Inqilab Logo

শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

মিয়ানমারে সশস্ত্র বাহিনী দিবসে গুলিতে ১৬ বিক্ষোভকারী নিহত

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ মার্চ, ২০২১, ১:১৪ পিএম

মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী শনিবার গুলি করে অন্তত ১৬ বিক্ষোভকারীকে হত্যা করেছে। স্থানীয় সাংবাদিক ও প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে বার্তা সংস্থা এএফপি এমন খবর দিয়েছে। জান্তা সরকার বলছে, তারা জনগণকে সুরক্ষা ও গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন খবর দিয়েছে।

দেশটির জেনারেলরা যখন সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালন করছে, তখনও বিক্ষোভ নিয়ে রাস্তায় নেমে আসেন গণতন্ত্রকামীরা। যদিও এর আগে তাদের পিঠে ও মাথায় গুলি করে হত্যার হুশিয়ারি করে দেওয়া হয়েছিল। শনিবার বাণিজ্যিক রাজধানী ইয়াঙ্গুন, মান্দালয়াসহ বিভিন্ন শহরে আটকদের মুক্তি ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ করতে দেখা গেছে।

জান্তাবিরোধী গোষ্ঠী বিআরপিএইচের মুখপাত্র ডা. সাসা বলেন, আজকের দিনটি সশস্ত্র বাহিনীর জন্য লজ্জাজনক। তিন শতাধিক নিরাপরাধ মানুষকে হত্যার পর সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালন করছেন জেনারেলরা। ইয়াঙ্গুনের দালা উপশহরে পুলিশ স্টেশনের বাইরে বিক্ষোভে জড়ো হওয়া লোকজনের ওপর এলোপাতাড়ি গুলি করে নিরাপত্তা বাহিনী।

ইনসেইন জেলা শহরে তিনজন নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে স্থানীয় অনূর্ধ্ব-২১ ফুটবল দলে খেলা এক তরুণও রয়েছেন। আর পূর্বের লাশিহো শহরে মারা গেছেন চারজন। ইয়াঙ্গুনের কাছে বাগোতেও আলাদা আলাদা চারটি ঘটনা ঘটেছে। উত্তরপূর্বের হোপিন শহরে নিহত হয়েছেন এক বিক্ষোভকারী। রাজধানী নেপিডোতে সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করার পর ফের নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন শীর্ষ জেনারেল মিন অং হ্লাইং।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মিয়ানমার


আরও
আরও পড়ুন

অধিকৃত কাশ্মীরে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলন করার ভারতীয় পরিকল্পনার নিন্দা করেছে চীন

img_img-1656760912

ভারত কতৃক অবৈধভাবে অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলন আয়োজনের ভারতীয় প্রস্তাবের সমালোচনা করেছে চীন এবং গ্রুপের অংশগ্রহণকারীদের প্রাসঙ্গিক ইস্যুতে রাজনীতি না করে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের দিকে মনোনিবেশ করার আহ্বান জানিয়েছে। -ডেইলি টাইমস, এপিপি চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বেইজিংয়ে তার নিয়মিত ব্রিফিংয়ের সময় বলেছেন যে, কাশ্মীর নিয়ে চীনের অবস্থান ধারাবাহিক এবং দ্ব্যর্থহীন। এটি ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে একটি উত্তরাধিকারী সমস্যা এবং এটি প্রাসঙ্গিক জাতিসংঘ  রেজুলেশন এবং দ্বিপাক্ষিক চুক্তি অনুযায়ী সঠিকভাবে সমাধান করা উচিত। সংশ্লিষ্ট পক্ষের উচিত একতরফা পদক্ষেপ নিয়ে পরিস্থিতি জটিল করা এড়ানো। পাকিস্তান পুনর্ব্যক্ত করেছে যে, অঞ্চলটি নয়াদিল্লির জোরপূর্বক এবং অবৈধ দখলের অধীনে রয়েছে। ইতিমধ্যে পাকিস্তান সেখানে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলন আয়োজনের ভারতের প্রচেষ্টা প্রত্যাখ্যান করেছে। পাকিস্তান চায় চীন, তুরস্ক ও সউদি আরব জি-২০ বৈঠক বয়কট করুক। জি-২০ শীর্ষ সম্মেলন বয়কট করার প্রয়াসে পাকিস্তান একটি কূটনৈতিক প্রচেষ্টা শুরু করেছে এবং বর্তমানে তার ঘনিষ্ঠ মিত্র চীন, তুরস্ক এবং সউদি আরবের সাথে অঅলোচনা করছে। ভারতের পদক্ষেপ প্রত্যাখ্যান করার পরে পাকিস্তান তার উদ্বেগ প্রকাশ করতে চীন, তুরস্ক এবং সউদি আরবের উপর বিশেষ জোর দিয়ে সমস্ত জি-২০ দেশগুলোর সাথে যোগাযোগ করবে। ভারতীয় পরিকল্পনার বিরোধিতা করার জন্য পাকিস্তান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং অন্যান্য জি-২০ সদস্যদের সাথেও যোগাযোগ করবে।   ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে,

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ