Inqilab Logo

বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৪ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

১৪ বিক্ষোভকারী মৃত্যুর বিষয়ে তাৎক্ষণিক, নিখুঁত, নিরপেক্ষ ও স্বাধীন তদন্ত করতে হবে বাংলাদেশকে : ১১ মানবাধিকার সংগঠন

ইনকিলাব অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ এপ্রিল, ২০২১, ৮:৪১ পিএম

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ ১১ মানবাধিকার সংস্থার যৌথ বিবৃতি বলছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশে আগমনের প্রতিবাদকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভকারীদের মৃত্যুর বিষয়ে তাৎক্ষণিক, নিখুঁত, নিরপেক্ষ ও স্বাধীন তদন্ত করতে হবে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে এবং শান্তিপূর্ণ সমাবেশে জনগণের অধিকারকে সম্মান করতে হবে। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই ২৬ থেকে ২৮ মার্চের মধ্যে দেশব্যাপী কমপক্ষে ১৪ জন বিক্ষোভকারীর মৃত্যুর বিষয়ে তাৎক্ষণিক, নিখুঁত, নিরপেক্ষ ও স্বতন্ত্র তদন্ত করতে হবে। সংস্থাগুলো বাংলাদেশী কর্তৃপক্ষকে বিরোধী কর্মীদের নির্যাতন ও জোর করে নিখোঁজ করার প্রথা বন্ধ করার আহ্বান করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কেও আহ্বান জানিয়েছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ২০২১ থেকে ২৬ মার্চ, ২০২১ সালের মধ্যে পুলিশ এবং ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সদস্যরা বিভিন্ন রাজনৈতিক ও নাগরিক সমাজ গোষ্ঠী দ্বারা আয়োজিত দেশজুড়ে বিক্ষোভে হামলা চালিয়ে কয়েক শতাধিক শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীকে মারধর ও আহত করেছে।

২৬ মার্চ, নির্দলীয় ধর্মীয় গোষ্ঠী হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ঘোষণা করেছিল যে, ঢাকায় অবস্থিত দেশের কেন্দ্রীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম থেকে শুক্রবার জুমা নামাজের পরে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদ জানিয়ে একটি সমাবেশ করবে। অথচ স্থানীয় গণমাধ্যম দ্বারা অনুষ্ঠানের ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে যে, ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ (আ.লীগ) এবং এর ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের (ছাত্রলীগ) সদস্য হিসাবে গণ্য করা একটি বিশাল দল বিক্ষোভ শুরুর আগেই বায়তুল মোকাররম মসজিদের চারপাশে জড়ো হয়েছিল। জুমার নামাজ শেষ হওয়ার সাথে সাথে আ’লীগ ও ছাত্রলীগের সদস্যরা বিক্ষোভ শুরুর চেষ্টা করে নিরীহ মুসল্লীদের উপর সহিংস হামলা শুরু করেন। বিক্ষোভকারীরা মসজিদ ভেতরেই সীমাবদ্ধ ছিল, যেখানে সংগঠনগুলোর ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে যে, হামলাকারীরা অনাকাঙ্খিত আক্রমণ চালাতে লাঠি ও আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করেছিল। এর পরপরই পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস, রাবার বুলেট এবং গোলাবারুদ ব্যবহার করে ও সরাসরি গুলি চালায়। কমপক্ষে ৬০ জন বিক্ষোভকারী আহত হয়েছিল, অনেকে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছিল।

ঢাকায় বিক্ষোভকারীদের উপর হামলার ঘটনা ২৭ এবং ২৮ শে মার্চ সারা দেশে বিক্ষোভের সূত্রপাত ঘটে। আওয়ামী লীগ সমর্থকরা এর মধ্যে অনেকগুলো বিক্ষোভে উপস্থিত ছিলেন, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তারা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদকারীদের মুখোমুখি হয়ে তাদের আক্রমণ করেছিলেন। কর্তৃপক্ষ বিক্ষোভদমন করতে সারাদেশে বেশ কয়েকটি জায়গায় বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) মোতায়েন করেছে। বিজিবি ও পুলিশ ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের আক্রমণ থেকে বিক্ষোভকারীদের রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছিল। তবে তারা বেআইনী, অপ্রয়োজনীয় এবং অতিরিক্ত বাহিনীরও সাহায্য নিয়েছিল, যার ফলে চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলায় কমপক্ষে ১৪ জন বিক্ষোভকারী মারা গিয়েছিল। শতাধিক প্রতিবাদকারী আহত হন, অনেকে গুলিবিদ্ধ হন এবং অনেককে আটক করা হয়।
পুলিশ অহেতুক এবং অতিরিক্ত বাহিনীর ব্যবহার মাত্র কয়েক দিন আগে প্রাথমিক বিক্ষোভের সাথে নথিভুক্ত একই ধাঁচ অনুসরণ করেছিল। ২৫ শে মার্চ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এই সফরের প্রতিবাদকারী জনতার উপর পুলিশ রাবার গুলি ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপের পরে ঢাকায় ৪০ জনেরও বেশি লোক আহত হয়েছিল। একই দিন স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে যে, ছাত্রলীগের সদস্যরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভকারীদের উপর হামলা করে এবং ২০ জন ছাত্রকে আহত করে।

২৪ শে মার্চ, বাম গণতান্ত্রিক জোট (এলডিএ) আয়োজিত সিলেটের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় জেলায় পুলিশ লাঠিচার্জ করার পরে কমপক্ষে ২৫ জন বিক্ষোভকারী আহত হয়েছেন। একই দিন, উত্তরাঞ্চল জেলা রাজশাহীতে বিরোধী দল আয়োজিত বেশ কয়েকটি শান্তিপূর্ণ সমাবেশে পুলিশ লাঠিচার্জ করে এবং ছত্রভঙ্গ করে এবং কমপক্ষে দশ জনকে গ্রেপ্তার করেছিল। ২৩ শে মার্চ, স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, ছাত্রলীগের সদস্যরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষার্থী জোটের উদ্যোগে আয়োজিত একটি সমাবেশে অংশ নেওয়া বিক্ষোভকারীদের মারধর করেছিল এবং কমপক্ষে ২৫ জনকে আহত করেছে।

প্রতিবাদকারীদের উপর সহিংসতা চালানোর পাশাপাশি কর্তৃপক্ষ নাগরিক অধিকার লঙ্ঘন করে কোনও প্রথাগত নোটিশ ছাড়াই ২৫শে মার্চ সন্ধ্যা থেকে ফেসবুক এবং ম্যাসেঞ্জার সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্ল্যাটফর্মে উচ্চ গতির ইন্টারনেট অ্যাক্সেসকে নিষিদ্ধ করেছে এবং ফেসবুক এবং ম্যাসেঞ্জার সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর প্ল্যাটফর্মে অ্যাক্সেসকে নিষিদ্ধ করেছে। জনগণের বিক্ষোভ সমাবেশ এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে, মত প্রকাশ করার ক্ষমতা বাধাগ্রস্ত করেছে।

বিক্ষোভের পরে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা কমপক্ষে পাঁচ বিরোধী নেতাকর্মীকে এমন পরিস্থিতিতে এমনভাবে অপহরণ করে যাতে নিখোঁজ হতে পারে। ২৬ শে মার্চ, রাজধানী ঢাকার সাভার এলাকা থেকে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক শাকিল উজ্জামান এবং মিনা আল মামুনকে অপহরণ করা হয়েছিল।তাদের বন্ধুরা সংস্থাগগুলোকে বলেছিল যে, তারা ৠাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের এজেন্টদের মাধ্যমে তাদেরকে তুলে নিতে দেখেছে। আপ ২৭ মার্চ, বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নাদিম হাসানকে শেষবার রাজধানীর লালবাগ এলাকায় দেখা গিয়েছিল যখন তার কাছে পুলিশ এসেছিল, তার সহকর্মীরা জানিয়েছে। ২৮ শে মার্চ, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক মোঃ মাজহারুল ইসলাম এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা - বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ-সচিব নাজম উস সাকিবকে সাদা পোশাক পরে তাদের বাড়ি থেকে অপহরণ করা হয়েছিল।



 

Show all comments
  • Mahfuzur Rahman ১ এপ্রিল, ২০২১, ৮:৪৯ পিএম says : 0
    তা না হলে হাশরে কঠিন তম বিচারের মুখোমুখি হতে হবে ৷
    Total Reply(0) Reply
  • Jack Ali ১ এপ্রিল, ২০২১, ৯:১০ পিএম says : 0
    Why we liberated our country from barbarian army ???? but after liberation we are getting oppressing by our own people as a matter of fact barbarian ruler they don't have any religion, their religion is to stay in power by hook and crook, by committing genocide, abduction and they never come back to their family, looting our hard earned tax payers money and sending to foreign countries, instil fear to general people by arresting them so that they will never speak the criminal activities of enemy of Allah, rulers have Gunda Bahini every corner of our beloved country and they are Chada Baz, every day crores or crores of taka these Chanda Baz collect and people's life miserable, if any body refuse either they are killed or victim of severe torture. O'Allah rescue us from the Zalem enemy ruler and appoint a Muslim ruler who will rule by our Creator The Al-Mighty Allah only then we can get back our independence and we will be able to live in our beloved country in peace and there will be no more poor people;
    Total Reply(0) Reply
  • তাফহীম ১ এপ্রিল, ২০২১, ১০:৩৯ পিএম says : 0
    জিরো টলারেন্স রেখে এ প্রতিবেদন করায় সত্যিই খুব ভাল্লাগলো। বাকি সব নিউজে পা চাটা কুত্তার অবস্থা। কিন্তু আপনাদের বিষয়টা ব্যাতিক্রম। এভাবে নিউজের জন্য অনুরোধ রইল❤️❤️
    Total Reply(0) Reply
  • Ammar ১ এপ্রিল, ২০২১, ১১:৪৮ পিএম says : 0
    ১৯ জন মানুষকে হত্যার খবরটি গণমাধ্যমকর্মীরা এড়িয়ে যাচ্ছে কোন পাষন্ডতার স্বার্থে আমার বোধগম্য নয়!
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন