Inqilab Logo

শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৬ কার্তিক ১৪২৮, ১৪ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সুয়ারেজের ‘৫০০’, এমবাপের ‘১০০’

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ মার্চ, ২০২১, ১২:০০ এএম

নতুন রেকর্ড গড়লেন লুইস সুয়ারেজ। স্পর্শ করলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনলদো, লিওনেল মেসিকে। বর্ণময় ক্যারিয়ারে দেশ এবং ক্লাবের জার্সিতে ৫০০ গোল করার কৃতিত্ব অর্জন করলেন তিনি। বিশ্বের পঞ্চম খেলোয়াড় হিসেবে প্রবেশ করলেন এই এলিট ক্লাবে। রোনালদো-মেসি ছাড়াও এই কৃতিত্ব রয়েছে জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ এবং রবার্ট লেভানদোস্কির। উরুগুয়ের প্রথম ফুটবলার হিসেবে এই অনন্য কীর্তি গড়লেন সুয়ারেজ।

চলতি মৌসুমে দুরন্ত ছন্দে রয়েছেন সুয়ারেজ। আটলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে একের পর এক ফুল ফুটিয়ে চলেছেন তিনি। লা লিগায় ইতিমধ্যেই ১৯ গোল করে ফেলেছেন। সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার দৌড়ে সাবেক সতীর্থ মেসির সঙ্গে একই সারিতে রয়েছেন। সেই সঙ্গে সুয়ারেজের হাত ধরে এই মুহূর্তে লা লিগার শীর্ষে রয়েছে অ্যাটলেটিকো।
গত পরশু আলাভেসের বিরুদ্ধে সুয়ারেজের একমাত্র গোল জয় ছিনিয়ে নেয় এটিএম। আলাভেসকে হারানোর পাশাপাশি ফুটবল জীবনে বড় মাইলফলক স্পর্শ করলেন উরুগুয়ের তারকা ফুটবলার। পরিসংখ্যান বলছে, এই ৫০০ গোলের মধ্যে সুয়ারেজ সবচেয়ে বেশি সফল মেসির ক্লাবের জার্সিতে। বার্সেলোনার হয়ে ১৯৮টি গোল রয়েছে তার। স্প্যানিশ জায়ান্টদের হয়ে চারটি ঘরোয়া লিগ ছাড়াও একটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছেন সুয়ারেজ। নেদারল্যান্ডের আয়াক্সের জার্সিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১১১টি গোল রয়েছে সুয়ারেজের। লিভারপুলের জার্সিতে রয়েছে ৮২টি গোল।
অ্যাটলেটিকোর জার্সিতে এখনও পর্যন্ত ১৯টি গোল রয়েছে সুয়ারেজের। জাতীয় দলের হয়ে করেছেন ৬৩টি গোল। ফুটবল জীবনের একেবারে শুরুতে উরুগুয়ের নেসিওনালের হয়ে ১২টি এবং নেদারল্যান্ডসের গ্রোনিনজেনের হয়ে ১৫টি গোল রয়েছে এটিএম তারকার। আলাভেসকে হারিয়ে ২৮ ম্যাচে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে লিগ তালিকার শীর্ষ অবস্থান ধরে রাখলো অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। লিগের আরও ১০ ম্যাচ বাকি।
অন্যদিকে অসাধারণ ছন্দে এগিয়ে যাচ্ছেন ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপে। চলতি মৌসুমে যেন আরও দুর্বার। তার নৈপুণ্যেই ফরাসি লিগ ওয়ানে অলিম্পিক লিঁওকে উড়িয়ে দিয়ে ফের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠেছে পিএসজি। আর তাতে ফরাসি লিগ ওয়ানে ১০০ গোল পূরণ করেছেন বিশ্বকাপ জয়ী এ তরুণ। ম্যাচ শেষে নিজের উচ্ছ্বাসও গোপন করেননি তিনি, ‘১০০তম গোল করার জন্য এটা ছিল দারুণ একটি দিন। আমি জানতাম আমার দুটি গোল কম ছিল। (নঁতের স্ট্রাইকার) রেনদাল কোলো মুয়ানিকে আগের সপ্তাহে গোল উপহার দেওয়ার পর এটা আমাকে করতেই হতো। এটা আমার ক্যারিয়ারের অন্যতম একটি ধাপ। ইতিহাসের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে যাওয়া।’
তবে এমন কীর্তি গড়ার পরও হাসি মুখে মাঠ ছাড়তে পারেননি তিনি। লিঁও’র বিপক্ষে ৪-২ গোলের দারুণ জয়ের ম্যাচে গোড়ালির ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাকে। তবে সামনে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচকে লক্ষ্য করেই হয়তো সাবধানতা অবলম্বন করেছেন এমবাপে। কোচ মাউরিসিও পচেত্তিনোর কথায় তাই ফুঠে ওঠে, ‘কিলিয়ান সাবধানতা অবলম্বন করেছে। সে একটি আঘাত পেয়েছিল। প্রথমার্ধে গোড়ালি কিছুটা মচকে গিয়েছিল।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সুয়ারেজের ৫০০
আরও পড়ুন