Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮, ২৬ রমজান ১৪৪২ হিজরী

বেতন না পাওয়ায় কর্মচারীর আত্মহত্যা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ মার্চ, ২০২১, ১২:০০ এএম

ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দগ্ধ হওয়া আজিজুল ইসলাম মিলন নামে (২৫) এক শারীরিক প্রতিবন্ধীর মৃত্যু হয়েছে। মিলন আউটসোর্সিংয়ে এক বছর ধরে ওই ইনস্টিটিউটে রিসিপশনের কাজ করছিলেন। বেতন ঠিকমত না পাওয়ায় তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে। গতকাল ভোর ৫টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। তার শরীরের ৯৫ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল।

নিহত মিলনের বাড়ি খুলনার খালিশপুরে। তিন ভাইবোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। পুরান ঢাকার হাবিবুল্লাহ সড়কের একটি বাসায় থাকতেন তিনি। সেখান থেকেই হুইলচেয়ারে করে হাসপাতালে যাতায়াত করতেন তিনি। সহকর্মীরা জানিয়েছেন, তিনি হাসপাতালের স্থায়ী কর্মচারী নন। মাসিক বেতন ভিত্তিতে তিনি কাজ করতেন। তার মাসিক বেতন ছিল ১৭ হাজার ৬১০ টাকা। আর্থিক সংকটে থাকায় মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন বলে মনে করেন সহকর্মী জহিরুল। তিনি বলেন, হাসপাতালে মাসিক ভিত্তিতে ৩৫৫ জন কাজ করেন। কিন্তু তিন মাস ধরে সবার বেতন বন্ধ। আজিজুল তার কাছে থেকেও ধার নিয়েছেন।

জানা গেছে, আউটসোর্সিং কর্মী মিলন ঋণগ্রস্ত ছিলেন। অন্যদিকে দুই-তিন মাস ধরে কর্মস্থল থেকে বেতন পাচ্ছিলেন না। বেতন ঠিকমত না পাওয়ায় পাওনাদারদের চাপে ছিলেন তিনি। সেজন্য গত শুক্রবার রাত ১টার দিকে ইনস্টিটিউটের নিচতলায় ওয়াশরুমে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তখন সহকর্মীরা মিলনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে গতকাল ভোর ৫টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মিলনের সহকর্মী তাজমির বলেন, মিলন তিন-চার মাস পর একবার বেতন পেতেন। তিনি ঋণগ্রস্ত ছিলেন। বেতন ঠিকমত না পাওয়ায় পাওনাদারদের চাপে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও বাঁচানো যায়নি। তার শরীরের ৯৫ ভাগে পুড়ে গেছে বলে জেনেছি।

বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. পার্থ শংকর পাল বলেন, মিলনের শরীরের ৯৫ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল, চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর ৫টার দিকে তার মৃত্যু হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কর্মচারীর আত্মহত্যা
আরও পড়ুন