Inqilab Logo

বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ০২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৮ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

পুন:তফসীল ঘোষণার দাবি, বায়রা নির্বাচনে ভোটার তালিকা নিয়ে ভয়াবহ দুর্নীতি

সংবাদ সম্মেলনে সম্মিলিত গণতান্ত্রিক জোট

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ এপ্রিল, ২০২১, ২:৪৪ পিএম

জনশক্তি রফতানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সির (বায়রা) আসন্ন নির্বাচনের (২০২১-২০২৩) চূড়ান্ত ভোটার তালিকা নিয়ে ভয়াবহ দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বায়রার সচিব মো.মাকসুদুর রহমানের নেতৃত্বে বায়রা নির্বাচনী আপীল বোর্ড একটি পক্ষকে ক্ষমতায় আনার জন্য ভোটার তালিকা নিয়ে তুঘলকি কা- ঘটিয়েছে। নির্বাচন বোর্ড অগণতান্ত্রিকভাবে খসড়া ভোটার তালিকার সম্মিলিত গণতান্ত্রিক জোটের প্যানেল প্রধান ও বায়রার সাবেক মহাসচিব মোহাম্মদ রুহুল আমিন স্বপনসহ ২৮ শীর্ষ পর্যায়ের বায়রা সদস্যের নাম চূড়ান্ত ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। কোন কারণ দর্শানোর নোটিশ ব্যতিরেকে এবং কোনরূপ আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে ২৮ জন শীর্ষ পর্যায়ের সদস্যের নাম ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। একটি পক্ষকে বায়রার ক্ষমতা দখলে সহায়তা করার জন্যই এসব অপকর্ম করা হয়েছে। বায়রা নির্বাচন বোর্ডের এসব দুষ্টচক্রকে কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। নির্বাচন বোর্ডের বিতর্কিত এ গোষ্ঠী বিধি বর্হিভূতভাবে ৬৫ জন সদস্যকে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করেছে। উল্লেখিত ৬৫ রিক্রুটিং এজেন্সির কাছে ৬ কোটি ৩ লাখ ৮ হাজার টাকা বকেয়া চাঁদা আদায় না করেই তাদেরকে বায়রার ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। এদের কেউ কেউ রিক্রুটিং লাইসেন্স নবায়ন পর্যন্ত করেনি। এসব ভোটার তালিকা বাতিল করতে হবে। ত্রুটিমুক্ত ভোটার তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে বায়রা নির্বাচনে পুন:তফসীল ঘোষণা করতে হবে। ভোটার তালিকা প্রণয়নে দুর্নীতি ও অনিয়মের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। আজ সোমবার সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে বায়রা সম্মিলিত গণতান্ত্রিক জোট আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জোটের প্যানেল প্রধান ও সাবেক মহাসচিব মোহাম্মদ রুহুল আমিন স্বপন এসব কথা বলেন।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বায়রার সাবেক শীর্ষ নেতা শফিকুল আলম ফিরোজ, হাবের সাবেক সভাপতি আলহাজ আব্দুস সোবহান ভূঁইয়া, আটাবের সভাপতি মনছুর আহমদ কালাম, ফোরাব সভাপতি আব্দুল আলিম, বায়রার সাবেক শীর্ষ নেতা নূরুল আমিন, কে এম মোবারক উল্লাহ শিমুল, আটাবের সাবেক মহাসচিব আসলাম খান,বায়রার সাবেক শীর্ষ নেতা আলহাজ আবুল বাসার, অ্যাডভোকেট সাজ্জাদ হোসেন, এস এম নাজমূল হক, আল মদিনা ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সির স্বত্বাধিকারী মোসাম্মৎ ফাতেমা খাতুন, আশরাফ আলী সরদার ও জয়নাল আবেদীন জাফার।

 



 

Show all comments
  • Md. Abu Taleb ১২ এপ্রিল, ২০২১, ৪:৪৭ পিএম says : 0
    ভাই, দেখুন নির্বাচনের সিডিউল স্থগিত চেয়ে সংবাদসম্মেলনকারীরা একাধিক রীট পিটিশন করেছেন যাহার মধ্যে একটির নং ৪১৮৭/২০২১। উক্ত নির্বাচন স্থগিত চাইলেও তারা তা হাইকোর্ট হতে পাননি। আর নির্বাচনী আপীল বোর্ড উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে শুনানী করে রায় দিয়েছেন যে সিডিউলের শর্তমোতাবেক উনারা খেলাপী অর্থাৎ তাদের কাছে বায়রা অনেক পরিমান চাদা পাওনা আছে যেটা ৩০ তম বার্ষিক সাধারন সভায় বিগত ২৮।১০।২০১৭ তারিখে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। ঐ সময়ে বায়রার মহাসচিব ছিলেন জনাব রুহুল আমিন স্বপন। তিনি নিজে মালয়েশিয়ায় কর্মী প্রেরন করেছেন এতসংখ্যক তত ১০০০ টাকা তিনি বায়রাকে পরিশোধ করবেন এই সিদ্ধান্ত তিনিই নিয়েছেন। এখন ঐ বকেয়া না দেওয়ায় তার নামসহ এরকম বকেয়া সদস্যদের নাম ভোটার তালিকায় আসেনি। একতরফা বললে হয়না। অন্যপক্ষের বক্তব্যও নিতে হয়। তারা কি মিডিয়ায় এটি বলেননি যে, চাদা বকেয়ার জন্য তাদের নাম বাদ গেছে বানিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞ অফিসারদের দ্বারা আপীলবোর্ড গঠিত হয়েছিল। তারা সব কাগজপত্র দেখে ও আপীলকারীদের ও সংশ্লিষ্ট বিপক্ষকে শুনে রায় দিয়েছেন। এখানে আমি আপীলকারীর আইনজীবী হিসেবে উপস্থিত ছিলাম। ছিলেন স্বপন সাহেবও। তারা আমাকে বক্তব্য রাখতেও বাধা দিয়েছেন। অথচ এখন না শুনানি করে ও নোটিশ না দেওয়ার কথা বলছেন। বাংলাদেশে এমন কোন সংগঠন কি আছে যেখানের আইন ও বিধি অনুযায়ী চাদা পরিশোধ না করে কেউ ভোটার ও নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন? তারা নির্বাচিত হয়ে কি করবেন-আবার সিন্ডিকেট করে ব্যবসায় ও বানিজ্য করবেন আর সংগঠনের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিবেন। সুতরাং আমার তথ্যগুলো যাচাই করে হাইকোর্টে চাওয়ার পরেও যা পাননি তার জন্য সংবাদ সম্মেলন করে এই বার্তাই কি তারা দিতে চান যে তারা হাইকোর্টের উর্দ্বে? আমার লেখাটাও অন-লাইনের নিউজ আপডেট আকারে আসুক।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ