Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০১ জৈষ্ঠ্য ১৪২৮, ০২ শাওয়াল ১৪৪২ হিজরী

বৃষ্টির জন্য ইসতিসকার নামাজ

উবায়দুর রহমান খান নদভী | প্রকাশের সময় : ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১২:০৬ এএম, ১৮ এপ্রিল, ২০২১

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেছেন, যিনি তোমাদের জন্য পৃথিবীকে বিছানা ও আকাশকে ছাদ করেছেন এবং আকাশ হতে পানি বর্ষণ করে তদ্বারা তোমাদের জীবিকার জন্য ফলমূল উৎপাদন করেন। (সূরা বাকারাহ : আয়াত ২২)।

অন্য আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘তিনি তোমাদের জন্য আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করেছেন। এই পানি থেকে তোমরা পান করো এবং এ থেকেই উদ্ভিদ উৎপন্ন হয়, যাতে তোমরা পশুচারণ করো। এ পানি দ্বারা তোমাদের জন্য উৎপাদন করেন ফসল, যয়তুন, খেজুর, আঙ্গুর ও সর্বপ্রকার ফল। নিশ্চয় এতে চিন্তাশীলদের জন্যে নিদর্শন রয়েছে।’ (সূরা নাহল : আয়াত ১০-১১)।

উপর থেকে বৃষ্টি বর্ষিত না হলে সারা পৃথিবী তামা হয়ে যাবে। মাটি পাথরের মতো শক্ত নিষ্প্রাণ হয়ে উর্বরতা হারাবে। পশু, পাখি, কীট, পতঙ্গ তথা স্থলভাগের সকল প্রাণী জীবন হারাবে। তাই যখন অনাবৃষ্টি দেখা দেয় তখন একে গজব হিসাবে বিবেচনা করা হয়। নবী করিম (সা.) বলেছেন, আল্লাহ বলেন, যদি অবলা প্রাণী ও গৃহপালিত পশুরা না থাকত তাহলে মানুষের নাফরমানির ফলে আজাব স্বরূপ আমি চিরতরে বৃষ্টি বন্ধ করে দিতাম। (আল হাদীস)।

অতি বৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, শিলাবৃষ্টি, অকাল বর্ষণ, পার্বত্য বন্যা, আগুনে বাতাস, কাল বৈশাখি ইত্যাদি আমাদের বোরো ও আমন ধান নষ্ট করে। আগুনে বাতাসে পাকা ধানের গাছ পুড়ে যায়, পরিপুষ্ট ধান চিটা হয়ে যায়। একফসলি জমির কৃষকের জন্য এর চেয়ে বড় আজাব আর কী হতে পারে?

এমন খরা, দাবদাহ, অনাবৃষ্টির সময় আল্লাহর কাছে তওবা ইস্তেগফার করা এবং শাসক ও জনগণ একসাথে খোলামাঠে গিয়ে সুন্নাত অনুযায়ী দুই রাকাত বৃষ্টি প্রার্থনার নামাজ জামাতে আদায় করলে আল্লাহর রহমতের বৃষ্টি বর্ষণ শুরু হয়ে থাকে। এ নামাজকে বলা হয় ইসতিসকার নামাজ। সমাজের বড় ছোট নেক নাফরমান নির্বিশেষে সব মানুষ নিজ নিজ গোনাহ থেকে ক্ষমাপ্রার্থনার আশায় ইসতিসকার নামাজ পড়ার সুফল যুগে যুগে পেয়ে গেছে। এখন খরার সময় বৃষ্টির জন্য পবিত্র মক্কা মদিনার প্রধান দুই মসজিদে ইসতিসকার নামাজ পড়া হয়। সাথে সাথে বর্ষণও হতে দেখা যায়।

এই নামাজে রাষ্ট্রপ্রধান, শাসক বা তার প্রতিনিধি থাকলে দোয়া আরো দ্রæত কবুল হওয়ার নজির রয়েছে। ইসতিসকার নামাজ পড়ার সময় আল্লাহর নবী (সা.) নিজের পরনের চাদরের এক মাথা উল্টে অন্য মাথায় নিয়ে গিয়ে গোটা চাদরটিই আড়াআড়ি উল্টে গায়ে দেন। এটি আবহাওয়ার চলমান অবস্থাটি একশভাগ পাল্টে দিয়ে, আল্লাহ যেন বৃষ্টি দান করেন, তারই বাহ্যিক নমুনা এবং কার্যত প্রার্থনা। একবার নামাজ শেষে মানুষকে বৃষ্টিতে ভিজতে ভিজতে ঘরে ফিরতে হয়।

দেশ বা অঞ্চলের বিশিষ্ট মুত্তাকি পরহেযগার আলেমকে দিয়ে এ নামাজ পড়ানো এবং কেন্দ্রীয় বা স্থানীয় প্রশাসক এ জামাতে শরিক থাকা বিধেয়। বিশেষ করে নাফরমান বান্দাদের বিনম্র উপস্থিতিও বৃষ্টি প্রার্থনার ফলাফল উত্তম হয়ে থাকে। নিজেদের পশু পাখি ও ছোট্ট শিশুদেরও বৃষ্টি প্রার্থনার নামাজের সময় মাঠে নিয়ে যাওয়ার বিধান রয়েছে। যেন আল্লাহ যার ওপরই হোক দয়া করে বৃষ্টি দান করতে পারেন। পাপী বান্দাদের ক্ষমা প্রার্থনায় আল্লাহ দ্রæত খুশি হয়ে গজব তুলে নেন। নেক বান্দাদের ওপর দয়া করেও তিনি রহমতের বৃষ্টি বর্ষণ করে থাকেন।

দাবদাহ, খরা, দুর্ভিক্ষ ও অনাবৃষ্টির সময় উলামায়ে কেরাম, জনসাধারণ ও সমাজপতিদের কর্তব্য মহানবী (সা.) এর এই সুন্নাতকে জিন্দা করা। সবাইকে আহ্বান করে, জায়গায় জায়গায় ইসতিসকার নামাজ আদায় করা। আল্লাহর রহমত ক্ষমা ও করুণা লাভে এই সুন্নাত খুবই পরীক্ষিত ও কার্যকর।



 

Show all comments
  • মুক্তিকামী জনতা ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ১:৪২ এএম says : 0
    আমাদের এই আমলটা করা দরকার।
    Total Reply(0) Reply
  • রুবি আক্তার ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ১:৪২ এএম says : 0
    সময় উপযোগী প্রতিবেদনম ধন্যবাদ ইনকিলাব।
    Total Reply(0) Reply
  • তানিম আশরাফ ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ১:৪৩ এএম says : 0
    আমি একবার এই নামাজ আদায় করেছি।
    Total Reply(0) Reply
  • বদরুল সজিব ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ১:৪৩ এএম says : 0
    হে আল্লাহ তুমি বৃষ্টি দান করো, খুবই কষ্ট লাগে।
    Total Reply(0) Reply
  • ।।শওকত+আকবর।। ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ৪:১৩ এএম says : 0
    বৃষ্টির জন্য নামাজ আছে।করোনার জন্য এ রকম আমল করা যায়না।
    Total Reply(0) Reply
  • fastboy ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ৯:১১ এএম says : 0
    A LOTS OF THANKS INQUILAB সময় উপযোগী প্রতিবেদন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইসলাম


আরও
আরও পড়ুন