Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৪ আষাঢ় ১৪২৮, ০৬ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

১৪১ জনকে নিয়োগ দিয়েই ক্যাম্পাস ছাড়লেন ভিসি

নিয়োগ বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

রাবি সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ৭ মে, ২০২১, ১২:০৪ এএম

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) নিয়োগ বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারি-কর্মকর্তাসহ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালায় চাকরি প্রত্যাশী মহানগর ছাত্রলীগ। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে গেলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সংঘর্ষ ও পুলিশের লাঠিচার্জে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চাকরি প্রত্যাশী মহানগর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার আব্দুল্লাহ আল মামুন ও সেকশন অফিসার মাসুদের উপর হামলা চালান। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন। এ সময় রাবি ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা এগিয়ে এলে তাদের উপরও হামলা করা হয়। পরে রাবি ছাত্রলীগ সংগঠিত হয়ে ধাওয়া করলে মহানগর ছাত্রলীগের সাথে সংঘর্ষ বাধে। পরে পুলিশ লাঠিচার্জ করলে মহানগর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাস থেকে বেড়িয়ে যান।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের দ্বিতীয় মেয়াদে ভিসি হিসেবে শেষ কর্মদিবস ছিল গতকাল। এদিন তার বাসভবনের বাইরে চাকরিপ্রত্যাশী ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের মধ্যেই চলছিল নিয়োগ কার্যক্রম। অবশেষে যাওয়ার আগে অ্যাডহকভিত্তিতে শতাধিক চাকরিপ্রত্যাশীকে নিয়োগ দিয়ে গেছেন ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান।

তবে ইস্যুকৃত নিয়োগপত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম স্বাক্ষর করেননি। এক সহকারী রেজিস্ট্রারকে রেজিস্ট্রার বানিয়ে স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হয়েছে। রেজিস্ট্রার আব্দুস সালামকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে বলে ক্যাম্পাস সূত্রে জানা গেছে। ভিসি স্বাক্ষরিত ওই নিয়োগ তালিকায় ৮৫ জন উচ্চমান সহকারী, ১১ জন শিক্ষক ও ইমামসহ বেশ কয়েকজন তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারীসহ ১৪২ জনের নাম রয়েছে। এরই মধ্যে চাকরিতে যোগদানের চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন নতুন নিয়োগপ্রাপ্তরা।

অব্যাহতির বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম বলেন, নিয়োগ দেয়া হবে জানতে পেরে আমি গতকাল থেকে বাইরে চলে এসেছি, যেন আমাকে না পায়। নিয়োগপত্রে ইউসুফ আলী বা মামুনুর রশীদ নামে একজন সহকারী রেজিস্ট্রারের স্বাক্ষর রয়েছে বলে শুনছি। কোনো অবৈধ কার্যক্রমের সঙ্গে থাকবো না বলেই আড়ালে আছি। এদিকে দুপুর দেড়টার দিকে পুলিশ পাহারায় ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান ক্যাম্পাস ত্যাগ করেছেন বলে জানা গেছে।

রাবির সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও সেকশন অফিসার কামরুজ্জামান চঞ্চল জানান, রাবি ভিসি আব্দুস সোবহানের মেয়াদের শেষ দিন। তিনি চাকরি প্রত্যাশী ১২৫ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে নিয়োগ দিয়েছেন বলে প্রচার হলে মহানগর ছাত্রলীগের চাকরি প্রত্যাশীরা ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয়। এ সময় তারাও চাকরি দাবি করে এবং তাদের এমন ভাব যেন এখনই তাদের নিয়োগ দিতে হবে। এ নিয়ে সেকশন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তারা হামলা চালায়। এ সময় আমি এগিয়ে গেলে তারা আমাকেও লাঞ্ছিত করে। তিনি বলেন, ঘটনার সময় রাবি ছাত্রলীগের কিছু নেতাকর্মী সেখানে ছিল। তারা এগিয়ে আসলে তাদের উপরও হামলা করা হয়। পরে রাবি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সংগঠিত হয়ে তাদের ধাওয়া দেয়। এ সময় পুলিশ এসে লাঠিচার্জ শুরু করলে দুই পক্ষই ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়

জানতে চাইলে ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক সুলতানুল ইসলাম টিপু বলেন, আমরা জানতে পেরেছি ভিসি অবৈধভাবে ১২২ জনকে নিয়োগ দিয়েছেন। এতে মতনৈক্য হওয়ায় উভয় পক্ষের সংঘর্ষ হয়। নিয়োগের বিষয়ে জানতে চাইলে রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম বলেন, নিষেধাজ্ঞা থাকা অবৈধ কোন নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ের সাথে আমার সম্পর্ক নেই। নিয়োগ হয়েছে কি না সেটাও আমার জানা নেই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ