Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০১ আষাঢ় ১৪২৮, ০৩ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

মানবেতর জীবনে দনিয়া কলেজের শিক্ষকরা

এমপির নির্দেশে ২ মাস ধরে বেতন-ভাতা বন্ধ!

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ মে, ২০২১, ১২:০০ এএম

রাজধানীর দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষকরা দুই মাস ধরে বেতন ভাতা পাচ্ছেন না। করোনার মধ্যে তারা খুবই মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তার উপর ঈদ আসন্ন। শিক্ষকরা জানান, বেতন-ভাতা এবং ঈদের বেতন বন্ধ করে দিয়েছেন ঢাকা-৫ আসনের এমপি কাজী মনিরুল ইসলাম মনু। এমপির নির্দেশে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামিক ব্যাংক এবং অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের দনিয়া শাখার ম্যানেজাররা শিক্ষকদের বেতন ভাতা বন্ধ রেখেছে। এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ঢাকা জেলা প্রশাসককে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।
এ বিষয়ে কমিটির সভাপতি মোজাম্মেল হক বলেন, আমি কমিটির সভাপতি হিসেবে বেতন ভাতা দেয়ার জন্য ব্যাংক ম্যানেজারকে চিঠি দিয়েছি। কিন্তু তারা দিচ্ছে না। তিনি বলেন, করোনার সময় শিক্ষকরা বেতন ভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।
এ বিষয়ে ঢাকা জেলার জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি জানতে পেরেছি। তবে এমপি সাহেব কি কারণে বেতন বন্ধ করেছেন তা আমার জানা নেই।
লিখিত অভিযোগে বলা হয়, করোনায় জীবন-জীবিকার দুঃশিন্তায় সকলেই অসহায়। এই অবস্থায় দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন-ভাতা-বোনাস প্রদান, নিয়মিত কার্যক্রম পরিচালনা এবং একজন নিয়মিত অধ্যক্ষ নিয়োগের জন্য দনিয়া কলেজ গভর্নিং বডি ২৭৩ নং সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২ মাসের জন্য বর্তমান অধ্যক্ষকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদান করেন। কারণ, করোনা মহামারীর এই সময়ে নতুন কাউকে দায়িত্ব দিয়ে যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা সম্ভব নয়। কলেজ গভর্নিং বডির আন্তরিক প্রচেষ্টায় শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারিদের মার্চ-এপ্রিল মাসের বেতন, ঈদুল ফিতররের বোনাস এবং বৈশাখী ভাতা প্রাপ্তির লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ হিসেবে, দনিয়া শাখার সংশ্লিষ্ট ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামিক ব্যাংক এবং অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডে যাবতীয় কাগজপত্র প্রেরণ করা হয়। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সেগুলি তাদের আইন শাখায় মতামতের জন্য প্রেরণ করে। ইতোমধ্যে অগ্রগতি জানার জন্য ব্যাংকে যোগাযোগ করলে তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঢাকা-৫ আসনের এমপি কাজী মনিরুল ইসলাম দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ব্যাংক লেনদেন বন্ধ রাখার জন্য লিখিত নির্দেশনা পত্র প্রদান করেছেন। এমপি বললে ব্যাংকগুলো লেনদেন কার্যক্রম চালু করতে পারবে। এ বিষয়ে জানার জন্য এমপি কাজী মনিরুল ইসলামের মোবাইলে ফোন করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, একজন এমপির নির্দেশে কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন আটকে রাখতে পারে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: দনিয়া কলেজের শিক্ষকরা
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ