Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ২৪ বৈশাখ ১৪২৮, ২৪ রমজান ১৪৪২ হিজরী

‘ফিফা বাফুফের ফান্ড স্থগিত করেনি’!

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ এপ্রিল, ২০২১, ৯:০৪ পিএম

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী, এমপি বলেছেন, ফিফা বাফুফের কোনো ফান্ড স্থগিত করেনি। মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর পান্থপথে নিজ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন,‘ফিফা থেকে কোনো ধরনের ফান্ড স্থগিত করা হয়নি।’ অথচ বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও ফিন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান এ কথা বলার ২৪ ঘন্টা আগে থেকে দেশের ফুটবল অঙ্গনের আলোচিত বিষয় ছিল ‘বাফুফের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ফিফা তাদের অনুদান স্থগিত করেছে’।

সংবাদ সম্মেলন করার আগে মঙ্গলবার দুপুরে আবদুস সালাম মুর্শেদী ও বাফুফের অন্যান্য কর্মকর্তারা ভার্চুয়াল সভা করেছেন ফিফার কর্মকর্তাদের সঙ্গে। ওই সভাটি খুবই সুন্দর হয়েছে বলে জানান বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি। তিনি বলেন, ‘এই সভায় ফিফা কর্মকর্তারা বাফুফের কার্যক্রমে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বক্তব্য দিয়েছেন।’

যদি তাই হয় তাহলে কেন ফিফার ফান্ড স্থগিত করার গুঞ্জন বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে? এই প্রশ্নের উত্তরে সালাম বলেন,‘অর্থ ছাড় হচ্ছে না বলে যে কথাগুলো শুনেছেন সে তথ্য সঠিক নয়।’ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ। তিনি বলেন,‘মাত্র ১৫ দিন আগেও ফিফা থেকে আমরা একটা বরাদ্দ পেয়েছি।’ সালাম মুর্শেদী যোগ করেন, ‘ওই বরাদ্দের কাগজপত্রে আমি ৪ এপ্রিল স্বাক্ষরও করেছি।’

তাহলে ফিফার সঙ্গে কি নিয়ে ভার্চুয়াল সভা হলো বাফুফের? ‘আজকে যে সভা হলো এমন সভা বিভিন্ন সময়ে হয়ে থাকে আমাদের। আসলে বাফুফের আর্থিক কার্যক্রমে আরো স্বচ্ছতা, নিরপেক্ষতা ও জবাদিহিতা নিশ্চিত করণের লক্ষ্যে ফিফা থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। পার্সেস, পেমেন্টসহ বিভিন্ন বিষয়ে নীতি প্রণয়নের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। যাতে ভবিষ্যতে ফিফার ফরোয়ার্ড প্রজেক্টগুলো বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখতে পারে’- বলেন সোহাগ।

সভায় ফিফা কর্মকর্তারা বাফুফের ফিন্যান্স সংক্রান্ত কর্মকান্ডের যে প্রশংসা করেছে, সে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে উল্লেখ করা হয়। সালাম মুর্শেদী আরো বলেন, ‘আসলে আমাদের যে সিস্টেম ফলো করা উচিত কখনো কখনো সেটা হয় না, আমরা তা করতে পারি না। কারণ, কিছু কাজ তাৎক্ষণিকভাবে করতে হয়। আমরা এখন সব পেমেন্ট চেকে করে থাকি। কখনো কখনো এটার ব্যত্যয় ঘটে। তবে পরিমাণ কম। আমরা এক খাতের অর্থ অন্য খাতেও ব্যয় করি না।’ তাহলে ফান্ড বন্ধের গুঞ্জন কেন উঠেছে? এমন প্রশ্নে সালামের উত্তর, ‘ কোভিডের কারণে ফরোয়ার্ড প্রোগ্রামগুলো হয়নি। ফিফাও জানিয়েছে, বাংলাদেশের মতো অনেক অ্যাসোসিয়েশন কোভিডের সময় কাজ করতে পারেনি। তাই বলে ফরোয়ার্ড প্রজেক্টগুলো ল্যাপস হয়ে যায়নি। কাজ শুরু আর শেষ না করলে তো ফান্ড ছাড় হবে না। করোনার কারণে আমরা সেটা নিতে পারিনি। অন্য কোনো ফান্ড স্থগিত হয়নি।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল


আরও
আরও পড়ুন