Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

মাদারীপুরে ছেলেকে হত্যার পর পিতার আত্মহত্যার চেষ্টা

স্ত্রীর পরকীয়ার জের

স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুর থেকে : | প্রকাশের সময় : ২৭ এপ্রিল, ২০২১, ১২:০০ এএম

মাদারীপুরের কালকিনিতে স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে ছেলে রনিকে গলা কেটে হত্যার পর পিতা তোফাজ্জেল হোসেন নিজেও বিষপান করে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে। অসুস্থ অবস্থায় তোফাজ্জেল হোসেনকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত রোববার রাত ১১টার দিকে উপজেলার গোপালপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রনি স্থানীয় খৈয়ারভাঙ্গা এতিমখানা মাদরাসায় থেকে লেখাপড়া করতো।

পারিবারিক ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি কালকিনির গোপালপুরের তোফাজ্জেল হোসেনের স্ত্রী মিনারা বেগম একই এলাকার চা বিক্রেতা আব্দুর রশিদের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। দেড় মাস আগে মিনারা বেগম রশিদের সঙ্গে পালিয়ে যান। এ নিয়ে তোফাজ্জেল মানসিক যন্ত্রণায় ভুগছিলেন। লোকলজ্জার ভয়ে ছেলে ও নিজেকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেয়ার পরিকল্পনা করেন তোফাজ্জেল। সেই অনুযায়ী গত রোববার রাত ১১টার দিকে তোফাজ্জেল ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছেলে রনিকে গলাকেটে হত্যার পর নিজে বিষপান করেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে রনির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পাশাপাশি তোফাজ্জেলকে উদ্ধারের পর হাসপাতালে ভর্তি করে।
রনির মামা আনোয়ার হোসেন বলেন, মিনারা পরকীয়ার কারণে চা বিক্রেতা রশিদের সঙ্গে ঢাকায় চলে গেছে। পরে তোফাজ্জেল কষ্টে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সাইফুল ইসলাম জানান, ভর্তির পর থেকেই তোফাজ্জেলের অবস্থা গুরুতর। তবে সকাল ১০টা থেকে তার অবস্থা কিছুটা উন্নতি হয়েছে।
কালকিনি থানার ওসি ইশতিয়াক আসফাক রাসেল জানান, ঘটনাটি শোনার পরে লাশ ও অসুস্থ তোফাজ্জেলকে আমরা উদ্ধার করি। তোফাজ্জেল এখন হাসপাতালে ভর্তি আছে। সুস্থ হওয়ার পর তার কাছ থেকে ঘটনার বিবরণ শুনে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে স্ত্রীর পরকীয়ার কারণে মানসিক যন্ত্রণায় তিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পিতার আত্মহত্যার চেষ্টা
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ