে স্বাগতিকরা। তবে জয়ের ব্যবধান এখানে মূল আলোচ্য নয়। টেস্টের প্রথম দিন থেকেই উইকেট নিয়ে শুরু হয় সমালোচনা। যা চলছে এখনও। কারণটাও সকলেরই জানা। মোতারায় ৩০ উইকেটের ২৮টিই পেয়েছেন দুই দলের স্পিনাররা। মাত্র দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নামা অক্ষর প্যাটেল পেয়েছেন ১১ উইকেট। তবে চমকটা দেখিয়েছেন জো রুট। ৮ রানে ৫ উইকেট পেয়ে অনন্য কীর্তি গড়েছেন কালে ভদ্রে বল হাতে নেয়া ইংলিশ অধিনায়ক। টেস্ট ক্রিকেটে তার চেয়ে কম রান দিয়ে কোনো স্পিনার কখনো ইনিংসে ৫ উইকেট পাননি। ম্যাচ শেষে রুট বলেছিলেন, উইকেট কেমন সেটা তার পাঁচ উইকেটপ্রাপ্তিতেই বোঝা গেছে। দুই ইনিংস মিলিয়ে ইংল্যান্ডের মাত্র ১৯৩ রান তোলাই যত আলোচনার জন্ম দিয়েছে। নিজেদের ইতিহাসে এই প্রথম ভারতের বিপক্ষে এক শর (৮১) নিচে অলআউট হয়েছে ইংল্যান্ড। এক লাফে আগের সর্বনিম্ন ইনিংস রেকর্ড থেকে ২০ রান কমিয়ে দিয়েছেন ভারতীয় স্পিনাররা। দুদল মিলিয়ে চার ইনিংসে ৩৮৭ রান হয়েছে।
গোলাপি বলের টেস্ট স্পিনারদের রাজত্বের পর রুট রাখঢাক না রেখেই করেন সমালোচনা। মাইকেল ভন, অ্যান্ড্রু স্ট্রসরা বলেন এমন উইকেট টেস্ট ক্রিকেটের জন্য নেতিবাচক। ভারতীয় ক্রিকেটাররা তো এই মতের সঙ্গে দ্বিমত জানিয়েই আসছেল। তাদের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ন্যাথান লায়ন। এবার ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি স্যার ভিভ রিচার্ডসকেও পাওয়া গেল একই ভ‚মিকায়। উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডের বাড়াবাড়ি রকমের আহাজারিতে বরং বিরক্ত তিনি। এই আলোচনার কারণটাও অনুমেয়। সিরিজের চতুর্থ ও শেষ টেস্টটিও যে হবে আহমেদাবাদেই।
প্রথম সেশন থেকেই ধুলো উড়তে থাকা উইকেটে স্পিনারদের টার্ন আর বাউন্সে ব্যাটসম্যানরা পড়েন কঠিন চ্যালেঞ্জে। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৮১ রানে গুটিয়ে যায় ইংল্যান্ডের। ভারতের বিপক্ষে টেস্টে এটিই তাদের সর্বনিম্ন সংগ্রহ। এরপরই এমন উইকেট নিয়ে সমালোচনা মুখর হয়ে পড়েন ইংল্যান্ডের সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটাররা। যদিও তাদের সঙ্গে দ্বিমত করে অস্ট্রেলিয়ার ন্যাথান লায়নের মতন কেউ কেউ। এবার ইউটিউবে দেওয়া এক ভিডিওতে দুনিয়ার এক সময়ের সবচেয়ে দাপুটে ব্যাটসম্যানদের একজন রিচার্ডসও কথা বললেন উইকেটের পক্ষে, ‘যে উইকেটে খেলা হয়েছে তা নিয়ে অতিরিক্ত কান্নাকাটি, মাতম হয়েছে বলেই মনে করছি। আমার মতে যারা এত আহাজারি করছে তাদের বোঝা দরকার, যখন পেসবান্ধব উইকেটে খেলা হয় তখন গুড লেংথ থেকে বল লাফায়। তখন তো সবার মনে করে ব্যাটসম্যানদের সমস্যা। ব্যাটসম্যানরাই এসবের সঙ্গে মানিয়ে নিতে চেষ্টা করে।’
রিচার্ডসের মতে ভারতে স্পিনবান্ধব উইকেটই থাকবে, ইংল্যান্ডের সেভাবেই তৈরি হওয়া দরকার ছিল, ‘এখন আপনি দেখছেন স্পিন বান্ধব উইকেট। এই কারণেই তো খেলাটার নাম টেস্ট ক্রিকেট। এখানে মনোবল আর স্কিলের পরীক্ষা নেওয়া হয়। আপনারা কী ভুলে যাচ্ছে খেলা কোথায় হচ্ছে? ভারতে গেলে তো এর (স্পিনিং উইকেট) জন্য তৈরি থাকতে হবে। কীসের মোকাবেলা করছেন তার জন্য প্রস্তুত হয়ে তো যাবেন।’
কিংবদন্তি এই ব্যাটসম্যান মনে করেন উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডের এই আহাজারি বন্ধ হওয়া দরকার। তিনি বরং চতুর্থ টেস্টেও একই রকম উইকেট চান, ‘এসব মাতম, অজুহাত বন্ধ হোক। আমার এই উইকেট দেখে ভালই লেগেছে। এতে বরং ইংল্যান্ডকেও নিজেদের সামর্থ্য আরও পরখের সুযোগ করে দিচ্ছে। আমি ম্যাচ আয়োজনে যুক্ত থাকলে আবার একই উইকেট বানাতাম।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন