Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ০৩ আষাঢ় ১৪২৮, ০৫ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

চার আলিতে রেকর্ড জয় পাকিস্তানের

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ মে, ২০২১, ৫:০২ পিএম


আলিদের ম্যাচ। নয়তো কী? ওপরে স্কোরকার্ডে পাকিস্তানের পক্ষে নামগুলো পড়ুন। এক শাহিন শাহ আফ্রিদি ছাড়া বাকি সবাই ‘আলি’। আবিদ, আজহার, নুমান, হাসান ‘আলি’ দের এক ম্যাচে পাকিস্তান পেয়েছে দারুণ এক জয়। জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছে ইনিংস ও ১৪৭ রানে। গড়েছে বিরল এক রেকর্ডও।

শুরুটা করেছিলেন আবিদ, সঙ্গ দিচ্ছিলেন সাবেক অধিনায়ক আজহার। প্রথম জন দ্বিশতক পেলেও দ্বিতীয়জন থেমেছিলেন ১২৬ রানে। তবে তাতেই ম্যাচের সুরটা বেধে দিয়েছিলেন দু’জনে। পরে নুমান আলির ৯৭-এ ভর করে পাকিস্তান থেমেছে ৫১০ রানে।
জবাবে জিম্বাবুয়ে হাসান আলির তোপে গুটিয়ে যায় মাত্র ১৩২ রানেই। হাসান ২৭ রানে শিকার করেন ৫ উইকেট।

ফলো অন করতে এসে দ্বিতীয় ইনিংসে জিম্বাবুয়ে র‍্যাজিস চাকাভার ৮০, ব্রেন্ডন টেলরের ৪৯-এর কল্যাণে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ল বটে, কিন্তু শাহিনশাহ আফ্রিদি আর নুমান আলির ৫ উইকেট শিকারের কবলে পড়ে ইনিংস হারটা আর এড়াতে পারেনি।
 
ইনিংস আর ১৪৭ রানের জয় তুলে নেওয়ার পথে পাকিস্তানও গড়ে একটা বিরল কীর্তি। হাসান আলি, শাহিনশাহ আফ্রিদি, নুমান আলি; হারারে টেস্টে পাকিস্তানের পাঁচ উইকেট শিকারির সংখ্যাটা দাঁড়ায় তিনে। এক টেস্টে তিন জন পাঁচ উইকেট শিকারির নজির শেষবার ক্রিকেট দেখেছিল সেই ১৯৯৩ সালে। জিম্বাবুয়ে সফরের শেষ ম্যাচে আজ ২৮ বছর পর ক্রিকেট আবার দেখলো এ কীর্তি।

স্কোরকার্ড:
পাকিস্তান ৫১০-৮ ডিক্লে. (আবিদ ২১৫, আজহার ১২৬, নুমান ৯৭; মুজারাবানি ৮২/৩)
জিম্বাবুয়ে ১৩২ (চাকাভা ৩৩, জংউই ১৯, তিরিপানো ২৩; হাসান ২৭/৫)
জিম্বাবুয়ে ২৩১ (চাকাভা ৮০, টেলর ৪৯, জংউই ৩৭; শাহিন ৫২/৫, নুমান ৮৬/৫ )
ফল: পাকিস্তান এক ইনিংস ও ১৪৭ রানে জয়ী।
সিরিজ: পাকিস্তান ২-০ ব্যবধানে জয়ী।
ম্যাচসেরা: আবিদ আলি।
সিরিজসেরা: হাসান আলি।

 


 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন