Inqilab Logo

সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪

এনআরবিসি ব্যাংকের আইপিও লটারির ড্র অনুষ্ঠিত

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ মার্চ, ২০২১, ৫:৫৫ পিএম

এনআরবি কমার্শিয়াল (এনআরবিসি) ব্যাংকের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৩ মার্চ) করোনাভাইরাসের কারণে স্বল্পপরিসরে রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জ কমিশন, ঢাকা স্টক একচেঞ্জ, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের প্রতিনিধি, ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম পারভেজ তমাল, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মো. মুখতার হোসেন, ব্যাংকের কোম্পানী সচিব মোজাম্মেল হোসেন, সিএফও হারুনুর রশিদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অতিথি হিসেবে পানি প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব) জাহিদ ফারুক, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদারসহ বিভিন্ন ব্যাংকের চেয়ারম্যান, পরিচালক, এমডি, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, সিনিয়র সাংবাদিক ও শেয়ারহোল্ডাররা উপস্থিত ছিলেন। ইলেক্ট্রনিক্স পদ্ধতিতে লটারী সম্পন্ন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষকদের বিশেষ প্রতিনিধি দল। বিনিয়োগকারীরাসহ সংশ্লিষ্ট সকলে ওয়েব সাইটে লাইভ অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

এনআরবিসি ব্যাংক কোম্পানীর শেয়ার আবেদন গ্রহণ করা হয় গত ৩ ফেব্রæয়ারি থেকে ৯ ফেব্রæয়ারি পর্যন্ত । এতে ১২০ কোটি টাকার শেয়ারের বিপরীতে ৮ দশমিক ৭২৯ গুণ আবেদন জমা পড়ে। ১০ টাকা ইস্যু মূল্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য ৬০ শতাংশ শেয়ার এবং যোগ্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগাকারীদের জন্য ৪০ শতাংশ শেয়ার বরাদ্দ করা হয়।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে সিডিবিএল, ইস্যু ম্যানেজার এশিয়ান টাইগার ক্যাপিটাল পার্টনার্স ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড এবং পোস্ট ইস্যু ম্যানেজার ইউক্যাসের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি বিনিয়োগকারীদের জন্য যঃঃঢ়://হৎনপনধহশ.রঢ়ড়ষড়ঃঃবৎুনফ.হবঃ সম্প্রচার করা হয়।

ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম পারভেজ তমাল বলেন, ব্যাংকের আইপিও আবেদনে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। ব্যাংকের প্রতি গ্রাহকদের আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতিফলন এটি। বাজারে নিবন্ধিত হওয়ার মাধ্যমে জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হবে। জনগণের প্রকৃত মালিকানা নিশ্চিত করার মাধ্যমে ব্যাংকের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থা অটুট রাখবো। সাধারণ মানুষের প্রয়োজনকে প্রাধান্য দিয়ে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়িয়ে গ্রামাঞ্চলের সর্বত্র সেবার প্রসার ঘটাবো।


উল্লেখ্য, কোম্পানিটির আইপিওতে বাংলাদেশি সাধারণ বিনিয়োগকারী, ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারী এবং প্রবাসী বাংলাদেশি ক্যাটাগরিতে বরাদ্দকৃত ৬০ শতাংশ বা ৭২ কোটি টাকার শেয়ার পেতে ৫৯৭ কোটি ৭৭ লাখ টাকা জমা পড়ে। আর যোগ্য বিনিয়োগকারীদের ৪০ শতাংশ বা ৪৮ কোটি টাকার কোটায় ৪৫২ কোটি ৩৮ লাখ ৩৫ হাজার টাকার আবেদন জমা পড়েছে। এনআরবিসি ব্যাংক তালিকাভুক্ত হলে দেশে তালিকাভুক্ত ব্যাংকের সংখ্যা দাঁড়াবে ৩১টিতে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এনআরবিসি ব্যাংক


আরও
আরও পড়ুন

ব্যাংকগুলোর দ্রুত রফতানি আয় নগদায়নের নির্দেশ

খোলাবাজারে ডলারের দাম যখন সর্বোচ্চ ১২০ টাকায় ঠেকেছে। তখন সংকটে লাগামহীন বৈদেশিক মুদ্রা ডলারের বাজার নিয়ন্ত্রণে রোববার (১৪ আগস্ট) বিকেলে ব্যাংক প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) ও বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশনের (বাফেদা) সঙ্গে বৈঠকে বসে বাংলাদেশ ব্যাংক। বৈঠকে চলমান সংকট নিরসনে ব্যাংক প্রধানদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি দিক নির্দেশনা দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সভাশেষে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, আমদানি ব্যয় কমে যাওয়ায় শিগগিরই ডলারের বাজারে স্বস্তি ফিরবে। এছাড়া ব্যাংকগুলোকে রফতানি আয়ের দ্রুত নগদ আদায়ের নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।   গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, আমদানি-রফতানির ক্ষেত্রে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো কি দামে ডলার বেচাকেনা করছে, তার রিপোর্ট বাংলাদেশ ব্যাংকে দেয়ার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। এ সময় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা মেনে চলার কথা জানান ব্যাংকাররা।   এ দিকে রোববার (১৪ আগস্ট) খোলাবাজারে ডলারের দাম পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বর্তমানে কার্ব মার্কেটে ডলার বিক্রি হচ্ছে ১১২ থেকে ১১৪ টাকায়। মতিঝিলের কয়েকটি মানি এক্সচেঞ্জের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে তারা ১১০ থেকে ১১১ টাকা দরে ডলার কিনছে এবং বিক্রি করছে ১১২ থেকে ১১৪ টাকা দরে। তবে ডলার ব্যবসায়ীরা বলছেন, দাম কমায় বলা যাবে না বাজার স্থিতিশীল হয়েছে। যতদিন না টাকার মান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাড়ছে, বাজার স্থিতিশীল হচ্ছে, ততদিন পর্যন্ত ডলারের বাজার দোদুল্যমান থাকার শঙ্কা করেছেন ব্যবসায়ীরা।  

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ