Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০১ জৈষ্ঠ্য ১৪২৮, ০২ শাওয়াল ১৪৪২ হিজরী

ক্লাসিকো জিতে শিরোপা স্বপ্নে রিয়াল

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০১ এএম

এল ক্লাসিকোর মাঝে দ্বৈরথটা জমিয়ে তুললেন করিম বেনজেমা। গোলও পেলেন। তার দলও জিতল। কিন্তু মাঠে থেকেও দ্বৈরথে জ্বলে উঠতে পারলেন না লিওনেল মেসি। গোলের দেখাও পেলেন না। আর্জেন্টাইন সুপারস্টার দলকেও জেতাতে পারলেন না। তাই তো চিরশত্রæ রিয়াল মাদ্রিদের ঘরে বার্সেলোনা হার মানে ২-১ ব্যবধানে।

মহাগুরুত্বপূর্ণ এ জয় দিয়ে লা লিগার শিরোপা লড়াইয়ে পরিষ্কার এগিয়ে গেল রিয়াল মাদ্রিদ। নগর প্রতিদ্ব›দ্বী অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ আর চির প্রতিদ্ব›দ্বী বার্সেলোনাকে টপকে দখলে নিল পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থান। তবে রাতে রিয়াল বেতিসের বিপক্ষে ম্যাচে জয় অথবা ড্র পেলেও শীর্ষস্থান পুণরুদ্ধার করবে লুইস সুয়ারেজের দল।

শ্বাসরুদ্ধকর এল ক্লাসিকো জয়ে রিয়ালের সংগ্রহ এখন ৬৬ পয়েন্ট। দ্বিতীয় স্থানে নেমে যাওয়া অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের পুঁজিও রিয়ালের সমান। কিন্তু মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকায় সবার ওপরের জায়গাটা ছিনিয়ে নিল কোচ জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা। ফলে লিগ শিরোপা জয়ের সম্ভাবনাও আরও জোড়াল করল রিয়াল। তবে স্বস্তিতে থাকতে পারবে না দু’দলের কেউ। কেননা বার্সা যে তাদের চেয়ে মাত্র এক পয়েন্টে পিছিয়ে।

ম্যাচের ১৩ মিনিটেই পোস্টের খুব কাছ থেকে ফ্লিক করে লিড এনে দেন করিম বেনজেমা। ফরাসি এ ফরোয়ার্ড গোলমুখ খোলার পরও আধিপত্য ধরে রাখে রিয়াল। প্রথমার্ধেই গোল ব্যবধান দ্বিগুণ করে তারা। ১৫ মিনিট বাদেই গতিপথ পাল্টে যাওয়া টনি ক্রুসের ফ্রি-কিক আশ্রয় নেয় কাতালানদের জালে। বল দখলে এগিয়ে থাকা বার্সা এবার পিছিয়ে যায় অনেকটা। ফুটবল ময়দানের লড়াইটা যেন অনেকটা একতরফা হয়ে পড়েছিল।

দ্বিতীয়ার্ধের ১৫ মিনিট কাটতেই গোলরক্ষক থিবো কোর্তোয়ার চোখ ফাঁকি দিয়ে জর্দি আলবার ক্রস জালে পাঠিয়ে দেন অসকার মিনগুয়েজা। লড়াইটা যেন এবার ফিরে পায় মহারণের আমেজ। তবে বার্সা এক গোল শোধ করতেই ফের ভয় ছড়িয়ে দিতে থাকে রিয়াল। চালিয়ে যায় আরও এগিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা। ভিনিসিয়ুস জুনিয়রকে পোস্ট হতাশ না করলে আলফ্রেডো ডি স্তেফানো স্টেডিয়ামে দুই গোলের লিডটা ফিরেই পেত আয়োজকরা।

প্রথমার্ধে গোলের সুযোগ ছিল ফুটবল জাদুকর মেসিরও। কিন্তু গোলপোস্ট সুযোগটা তাকে কাজে লাগাতে দেয়নি। ফারল্যান্ড মেন্ডির চ্যালেঞ্জে মার্টিন ব্রাথওয়েট মাঠে পড়ে গেলে পেনাল্টির আবেদন করে অতিথিরা। কিন্তু বার্সার আপিলটা নাকচ হয়ে যায়। ম্যাচের শেষ মিনিটে মিনগুয়েজাকে বাজেভাবে ট্যাকল করে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড মানে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন ক্যাসেমিরো। ইনজুরি টাইমে ম্যাচ ড্রয়ের সুযোগও পেয়েছিল বার্সা। কিন্তু মরিবা লুজ বল পেয়েও ব্যর্থ হন।

চলতি মৌসুমে ন্যু ক্যাম্পে আগের এল ক্লাসিকোতেও জয় ছিনিয়ে নিয়েছিল রিয়াল। এনিয়ে ১৯৭৮ সালের পর এই প্রথম এল ক্লাসিকো জয়ে হ্যাটট্রিক করল বেনজেমারা। এ ম্যাচে একটি রেকর্ডও ছুঁয়েছেন মেসি। রিয়াল ক্যাপ্টেন সার্জিও রামোসের সর্বোচ্চ ৪৫ এল ক্লাসিকো খেলার রেকর্ডে ভাগ বসালেন রেকর্ড ষষ্ঠ ব্যালন ডি’অর জয়ী এ আর্জেন্টাইন মেগাস্টার।
শিরোপা পুনরুদ্ধারের অভিযানে ধাক্কা খেয়ে তিনে নেমে যাওয়ার পর ক্লাবটির কোচ রোনাল্ড কোমান প্রশ্ন তোলেন রেফারিং নিয়ে, ‘কিন্তু আমি অবশ্যই মনে করি, আমাদের পেনাল্টি পাওয়া উচিত ছিল। কেন ভিএআর ব্যবহার করা হয়নি তা আমি জানি না। সেখানে লাইন্সম্যান ছিল। তার উচিত ছিল (রেফারিকে) সাহায্য করা। সম্ভবত বাকি সবাই-ই মনে করছে এটা পেনাল্টি ছিল।’

এসব নিয়ে অবশ্য মাথা ঘামাতে রাজী নন রিয়াল কোচ জিনেদিন জিদান, ‘বরাবরের মতো ব্যাখ্যা করার বিষয়টি সবার জন্য উন্মুক্ত। এটা পেনাল্টি ছিল কিনা তা নিয়ে প্রত্যেকে নিজস্ব মতামত দিতে পারেন। তবে আমরা শুধু রেফারিদের নিয়েই কথা বলতে পারি না। আমরা নিজেদের মতো করে একটি ম্যাচ খেলেছি এবং জয়টা আমাদের জন্য জরুরি ছিল।’

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল


আরও
আরও পড়ুন