Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০৩ জৈষ্ঠ্য ১৪২৮, ০৪ শাওয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

চাকরিপ্রার্থীদের বয়সে ছাড়

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষিত বেকার প্রতি ৬ মাসে সরকারিসহ সব ধরনের চাকরিতে ২৮ লাখ প্রার্থী আবেদন করে। ক্ষতিগ্রস্তদের ‘ক্ষতি সময়’ পুষিয়ে দিতে চেষ্টা করা হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ মে, ২০২১, ১২:০১ এএম

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে সবচেয়ে বেশি আতঙ্কে রয়েছেন লাখ লাখ চাকরিপ্রার্থী। প্রায় ১৪ মাস থেকে কখনো লকডাউন কখনো সরকারি অফিস বন্ধ থাকায় বিভিন্ন সেক্টরের সরকারি চাকরির বয়স পার হয়ে যাচ্ছে। অথচ ৩০ বছর বয়স পার হয়ে গেছে সে আর চাকরিতে আবেদন করতে পারেন না। ফলে যাদের চাকরিতে আবেদনের বয়স চলে যাচ্ছে তাদের মধ্যে হতাশা বেড়ে গেছে। তবে আশার কথা শোনা যাচ্ছে। তা হলো করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে লকডাউনের (বিধিনিষেধ) কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সরকারি চাকরিপ্রার্থীরা বয়সে ছাড় পাচ্ছেন। চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে কারো নির্ধারিত বয়স পেরিয়ে গেলে ক্ষতিগ্রস্তদের বয়স শিথিলের জন্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে আবারো নির্দেশনা দেবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

জানা গেছে, বর্তমানে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩০ বছর, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ক্ষেত্রে তা ৩২ বছর। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরিতে সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) মাধ্যমে নিয়োগ দেয়া হয়। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পদগুলোতে নিয়োগের দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট সরকারি দফতরের।
জানতে চাইলে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, বিধিনিষেধের কারণে যে চাকরিপ্রার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাদের ক্ষতি পুষিয়ে দিতে চেষ্টা করা হবে। যে টাইমটা লস হয়েছে আমরা মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে বলে দেব, বয়সে ছাড় দিয়ে সেই সময়টা যাতে পুষিয়ে দেয়া হয়। যখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে আমরা আবারো সবাইকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়ে দেব।

করোনা মাহামারির প্রথম দফায় সাধারণ ছুটির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত চাকরিপ্রার্থীদের বয়সের ক্ষেত্রে ছাড় দেয় সরকার। তখন গত ২৫ মার্চ যাদের বয়স ৩০ বছর পূর্ণ হয়েছিল তাদের পরবর্তী ৫ মাস, অর্থাৎ আগস্ট পর্যন্ত সরকারি চাকরিতে আবেদনের সুযোগ দেয়া হয়। কিন্তু গত এপ্রিল থেকে ফের লকডাউন চলছে। মন্ত্রণালয়, বিভাগ কিংবা সংস্থাগুলো চাকরির জন্য বিজ্ঞপ্তি দিতে পারছে না।

এদিকে, করোনা মহামারি বেকারত্ব আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। কয়েক লাখ চাকরিপ্রার্থীর ন্যূনতম বয়স লকডাউনের মধ্যে চলে গেছে বলে জানিয়েছে চাকরিপ্রার্থীদের বয়স বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলনরত সংগঠনগুলো।
বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র কল্যাণ পরিষদের প্রধান সমন্বয়ক মোজাম্মেল মিয়াজী বলেন, করোনার মধ্যে এক বছরের বেশি সময় পার হয়ে গেছে সরকারি চাকরিতে আবেদন করা যাচ্ছে না। কারণ নিয়োগ বন্ধ রয়েছে। আমি মনে করি করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীদের চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে বয়স কমপক্ষে দুই বছর শিথিল করা উচিত সরকারের। তিনি আরো বলেন, আমরা করোনার আগে একটি জরিপে দেখেছি, প্রতি ছয় মাসে সরকারিসহ সব ধরনের চাকরিতে ২৮ লাখ প্রার্থী আবেদন করে থাকে। করোনার কারণে বেকারত্ব বেড়ে গিয়ে সেই সংখ্যা আরো বেড়েছে। আমরা মনে করি এখন চাকরিপ্রার্থীর সংখ্যা কমপক্ষে ৩০ লাখ। এর মধ্যে কমপক্ষে ৫ লাখের চাকরির বয়স করোনার মধ্যে পেরিয়ে গেছে।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাস সংক্রমণের কথা জানায় সরকার। পরিস্থিতি অবনতির দিকে যেতে থাকলে ওই বছরের ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এরপর দফায় দফায় ছুটি বাড়তে থাকে। ওই বছরের ৩০ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ছিল। পরে ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে অফিস খুলে দেয়া হয়, চালু করা হয় গণপরিবহন। পরে এই ব্যবস্থা তিন দফায় ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়।
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ফের উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় গত ৫ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ দেয় সরকার। তবে গণপরিবহন, মার্কেট খোলা রেখে এই নিষেধাজ্ঞা ছিল অনেকটাই অকার্যকর।

পরে গত ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ৮ দিনের ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ শুরু হয়। লকডাউনের মধ্যে পালনের জন্য ১৩টি নির্দেশনা দেয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে। পরে সাত দিন করে দু-দফা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। সেই মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ছিল ৫ মে মধ্যরাতে। এদিকে, সোমবার মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছেন, লকডাউনের মেয়াদ আগামী ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হচ্ছে।
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকতাসহ বিভিন্ন সরকারি ও ব্যাংকে চাকরির আবেদন করেছেন এমন কয়েকজন চাকরিপ্রার্থী বেকার বলেন, করোনার কারণে এক বছর কোনো নিয়োগ নেই। দুই একটি পরীক্ষা নেয়া হলেও অনেক নিয়োগ পরীক্ষা স্থাগিত করা হয়েছে। অথচ চাকরিতে আবেদনের বয়স ৩০ বছর নির্ধারিত। আবেদন করার বয়স শেষ হয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থায় সরকার আবেদনকারীদের বয়সে ছাড় দিলে অনেক চাকরি প্রত্যাশি বেকার উপকৃত হবে।



 

Show all comments
  • Md. Solaiman mollah ৫ মে, ২০২১, ১২:২৩ এএম says : 0
    চাকরিতে প্রবেশের কোন বয়সসীমার বাধ্যবাধকতা তুলে দিয়ে শুধুমাত্র অবসরের বয়সসীমা ৬০বছর নির্ধারণ করা হোক বিশেষ করে পুলিস, আর্মি, বিজিবি ,নৌবাহিনী বাদে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ