Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২৩ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

দরিদ্র দেশে নারীদের প্রতি সহিংসতা একটি অভিশাপ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ মার্চ, ২০২১, ১২:০১ এএম

পূর্ব কঙ্গোর মেয়েসোর আট সন্তানের জননী অন্নিকাটা বলেন, ‘আমি স্বেচ্ছায় গর্ভবতী হইনি’। স্বামী প্রায়শই নিজের ইচ্ছা তার উপর চাপিয়ে দেয়। তিনি বলেন, ‘সব স্বামীই এমনটা করে। তাকে প্রহার করে। এক রাতে মাতাল হয়ে তার পেছনে লাথি মারে।

গত সেপ্টেম্বরে পাকিস্তানের লাহোরের কাছে গভীর রাতে সড়কে গাড়ি চালাচ্ছিলেন এক মহিলা। এমন সময় জ্বালানি ফুরিয়ে যায়। তিনি যখন কোনো আত্মীয়ের সাহায্যের জন্য অপেক্ষা করছিলেন, তখন দু’জন লোক অন্ধকার থেকে বেরিয়ে আসে। তারা তাকে গাড়ি থেকে টেনে এনে তার বাচ্চাদের চোখের সামনেই ধর্ষণ করে।
গত সপ্তাহে ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে তার ১৭ বছরের মেয়েকে শিরচ্ছেদ করার অভিযোগ ওঠে। গ্রেফতার হওয়ার আগে তিনি তার গ্রামের পথ দিয়ে কাটা মাথা নিয়ে হেঁটে যান।
পুরুষরা একে অপরকেও আক্রমণ করে। তবে মহিলাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা, যা প্রায়শই পুরুষদের দ্বারা সংঘটিত হয়, অনন্যভাবে ভয়াবহ হতে পারে। মহিলারা প্রায়শই হিংস্র সঙ্গীর জালে আটকা পড়ে এবং সাধারণত তাদের রক্ষা করতে সক্ষম হয় না। সহিংসতা শুরু হয় অল্প বয়সে এবং প্রায়শই যৌন সহিংসতার শিকার হয়।
মহিলাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়া একটি বিশ্বব্যাপী হতাশা। দরিদ্র জায়গাগুলোর মহিলারা সবচেয়ে ঝুঁকি নিয়ে থাকেন। ইউরোপের নারীদের চেয়ে আফ্রিকান মহিলাদের তাদের সঙ্গী বা পরিবারের হাতে নিহত হওয়ার শঙ্কা চারগুণ বেশি রয়েছে। জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী, প্রতি বছর প্রায় ২০ হাজার আফ্রিকান মহিলাকে এভাবে হত্যা করা হয় বলে মনে করা হচ্ছে। দরিদ্র দেশগুলোর মহিলাদের তাদের সঙ্গীর হাতে আহত বা শ্লীলতাহানির শিকার হওয়ার সম্ভাবনাও অনেক বেশি।
এ বিষয়ে নির্ভরযোগ্য ডেটা সন্ধান করা অত্যন্ত কঠিন। অনেক দেশে মহিলারা পুলিশকে হামলার খবর দিতে খুব ভয় পান বা জানে যে এটি নিরর্থক। জরিপগুলো ক্রাইম রিপোর্টের চেয়ে সাধারণত সঠিক। সাব-সাহারান আফ্রিকা এবং দক্ষিণ এশিয়ায় প্রায় এক চতুর্থাংশ মহিলাই যারা কখনও সম্পর্কে থেকেছেন তারা বলেছেন যে, গত বছর তাদের সঙ্গীরা তাদের মারধর করেছে বা যৌন আক্রমণ করেছে। আফগানিস্তান এবং গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গোর মতো দেশগুলোতে তিনজনের মধ্যে একজনের বেশি বলা হয়েছে যে তারা গত বছর তাদের স্বামীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন।
পুরুষরা কেন নারীর প্রতি এত হিংস্র? ইতিহাসের বেশিরভাগ সময়ে এর উত্তর ছিল : কারণ, তারা গড়পরতা অনেক বেশি শক্তিশালী এবং তারা সেই শক্তিটি নারীদের উপর আধিপত্য বিস্তারে ব্যবহার করতে পারে। স্বামীরা তাদের স্ত্রীদের উপর দীর্ঘ সময় ধরে আঘাত করেছে, বা তাদের আঘাত করার হুমকি দিয়েছে। পিতৃপুরুষেরা কন্যার প্রতিও একই আচরণ করেছেন। পুরনো আইন, রীতিনীতি এবং ধর্মীয় গ্রন্থগুলিতে সাধারণ নারীদের তাদের স্বামীদের প্রতি অনুগত থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সূত্র : দ্য ইকোনমিস্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নারী-সহিংসতা
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ