Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ২৩ বৈশাখ ১৪২৮, ২৩ রমজান ১৪৪২ হিজরী

বাউফলে বিতর্কিত স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ১২ চিকিৎসকের লিখিত অভিযোগ

জেলা সিভিল সার্জনের সাথে অসদাচরণ, থানায় জিডি

বাউফল (পটুয়াখালী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৬ এপ্রিল, ২০২১, ৭:৩৩ পিএম

বাউফলে এক বিতর্কিত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার (অবঃ) অসদাচরণে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। তার এই অসাধারণের বিরুদ্ধে খোদ জেলা সিভিল সার্জন মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বাউফল থানায় একটি জিডি করেছেন। এ ছাড়াও বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১২ জন চিকিৎসক ওই স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার (অবঃ) বিরুদ্ধে সিভিল সার্জনের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। অভিযোগের কপি হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি কাছে প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযুক্ত ওই কর্মকর্তার নাম নাম ডাঃ শাহ আলম। তার বাড়ি বাউফলের দাশপাড়া গ্রামে। তিনি শহরের একটি প্রাইভেট ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অংশীদার।

জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম তার জিডিতে উল্লেখ করেছেন, তিনি একটি অভিযোগের তদন্ত করতে মঙ্গলবার বাউফল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন। অভিযোগকারী হলেন ডাঃ শাহ আলম (অবঃ)। বেলা সাড়ে ১১টার সময় সময় কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জরুরী ইনফরমেশন পেয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর সাথে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দেন। এসময় অভিযোগকারী ডাঃ শাহ আলম (অবঃ) উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ প্রশান্ত কুমার সাহার অফিস কক্ষে প্রবেশ করেন এবং সামনের সারির একটি চেয়ারের পায়ের উপর পা তুলে বসেন। এরপর তিনি জেলা সিভিল সার্জনের কাছে তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি হাত দিয়ে ইশারা করে তাকে বসার জন্য বলেন। তাকে স্যার সম্বোধন না করে বসতে বলায় ক্ষুদ্ধ হন ডাঃ শাহ আলম (অবঃ)। তিনি উত্তেজিত হয়ে উঠেন। একপর্যায়ে সিভিল সার্জনকে কুরুচি ভাষায় গালাগাল করেন এবং দেখিয়ে দেয়ার হুমকি দেন। এ কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর সাথে তার ভিডিও কনফারেন্স কিছুটা বিঘ্নিত হয়। তার ডাক চিৎকার শুনে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকরা ওই কক্ষে প্রবেশ করলে তখন ডাঃ শাহ আলম (অবঃ) কক্ষ থেকে বের হয়ে যান। এ ঘটনার পর জেলা সিভিল সার্জন বিষয়টি তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি এমপি আসম ফিরোজকে অবহিত করেন। এরপর তিনি বাউফল থানায় ডাঃ শাহ আলমের (অবঃ) একটি জিডি করেন।

এ ছাড়াও বিভিন্ন সময় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে চিকিৎসক ও স্টাফদের সাথে অসদাচরণ করার অভিযোগে ওই দিন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১২ জন চিকিৎসক ডাঃ শাহ আলমের (অবঃ) বিরুদ্ধে জেলা সিভিল সার্জনের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ডাঃ শাহ আলমের(অবঃ) বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগে একটি মামলা রয়েছে। এই মামলায় তিনি গ্রেফতার হন এবং কয়েকদিন কারাভোগ করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ডাঃ শাহ আলম (অবঃ) বলেন, ‘ আমি বয়সে তার (সিভিল সার্জন) সিনিয়র। আমাকে স্যার না ডেকে অসম্মান করেছেন এবং আমাকে একজন সাধারণ নাগরিক বলেছেন। এতে আমি অপমানবোধ করি এবং কক্ষ থেকে বের হয়ে যাই। অসদাচরণের অভিযোগ সত্য না।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পটুয়াখালী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ