Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৯ আষাঢ় ১৪২৮, ১১ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

খুনের মামলা হতে পারে নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে: মাদ্রাজ হাইকোর্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ এপ্রিল, ২০২১, ৪:০০ পিএম

ভারতে করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতেও ভোট পরিচালনা ও রাজনৈতিক সভার অনুমোদন দেয়ায় নির্বাচন কমিশনকে তীব্র ভর্ৎসনা করেছে মাদ্রাজ হাইকোর্ট। প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও সেন্থিকুমার রামমূর্তির বেঞ্চ জানান, কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য একমাত্র দায়ী নির্বাচন কমিশন। শুধু তাই নয় নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে খুনের ধারায় মামলা করা উচিত বলেও মনে করেন প্রধান বিচারপতি।

মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও সেন্থিকুমার রামমূর্তির বেঞ্চের পর্যবেক্ষণ, ‘আজকের পরিস্থিতির জন্য দায়ী নির্বাচন কমিশন। আপনাদের আচরণে দায়িত্ববোধে অভাব ছিল। কোভিড বিধি মেনে চলার নির্দেশ দিচ্ছে আদালত। অথচ রাজনৈতিক রাজনৈতিক দলগুলি বিধিভঙ্গ করলেও কোনও ব্যবস্থায় নেননি।’ প্রধান বিচারপতি কড়া ভাষায় বলেন, ‘আপনাদের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে খুনের ধারায় মামলা করা উচিত।’

আগামী ২ মে ভোটগণনাও বন্ধ করে দেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে মাদ্রাজ হাইকোর্ট। বেঞ্চ জানিয়েছে, ‘২ মে’র মধ্যে কোভিডবিধি মেনে গণনার নীলনকশা দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। নচেৎ ভোটগণনাই স্থগিত করে দেয়া হবে। কোনওভাবেই ভোটগণনাকে কোভিড সংক্রমণ বৃদ্ধির অনুঘটক হতে দেব না। জনস্বাস্থ্যই অগ্রাধিকার। হতাশাজনক, এটা সাংবিধানিক সংস্থাগুলিকে মনে করিয়ে দিতে হচ্ছে।’

প্রসঙ্গত, আগামী ২ মে তামিলনাড়ুর কারুর কেন্দ্রেও ভোটগণনা। কিন্তু ভোটগ্রহণ চলাকালীন যে বিশৃঙ্খলার ছবি সামনে এসেছে, ভোটগণনার সময় যাতে তেমন পরিস্থিতি দেখা না দেয়, তার জন্য কোভিড বিধি মেনে গণনার ব্যবস্থা করার আবেদন জানিয়ে আদালেত জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়েছিল। সোমবার সেই মামলারই শুনানি হয় মাদ্রাজ হাইকোর্টে। ভোটগণনা কেন্দ্রে কোভিডবিধি অনুযায়ী কী কী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যে তার নীলনকশা জমা দিতে বলা হয়েছে কমিশনকে। তাতে যদি আদালত সন্তুষ্ট হয়, তবেই ২ মে গণনা করতে দেয়া হবে বলে জানিয়েছে আদালত। সূত্র: টিওআই।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মাদ্রাজ হাইকোর্ট
আরও পড়ুন