Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০১ জৈষ্ঠ্য ১৪২৮, ০২ শাওয়াল ১৪৪২ হিজরী

আইপিএলে অসম্ভবের লক্ষ্যে সাকিব

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০৫ এএম

আইপিএলে তো বটেই, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেই এখনও পর্যন্ত একই ম্যাচে সেঞ্চুরি ও ৫ উইকেটের ‘ডাবল’ করতে পারেননি কেউ। কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে এবারের আইপিএলে সেই অনন্য কীর্তিই গড়তে চান সাকিব আল হাসান।
ক্ষুদ্র ফরম্যাটের এই ক্রিকেটে এখনও পর্যন্ত এক ম্যাচে সেঞ্চুরির পাশাপাশি ৪ উইকেট আছে কেবল দুই জনের। পাকিস্তানের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে ২০০৬ সালে লাহোর লায়ন্সের হয়ে ইসলামাবাদ লিওপার্ডসের বিপক্ষে অপরাজিত ১০০ রান করার পর ১১ রানে ৪ উইকেট নেন তৌফিক উমর। পরে ২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে মাল্টার বিপক্ষে ১০১ রান করার পর ১৫ রানে ৪ নেন চেক প্রজাতন্ত্রের সাবাউন ডাভিজি। এবার তাদের ছাপিয়ে এক ম্যাচে সেঞ্চুরি আর ৫ উইকেটের কীর্তিতে চোখ সাকিবের!
অনেক আলোচনা-সমালোচনার শেষে এরই মধ্যে ভারতে পৌঁছে গেছেন সাকিব। সেখানে পৌঁছে নির্ধারিত কোয়ারেন্টিন শেষে গতপরশুই দলের সঙ্গে নেমেছেন মাঠের অনুশীলনে। তার ফাঁকে ক্রিকেট ওয়েবসাইট ইএসপিএনক্রিকইনফোর সঙ্গে ঝটপট প্রশ্নোত্তরের ছোট্ট একটি পর্বে সাকিব জানান অসম্ভব এক লক্ষ্য। নিষেধাজ্ঞার কারণে গত মৌসুমে খেলতে না পারলেও এবার আবারো আইপিএলের ময়দানে ফিরেছেন বাংলাদেশি অলরাউন্ডার। আর প্রত্যাবর্তনটি রাঙাতে অসম্ভব এক লক্ষ্য স্থির করেছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। তাকে জিজ্ঞেস করা হয়, আইপিএলের কোন রেকর্ডটি তিনি ভাঙতে চান? সাকিবের উত্তর, ‘দলের জয়ে অবদান রাখতে চাই। আর যে রেকর্ড করতে চাই। আর এক ম্যাচে সেঞ্চুরি করা ও ৫ উইকেট নেওয়া।’
টি-টোয়েন্টিতে ৫ উইকেট নেওয়ার ম্যাচে সর্বোচ্চ রান মইন আলির। ২০১৩ সালে এই ইংলিশ অলরাউন্ডার উস্টারশায়ারের হয়ে নর্থহ্যাম্পটনশায়ারের বিপক্ষে ৭২ রান করার পর নেন ৫ উইকেট। সাকিব টেস্টে এক ম্যাচে সেঞ্চুরি ও ৫ উইকেটের স্বাদ পেয়েছেন দুইবার। তবে টি-টোয়েন্টিতে ভিন্ন দুই ম্যাচে বল হাতে ২০ রানে ৫ উইকেট আর ব্যাট হাতে ৮৪ রানের ইনিংসই সাকিবের সেরা। এবার এক ম্যাচেই সেরা ছাড়িয়ে যাবার লক্ষ নিয়ে নামছেন নিজের চতুর্থ আসরে।
আইপিএলে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন তিনি। প্রায় নিয়মিতভাবেই খেলছেন অনেক বছর ধরে। কলকাতার দুটি শিরোপা (২০১২ ও ২০১৪) জয়েও রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান। ২০১৪ আইপিএলকে তিনি মনে করেন নিজের সেরা আসর, যেবার রান করেছিলেন ২২৭ ও উইকেট নিয়েছিলেন ১১ টি। এরপর অবশ্য আর চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি শাহরুখ খানের দল। এবার সাকিব ফিরেছেন, তাতে যদি শিরোপা ভাগ্যও ফেরে! সাকিব জানান, দলের বোলিং ইউনিটের প্রতি অগাধ আস্থা আছে তার। তবে নিজ দলের সবচেয়ে বড় শক্তির জায়গা মনে করেন বোলিংকে। তৃতীয় শিরোপা জিততে মরিয়া সাকিব বলেন, ‘প্রতি বছর, প্রতিদিন আইপিএল থেকে অনেক কিছু শেখা যায়... আমাদের সব বিভাগই ভালো। তবে আমি মনে করি বোলিং বিভাগ অনেক বেশি ভালো। এ বছর আমাদের শিরোপা এনে দিতে পারে।’
মুখিয়ে আছেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে খেলতে। কোন বোলারের মুখোমুখি হতে সবচেয়ে বেশি মুখিয়ে আছেন, তার উত্তরও দিয়েছেন সাকিব, ‘আর্চারকে খেলতে অপেক্ষায় ছিলাম, তবে সে তো এবারের আইপিএলে নেই। আরেকজন আছে, তাকে আমি নেটে অনেক খেলব, প্যাট কামিন্স।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আইপিএল


আরও
আরও পড়ুন