Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৩ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

টি-টোয়েন্টিতেও ইংল্যান্ডের জন্য স্পিন ফাঁদ!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ মার্চ, ২০২১, ১২:০৬ এএম

এউইন মরগানের ইংল্যান্ড বিশ্বসেরা টি-টোয়েন্টি দল। কিন্তু বোলিংয়ের প্রসঙ্গে ইংলিশদের শ্রেষ্ঠত্বে কিছুটা হলেও ভাটা পড়ে। কারণ তাদের বোলিংটা দুর্বল। এটা জানেন অধিনায়ক মরগান নিজেও। আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া ভারত-ইংল্যান্ডের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ইংল্যান্ডের এই বোলিং-দুর্বলতাটা খুব করেই কাটিয়ে উঠতে চাইছেন তিনি।
কিন্তু ইংল্যান্ডের জন্য এ সিরিজ কি অতটা সহজ হবে? টেস্ট সিরিজে যেভাবে স্পিন সহায়ক উইকেট তাদের ভুগিয়েছে, টি-টোয়েন্টিতেও অপেক্ষা করছে তেমনটিই। আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে হতে যাওয়া পাঁচটি টি-টোয়েন্টিই নাকি হবে স্পিনিং উইকেটে। আর সেটি হলে মরগানের কপালে চিন্তার রেখাটা আরও বাড়বেই। ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা যে ভারতীয় স্পিনারদের বিপক্ষে নিজেদের দুর্বলতার জায়গাটা বড় প্রকটভাবেই দেখিয়ে দিয়েছেন। তবে মরগান স্পিন সহায়ক উইকেটকে স্বাগতই জানাচ্ছেন।
এ বছরই ভারতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। ভারতে এবারের সিরিজটি মরগানদের জন্য বিশ্বকাপের প্রস্তুতির মতো। কঠিন কন্ডিশনে ইংল্যান্ড দল কেমন করে, সেটি যাচাই করার জন্য ভারতীয় কন্ডিশন আদর্শ, কোহলি-রোহিতরা আদর্শ প্রতিপক্ষ। আদর্শ কন্ডিশন ও প্রতিপক্ষ। সে জন্যই হয়তো ভারতের বিপক্ষে স্পিন সহায়ক উইকেটে টেস্ট সিরিজ হারলেও টি-টোয়েন্টিতে স্পিন চ্যালেঞ্জকে স্বাগত জানাচ্ছেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক। তবে টি টোয়েন্টি নিয়ে মরগানের কণ্ঠে বেশ আত্মবিশ্বাসই থাকছে, ‘আমরা টি-টোয়েন্টিতে দারুণ ছন্দে আছি। আমরা আত্মবিশ্বাসী। গত দুই বছরে দারুণ কিছু জয় পেয়েছি। কিন্তু আমরা আমাদের খেলায় উন্নতি আনতে চাই। সামনে বিশ্বকাপ। সেখানে আমরা যত কম দুর্বলতা নিয়ে যেতে পারি ততই ভালো। আমরা শক্তিশালী দল পাচ্ছি, যা সব সময় হয় না। পুরো দল থাকাতে আমরা বেশ কিছু পরিকল্পনা নিয়ে খেলতে পারব। আমি বলব না যে টেস্টে যেমন উইকেট ছিল তেমন উইকেট প্রত্যাশা করছি। তবে আমি বলব, বল ঘুরবে, এমন উইকেট প্রত্যাশা করছি।’
২০১৬ সালে ভারতেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে হেরেছিল ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে। পাঁচ বছর বিরতি দিয়ে ভারতেই আবার ফিরছে ক্রিকেটের ছোট সংস্করণের বিশ্বকাপ। সেখানে ব্যাটিং উইকেটেও যেমন পাওয়া যাবে, ঠিক তেমনি পাওয়া যাবে কম রান হওয়া উইকেটও। ভারতের বিপক্ষে আহমেদাবাদের টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়েই সেটি পরখ করা হয়ে যাবে ইংল্যান্ডের। তবে স্পিন সহায়ক উইকেট হলেও মরগান চান এমন উইকেট, যেখানে লড়াইয়ের সুযোগটা থাকছে। এর মাধ্যমে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ইংল্যান্ডের অধিনায়ক কী টেস্ট সিরিজের উইকেটের কথাই মনে করিয়ে দিলেন, ‘আমরা জানি আমরা খুবই ভালো ব্যাটিং উইকেটে দারুণ দল। আমাদের ব্যাটসম্যানরা এতে অভ্যস্ত। কিন্তু কম রানের টি-টোয়েন্টি ম্যাচে আমাদের ভালো করার জায়গা আছে। আমরা সেই চ্যালেঞ্জের দিকে চেয়ে আছি। আমরা টেস্টের পঞ্চম দিনের মতো উইকেট প্রত্যাশা করছি না। কিন্তু বল ঘুরবে, এমন উইকেট প্রত্যাশা করছি। ২০১৬ সালে এমন উইকেটেই খেলেছি। এই জায়গায়টায় আমাদের অভিজ্ঞ হওয়া উচিত। কারণ এমন ম্যাচ আমরা খুব কম খেলি।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইংল্যান্ড


আরও
আরও পড়ুন