Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮, ৩০ রমজান ১৪৪২ হিজরী

সেমিফাইনালের পথে ইউনাইটেড

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১০ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০০ এএম

গ্রানাডার ফুটবল ইতিহাসে ‘বিগ ম্যাচ’ খেলার রেকর্ড কমই আছে। উয়েফা ইউরোপিয়ান লিগে বিখ্যাত ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে ম্যাচটি তাদের ইতিহাসে অন্যতম বড় ম্যাচ। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে নিজেদের মাঠ এস্তাদিও নুয়েভো লস কারামেসে ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখা হলো না। গতপরশু ম্যানইউ ২-০ গোলে গ্রানাডাকে হারিয়ে সেমিফাইনালের পথে এক ধাপ এগিয়ে গেলো। তবে আরেক ইংলিশ ক্লাব আর্সেনাল শেষ মুহূর্তে ১-১ গোলে ড্র করেছে স্লাভিয়া প্রাগের সঙ্গে। স্প্যানিশ ক্লাব ভিলারিয়ালও শেষ চার এর লড়াইয়ে আছে। তারা ১-০ গোলে হারিয়েছে ডায়নামো জাগরেভকে। রোমাও ২-১ গোলে আয়াক্সকে হারিয়ে সেমির পথে এক ধাপ এগিয়ে গেলো।

লা লিগায় এমনিতে নবম স্থানে আছে গ্রানাডা। মাত্র দুই মৌসুম আগেও তারা খেলতে দ্বিতীয় বিভাগে। এবার সুযোগ পেয়েই কোয়ার্টার ফাইনালে খেলছে। তবে নিজেদের মাঠে সাধ্যমতো চেষ্টা করেছে। কিন্তু ওলেগানার শুলসারের ম্যানইউ তাদের সেই সুযোগ সেভাবে দেয়নি। ৪-২-৩-১ ফরমেশনে শুরু থেকে বলের পজেশনে এগিয়ে থেকে গোল আদায় করে নিয়েছে পল পগবা-গিয়ারা।
ম্যাচের ২৭ মিনিটে ম্যানইউ গোল পেতে পারতো। রাশফোর্ডের শট ক্রস বারের বাইরে দিয়ে যায়। পরের মিনিটে গ্রানাডা আক্রমণে উঠেও গোল করতে পারেনি। কেনেডির শট ক্রসবারের অনেক ওপর দিয়ে যায়।
৩১ মিনিটে ম্যানইউ কাঙ্খিত গোলের দেখা পায় ২৩ বছর বয়সী ইংলিশ ফরোয়ার্ডের নৈপুণ্যে। লিন্ডেলফের লং পাস থেকে প্রতিপক্ষের সীমানায় ঢুকে রাশফোর্ড গোলকিপার রুই সিলভার ডান দিক দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন। এসময় একজন ডিফেন্ডার শরীরের সঙ্গে সেটে থাকলেও রাশফোর্ডকে লক্ষ্যচ্যুত করতে পারেননি। রাশফোর্ড প্রথম কোনও ইংলিশ খেলোয়াড় হিসেবে ম্যানইউর হয়ে ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় এক মৌসুমে ৮ গোল করলেন।
এক গোলে পিছিয়ে থেকে ৪-২-৩-১ ফর্মেশনে গ্রানাডা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে। শেষ ১০ মিনিট তো চেপে ধরেছিল ম্যানইউকে। ৪১ মিনিটে ইয়াংগেল হেরেরার ডান পায়ের জোরালো শট সাইড বারে লেগে ফিরে আসলে তাদের দুঃখ আরও বাড়ে।
৪৪ মিনিটে চেলসি থেকে ধারে আসা কেনেডির শট গোলকিপার ডেভিড গিয়ার হাতে জমা পড়ে। বিরতির পরও গ্রানাডা গোলের সুযোগ কম পায়নি। তবে ৫০ মিনিটে বক্সের বাইর থেকে কেনেডির শট সরাসরি গোলকিপারের হাতে জমা পড়ে। ৬৬ মিনিটে আবারও কেনেডির শট গোলকিপারের হাতে জমা পরে।
ম্যানইউ এই অর্ধে গোল ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিল। ৮৩ মিনিটে ফার্নান্দেজের শট গোলকিপারের শরীরে লেগে ফিরে এলে গোল পাওয়া হয়নি। ৮৩ মিনিটে ম্যানইউ সুযোগ নষ্ট করে। ফার্নান্দেজের শট গোলকিপার প্রতিহত করেন। ৮৯ মিনিটে ম্যানইউ ব্যবধান দ্বিগুণ করে। বক্সের মধ্যে ফাউল হলে পেনাল্টির বাঁশি বেজে উঠে। পেনাল্টি থেকে ব্রুনো ফার্নান্দেজের লক্ষ্যভেদ করতে কোনও ভুল হয়নি। শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলে জিতে মাঠ ছেড়েছে ইংল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী দলটি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সেমিফাইনাল-ইউনাইটেড
আরও পড়ুন