Inqilab Logo

শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২ আশ্বিন ১৪২৮, ০৯ সফর ১৪৪৩ হিজরী

নতুন রূপ পাচ্ছে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে ২৬টি স্টেশন

রাজশাহী ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৩ এপ্রিল, ২০২১, ২:১৬ পিএম

নতুন রূপ পাচ্ছে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে ২৬টি স্টেশন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী মুজিববর্ষ উপলক্ষে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে ১শো ৫০ কোটি টাকা ব্যায়ে ২৬টি স্টেশনকে ‘মডেল’ হিসেবে আধুনিকায়ন করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। আগামী মাসেই টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করে কাজ শুরু হবে। এরপর ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসের আগেই সব কাজ শেষ হবে। এমন তথ্যই জানালেন পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মিহির কান্তি গুহ। যে স্টেশনগুলো মডেল হবে সেগুলো হলো- টাঙ্গাইল, জামতৈল, উল্লাপাড়া, বড়াল ব্রীজ, চাটমোহর, নাটোর, সান্তাহার, রংপুর, সৈয়দপুর, পার্বতীপুর, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, ডোমার, বিরামপুর, জয়পুরহাট, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, বোনারপাড়া, বগুড়া, খুলনা, যশোর, পোড়াদহ, চুয়াডাঙ্গা ও রাজবাড়ী।
জিএম জানান, মুজিববর্ষে রেলওয়ে কিছু করতে চাই। এ চিন্তা থেকেই সারাদেশের ৫০টি স্টেশনকে ‘মডেল স্টেশন’ হিসেবে সাজানোর পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ২৬টি স্টেশন পশ্চিমাঞ্চলের। তালিকা ইতোমধ্যে চূড়ান্ত করেছে প্রধান প্রকৌশলীর দপ্তর। দ্রুতই টেন্ডার আহ্বান করা হবে। পরিকল্পনা মাফিক স্টেশনগুলোতে প্ল্যাটফরম সেড বড় করার পাশাপাশি আরও উঁচু করা হবে যাতে ট্রেনে ওঠানামা করতে যাত্রীদের সুবিধা হয়। জেলা শহরের অনেক স্টেশনেই এখন দুটি প্লাটফরম নেই। মডেল স্টেশন করার সময় সেগুলোতে দুটি করে প্লাটফরম নির্মাণ করা হবে। দুটি প্লাটফরমে যাওয়া-আসার জন্য ফুটওভার ব্রিজও নির্মাণ করা হবে। এছাড়া প্রতিটি স্টেশনে নারী ও পুরুষের জন্য থাকবে আলাদা শৌচাগার। যাত্রীদের বসার জন্য সুন্দর জায়গা করার পাশাপাশি সবখানেই আধুনিকতার ছোঁয়া লাগানো হবে।
রেল কর্মকর্তারা জানান, এখন স্টেশনগুলোর ভেতরে অনেক অবৈধ দোকানপাট রয়েছে। সেগুলো কিছু থাকবে না। প্রতিটি স্টেশনের সুবিধাজনক স্থানে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’ ও ফুড কর্নার থাকবে। ব্রিটিশ আমলে নির্মিত স্টেশনগুলো হয়ে উঠবে আধুনিক। প্রয়োজনে আরও বাড়তি স্থাপনা তৈরি করা হবে।
পশ্চিম রেলের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মডেল স্টেশনগুলোতে শৌচাগার নির্মাণের কাজটি করতে চায় ‘ওয়াটার এইড’ নামের একটি সংস্থা। সম্প্রতি রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত একটি কর্মশালায় এটি প্রায় চূড়ান্ত হয়েছে। সেখানে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ওয়াটার এইড এবং রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এটি চূড়ান্ত হবার পর দ্রুত কাজ এগিয়ে নিতে চেষ্টা করছেন পশ্চিম রেলের কর্মকর্তারা। আগামী মাসেই কাজের টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করতে চান তারা।
পশ্চিম রেলের জিএম মিহির কান্তি গুহ বলেন, যাত্রীরা যেন স্বচ্ছন্দে ট্রেনে ভ্রমণ করতে পারেন সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই স্টেশনগুলো মডেল হিসেবে তৈরি করা হবে। সরকার মুজিববর্ষ আগামী বিজয় দিবস পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে। তার মধ্যেই সব কাজ শেষ হবে। এর একদিনও বেশি সময় দেয়া যাবে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রেলওয়ে


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ