Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ২৮ বৈশাখ ১৪২৮, ২৮ রমজান ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

মহামারিকবলিত স্থান ত্যাগ ও সেখানে গমন সম্পর্কে ইসলামের দৃষ্টিকোণ

খালেদ সাইফুল্লাহ সিদ্দিকী | প্রকাশের সময় : ১১ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০১ এএম

ইসলাম ঘোষণা করেছে: ‘লি’কুল্লে দায়িন দাওয়াউন ইল্লাস সাম’ অর্থাৎ আল্লাহপাক প্রত্যেক রোগেরই ওষুধ সৃষ্টি করেছেন, মৃত্যু ব্যতীত। তাই অসুখ হলে চিকিৎসা করার ওপর ইসলাম বিশেষ গুরুত্বারোপ করেছে। খোদ রাসুলুল্লাহ (সা.) রোগ নিরাময়ে অসংখ্য দোয়া শিক্ষা দিয়েছেন এবং পাশাপাশি বিভিন্ন রোগের ওষুধ হিসেবে বহু বস্তুর উল্লেখ করেছেন। মহামারিকে আরবিতে ‘তাউন’ এবং ‘ওবা’ বলা হয়। মহামারি অর্থে হাদীসে দুটি শব্দই ব্যবহৃত হয়েছে। রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সময়ে ‘তাউন’ বা ‘ওবা’-এর ঘটনা ঘটে থাকা অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু ফারুকী খেলাফত আমলে ‘তাউনে আমওয়াসের বিখ্যাত ঘটনা ঘটেছিল। এ ঘটনা তাউন শব্দের কেবল ব্যাপক পরিচিতিই ঘটায়নি, এমনকি ধর্মীয় দিক থেকে দারুণ বিতর্কেরও সূত্রপাত করেছে।

হাদীস গ্রন্থসমূহের মধ্যে ইমাম আবু জাকারিয়া ইয়াহিয়া ইবনে শরফ নওভি দামেশকি (৬৩১-৬৭৬হি.) সংকলিত ‘রিয়াজুস সালেহীন’ প্রসিদ্ধ হাদীসগ্রন্থ। এতে তাউনে আমওয়াসের ঘটনাটি ১৭৮৯ নং হাদীসে ৩৪৯ নং অনুচ্ছেদ এইভাবে উল্লেখ করেছেন: হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন যে, হযরত উমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) সিরিয়ার উদ্দেশ্যে বের হন, যখন ‘সার্গ’ নামক স্থানে পৌঁছেন, (মদীনা হতে ১৩ মঞ্জিল দূরে সিরিয়া গমনের একটি মঞ্জিল) তখন তার সাথে সাক্ষাৎ করেন সেনাদলগুলোর নেতৃস্থানীয়গণ। তাদের মধ্যে হযরত আবু উবায়দা ইবনুল র্জারাহ (রা.) এবং তার সঙ্গীগণও ছিলেন, তারা জানান যে, সিরিয়ায় ‘ওবা’ মহামারী দেখা দিয়েছে। হযরত ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, আমাকে উমর (রা.) বললেন, আমার নিকট প্রাথমিক মোহাজেরদের ডেকে আনো। আমি তাদেরকে ডাকলাম এবং তিনি তাদের সাথে পরামর্শ করলেন এবং তারা জানালেন যে, সিরিয়ায় মহামারি দেখা দিয়েছে। এতে তাদের মধ্যে মতভেদ শুরু হয়ে যায়। তাদের মধ্যে কেউ কেউ বললেন, আপনি একটি কাজে বের হয়ে এসেছেন, আমরা মনে করি না, আপনি (যেখান থেকে এসেছেন) সেখানে ফিরে যাবেন। আবার কেউ কেউ বললেন, আপনার সাথে বাকি লোকেরা এবং রসুলুল্লাহ (সা.) এর সাহাবীগণও রয়েছেন, আমরা মনে করি না, এ মহামারিতে আমরা সামনে অগ্রসর হব। হযরত উমর (রা.) বললেন, তোমার আমার নিকট হতে উঠে চলে যাও। অতঃপর ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, হযরত উমর (রা.) বললেন, আমার কাছে আনসারগণকে ডেকে আনো। আমি তাদেরকে ডাকলাম। হযরত উমর তাদের সাথে পরামর্শ করলেন এবং তারা মোহাজেরদের পথ অনুসরণ করলেন (অর্থাৎ সামনে অগ্রসর হতে) এবং তাদের ন্যায় মতভেদ করলেন। হযরত উমর (রা.) বললেন, তোমরা আমার কাছ থেকে চলে যাও। অতঃপর ইবনে আব্বাস (রা.)-কে বললেন, মক্কা বিজয়ের সময় মোহাজের কোরেশদের প্রবীণগণ এখানে উপস্থিত আছেন, তাদেরকে আসতে বলো, আমি তাদের ডাকলাম। তাদের কেউ মতভেদ করলেন না। দুইজন বললেন: আমরা মনে করি, সকল লোকসহ আমরা ফিরে যাব এবং এ মহামারির দিকে তাদেরকে ঠেলে দেব না । অতঃপর হযরত উমর (রা.) লোকদের মধ্যে ঘোষণা করলেন: ‘ভোরে আমি প্রত্যাবর্তন করব, তোমরাও তাই করবে’।

উল্লেখিত তিনটি দলের সাথে পরামর্শ করার পর হযরত উমর (রা.) তৃতীয় দলের পরামর্শ অনুযায়ী অগ্রসর না হয়ে সেখান থেকে ফেরত যাওয়ার কথা ঘোষণা করেন। এসময় সেনাপতি আবু উবায়দা (রা.) বলে উঠেন, এটি কি আল্লাহর কুদরত হতে পলায়ন নয়? হযরত উমর (রা.) বললেন: ‘হ্যাঁ আমরা আল্লাহর কুদরত হতে আল্লাহর কুদরতের দিকে পলায়ন করছি’।

উভয়ের মধ্যে এরূপ কথা কাটাকাটির পর হযরত আব্দুর রহমান ইবনে আওফ (রা.) সেখানে আগমন করেন। তিনি বললেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন: তোমরা যখন কোনো ভূ-খন্ডে মহামারির দেখা দেয়ার কথা শুনবে সেদিকে অগ্রসর হবে না। আর যখন কোনো ভূ-খন্ডে তা দেখা দেবে এবং তোমরা সেখানে অবস্থান করবে, তখন সেখান থেকে বের হয়ে পলায়ন করবে না। একথা শুনে হযরত উমর (রা.) আল্লাহর প্রশংসা করলেন। অতঃপর তিনি প্রত্যাবর্তন করেন। (বোখারী ও মুসলিম)।

হজরত ওসামা ইবনে জাইদ (রা.) রসুলুল্লাহ (সা.) হতে বর্ণনা করেন, তিনি বলেছেন: তোমরা যখন শুনবে কোনো ভূ-খন্ডে ‘তাউন’ (মহামারি) দেখা দিয়েছে, তখন সেখানে তোমরা প্রবেশ করবে না। আর যখন কোনো ভূ-খন্ডে মহামারি দেখা দিবে এবং তোমরা সেখানে অবস্থান করবে, তখন সেখান থেকে বের হবে না। (সূত্র ঐ )

‘মহামারি কবলিত শহর হতে বের হয়ে পলায়ন করা এবং ঐ শহরে প্রবেশ করা মাকরূহ’ শিরোনামে বর্ণিত দুইটি হাদীসের সারমর্ম এই যে, মহামারি কবলিত স্থানে গমন করা যেমন উচিত নয়, তেমনি সেই উপদ্রুত এলাকা হতে সরে যাওয়াটাও অনুচিত। হাদীসদ্বয়ের এ স্পষ্টভাষ্য এবং হাদীস অনুযায়ী, হযরত উমর (রা.)-এর আমলে প্রমাণ করে যে, এ সংক্রামক মহামারি তথা ছোঁয়াচে রোগ হতে আত্মরক্ষার প্রধান উপায় যে যেখানে থাকে সেখানে অবস্থান করা, যাতে এর সংক্রামণ ছড়াতে না পারে।



 

Show all comments
  • Jasim Sabbir ১১ এপ্রিল, ২০২১, ১:১১ এএম says : 0
    আল্লাহ্ সবাইকে বুজার তৌফিক দান করুন ( আমিন )
    Total Reply(0) Reply
  • Rubel Khan ১১ এপ্রিল, ২০২১, ১:১২ এএম says : 0
    রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘যখন কোনো জাতির মধ্যে প্রকাশ্যে অশ্লীলতা ছড়িয়ে পড়ে তখন সেখানে মহামারি আকারে প্লেগ রোগের প্রাদুর্ভাব হয়। তা ছাড়া এমন সব ব্যাধির উদ্ভব হয়, যা পূর্বেকার লোকদের মধ্যে কখনো দেখা যায়নি।’ (ইবনে মাহাজ)
    Total Reply(0) Reply
  • MD Mahade Hassan ১১ এপ্রিল, ২০২১, ১:১২ এএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • Jia Uddin ১১ এপ্রিল, ২০২১, ১:১২ এএম says : 0
    মহামারি মূলত আল্লাহর গজব। মহামারি প্রসঙ্গে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন- ‘এটি আল্লাহর গজব বা শাস্তি, যা (এ রকম শাস্তি) বনি ইসরাঈলের এক গোষ্ঠীর ওপর এসেছিল, তার বাকি অংশই হচ্ছে মহামারি। অতএব, কোথাও মহামারি দেখা দিলে এবং সেখানে তোমরা অবস্থানরত থাকলে সে জায়গা থেকে চলে এসো না। অন্যদিকে কোনো এলাকায় এটা দেখা দিলে এবং সেখানে তোমরা অবস্থান না করলে সে জায়গায় যেয়ো না।’ (তিরমিজি)
    Total Reply(0) Reply
  • Raju Sharkar ১১ এপ্রিল, ২০২১, ১:১৩ এএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ নিশ্চয়ই আল্লাহ মহান ও পরম দয়ালু
    Total Reply(0) Reply
  • fastboy ১১ এপ্রিল, ২০২১, ৯:২৮ এএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইসলাম


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ