Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ০২ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

অনাহারে খাঁচায় মৃত্যু শিকলবন্দি নাহলার

বাবার চরম অবহেলায় ক্ষুব্ধ নেটিজেনরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ মে, ২০২১, ১২:০০ এএম

বয়স মাত্র ৬ বছর। বাবার নয়নের মণি হয়ে থাকার কথা সিরীয় এ শরণার্থী শিশুর। কিন্তু সেই বাবা তাকে শিকল পরিয়ে আটকে রাখেন খাঁচার ভেতর। আর তাতেই মৃত্যু হয় নাহলা আল-ওসমানের। স্থানীয় মিডিয়া একথা জানিয়েছে। হেপাটাইটিস, অনাহার ও তৃষ্ণার কারণে ইদলিবের ফারাজ আল্লাহ শিবিরে মারা যায় নাহলা। তার বাবা তাকে মারধর করে, তারপর তাকে শিকল দিয়ে বেঁধে একটি খাঁচায় আটকে রাখে, যেখানে তাকে অবহেলায় খাবার ছাড়াই ফেলে রাখা হয়। নাহলার একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচারিত হয়েছে। তার মৃত্যুতে মেয়ের বিরুদ্ধে বাবার অপরাধের নিন্দা জানিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

‘নাহলা তার বাবার সাথে থাকতেন। বাবা নাহলার মাকে তালাক দিয়ে অন্য একজন মহিলাকে বিয়ে করেন। শিশুটিকে খাঁচায় বেঁধে রাখেন, কারণ সে ছিল অতিরিক্ত দূরন্ত, যদিও সুস্থ ও স্মার্ট’, বলেছেন সিরিয়ার সাংবাদিক ইব্রাহিম টিরেসি, যিনি এই শিশুটির ছবি প্রকাশ করেছিলেন। ‘খাবার ও পানির ঘাটতি সত্ত্বেও শিশুটি বেশ কয়েক মাস বেঁচে ছিল। শিকলে বাঁধা নাহলা শিবিরে সবার সামনে হাঁটতো, খাঁচায় বিশ্রাম নিত যেটি তার স্থায়ী আবাসে পরিণত হয়েছিল। নাহলা গত বৃহস্পতিবার অপুষ্টি, তৃষ্ণার্ত, হেপাটাইটিস এবং অন্যান্য অসুস্থতাগুলির কারণে মারা গেছে। মৃত্যুর আগে তাকে কঠোর যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়।

একজন টুইটার ব্যবহারকারী বাচ্চাটির এমন পরিস্থিতি দেখেও যারা সাহায্য করেনি তাদের সবাইকে দোষারোপ করেছেন। আরেকজন মন্তব্য করেছেন, ‘শিশুটির মৃত্যুর আগেই মারা গেছে মানুষের মানবতা’। তৃতীয় জন এটিকে ‘অবর্ণনীয় অপরাধ’ হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

সিরিয়ায় শিশুরা যে কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছে সে সম্পর্কে সতর্কতা জারি করেছিল ইউনিসেফ। তারা জানিয়েছিল যে, প্রায় ৪৮ লাখ সিরিয়ান শিশুর মানবিক সহায়তা প্রয়োজন।

সেভ দ্য চিলড্রেন ইতোমধ্যে সিরিয়ার শিশুদের মধ্যে একটি সম্ভাব্য মানসিক স্বাস্থ্য সঙ্কটের বিষয়ে সতর্ক করেছে। ১৮ বছরের কম বয়সী পাঁচজনের মধ্যে প্রায় একটি শিশু সিরিয়ার শিবিরগুলিতে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছে বলে তারা জানিয়েছে। সূত্র : মিডল ইস্ট মনিটর।



 

Show all comments
  • মোঃ শহিদুল ইসলাম ৯ মে, ২০২১, ১:১৩ এএম says : 0
    বিাবা নামটিকেই কলংকিত করেছে এই নর পিশাচ। নিজের বাচ্চাকে শিকলে বেধে খাঁচায় বন্দি করে খাবার না দিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা করার যথাযথ শাস্তি আল্রাহ তায়ালা তাকে অবশ্যই দিবেন সাথে সাথে যারা এটা দেখেও কোন প্রতিবাদ বা প্রতিকার করে নাই তারাও ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ করেছে তাদের প্রতি লানত।
    Total Reply(0) Reply
  • মিরাজ আলী ৯ মে, ২০২১, ১:১৮ এএম says : 0
    এই ঘটনার তীব্র নিন্দ জানাচ্ছি। মানুষ কিভাবে এত নিষ্ঠুর হয়!!!
    Total Reply(0) Reply
  • রেজাউল করিম ৯ মে, ২০২১, ১:১৯ এএম says : 0
    এত সুন্দর একটা বাচ্চা শিশুর প্রতি কি নির্মমতা। ধিক্কার জানাই এই মানুষরূপী বাবাকে।
    Total Reply(0) Reply
  • রোদেলা সকাল ৯ মে, ২০২১, ১:২০ এএম says : 0
    নিউজটা পড়ে খুবই খারাপ লাগলো। একজন বাবা কিভাবে এমন নিষ্ঠুর আচরণ করতে পারে।
    Total Reply(0) Reply
  • তারেক আজিজ ৯ মে, ২০২১, ১:২০ এএম says : 0
    তার উপযুক্ত শাস্তি দাবি করছি।
    Total Reply(0) Reply
  • md ebrahim ৯ মে, ২০২১, ১:২৯ এএম says : 0
    মিডিয়াকে ত বিশ্বাস করা যায় না,তবুও যদি সত্যি হয় চরম অমানবিক,, আল্লাহ বিচার করুক।।
    Total Reply(0) Reply
  • md ebrahim ৯ মে, ২০২১, ১:৩২ এএম says : 0
    মিডিয়াকে ত বিশ্বাস করা যায় না,তবুও যদি সত্যি হয় চরম অমানবিক,, আল্লাহ বিচার করুক।।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ শহিদুল ইসলাম ৯ মে, ২০২১, ৪:০৯ এএম says : 0
    বাবা নামটিকেই কলংকিত করেছে এই নর পিশাচ। নিজের বাচ্চাকে শিকলে বেধে খাঁচায় বন্দি করে খাবার না দিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা করার যথাযথ শাস্তি আল্রাহ তায়ালা তাকে অবশ্যই দিবেন সাথে সাথে যারা এটা দেখেও কোন প্রতিবাদ বা প্রতিকার করে নাই তারাও ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ করেছে তাদের প্রতি লানত।
    Total Reply(0) Reply
  • Dadhack ৯ মে, ২০২১, ১১:৪৯ এএম says : 0
    May Allah throw this child's father in Hell straightway in Hell. Ameen.. Other people who saw her chained why they didn't help.. They also lost the humanity. In Islam is a fard duty whenever a muslim see's any wrong doing, offence if he have strength he/she must use power to stop the crime if not by word, if not they have to hate the crime that means they don't have proper imman.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সিরীয় এ শরণার্থী শিশু
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ