Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ০২ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

বাংলাদেশে পানি অনিরাপদ কিংবা দামি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ মে, ২০২১, ৬:১৮ পিএম

বিশ্বের বৃহত্তম নদী ব-দ্বীপের মধ্যে থাকয় বাংলাদেশের পানির কোন অভাব নেই। তবে আফসোস, এর খুব কমই পানযোগ্য। মানবসৃষ্ট এবং প্রাকৃতিক উভয় কারণেই দেশের বেশিরভাগ পৃষ্ঠতলের পানিতে উচ্চ মাত্রায় বিষাক্ত আর্সেনিক থাকে। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্রমবর্ধমান প্রভাবে এমনকি গভীর কূপগুলিও লবণাক্ত হয়ে পড়ছে। বঙ্গোপসাগর থেকে ঘূর্ণিঝড় এবং জলোচ্ছ্বাস তীব্রতর হওয়ার সাথে সাথে সমুদ্রের পানিতে বদ্বীপ ভরে যাচ্ছে। মাটিতে লবণাক্ততা বাড়তে থাকায় ধান চাষ করা কঠিন হয়ে পড়ছে। ফলে বাংলাদেশের নিম্ন-অঞ্চলের বাসিন্দারা, যেখানে দেশের ১৭ কোটি মানুষের মধ্যে প্রায় এক-চতুর্থাংশ লোকের বাস, তারা ঘর-বাড়ি ছেড়ে উর্বর অঞ্চল বা শহরের দিকে ছুটতে বাধ্য হচ্ছে।

মানুষের জন্য অত্যধিক লবণ যেমন খারাপ তেমনি ফসলের জন্যও খারাপ। এটি হাইপারটেনশনের কারণ, স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক এবং গর্ভপাতের ঝুঁকি বাড়ায়। উপকূলে যারা রয়েছেন তারা পান করার জন্য এবং রান্না করার জন্য বৃষ্টির পানি সংগ্রহ করেন। শুষ্ক মৌসুমে এটি কঠিন, উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে বাসিন্দা শিখা রানী মালা বলেছেন। তিনি বলেন, বৃষ্টির পানির বিকল্প হিসাবে কাছাকাছি একটি পুকুর আছে, তবে দ্রুত শুকিয়ে যায়। বিভিন্ন সংস্থা এই পরিস্থিতি ঠিক করার চেষ্টা করছে। বড় শহরগুলির বাইরে পানির অবকাঠামো পরিচালনার জন্য দায়ী সরকারী সংস্থা গণস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর (ডিপিএইচ)। তারা ব্যয়বহুল, ভাইরাস এবং লবণের সর্বাধিক জৈব পদার্থ, ঝিল্লি ব্যবহার করার জন্য ব্যয়বহুল নতুন ন্যানোফিল্ট্রেশন মেশিন কিনেছে। এটি বাগেরহাটসহ তিনটি জেলায় তারা পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করছে এবং আপাতত বিনা মূল্যে পানি সরবরাহ করছে। বাংলাদেশের বৃহত্তম এনজিও ব্র্যাক ওয়েলশ বিজনেসের সাথে যৌথভাবে হাইড্রো নামে একটি যন্ত্র তৈরি করেছে যা ইলেক্ট্রোকোগুলেশন নামে একটি প্রক্রিয়া ব্যবহার করে পানি বিশুদ্ধ করে। মেশিনগুলির দাম গণস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের ব্যবহৃত মেশিনের দামের প্রায় সমান হলেও একই সময়ে দ্বিগুণ পানি বিশুদ্ধ করতে সক্ষম। এর ফলে ব্র্যাক ২০ লিটার পানি তুলনামূলকভাবে সাশ্রয়ী মূল্যে দশ টাকায় বিক্রি করতে পারছে। তবে যেখানে কম খরচে পানি বিশুদ্ধ করা যায়, সেখানেও কয়েক হাত বদলের কারণে পানির দাম ২৫০ শতাংশ অবধি বৃদ্ধি পায় যা মধ্যস্বত্বভোগীদের পকেটে যায়।

আবার প্রতি বছর রাজধানী ঢাকায় চলে আসা ৩ থেকে ৪ লাখ অভিবাসীর জন্য পরিষ্কার পানি পাবার নিশ্চয়তা নেই। নগরীর প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ বাসিন্দাদের প্রায় বেশিরভাগই থাকেন বস্তি এলাকায়, তাদের বাড়িতে ওয়াসার সংযোগ নেই। বেশিরভাগ এখনও অবৈধভাবে কলের পানির জন্য শহরের পানি সিন্ডিকেটকে টাকা দিতে বাধ্য হয়। সেই পানিও প্রায়শই বিভিন্ন কারণে দূষিত হয়।

বাংলাদেশী-আমেরিকান উদ্যোক্তা মিনহাজ চৌধুরী মনে করেন যে, তিনি অসাধু মধ্যস্বত্বভোগীদের কাটাতে একটি উপায় খুঁজে পেয়েছেন। তার সংস্থা ড্রিংকওয়েল ঢাকা এবং চট্টগ্রামে পানি সরবরাহের সাথে কাজ করে। তারা ভেন্ডিং মেশিন ব্যবহার করে এবং গো-কার্ড সিস্টেমের মাধ্যমে প্রতি লিটার পানি ৭ থেকে ১০ টাকার বিনিময়ে গ্রাহকদের কাছে সরাসরি বিক্রি করে। মিনহাজ চৌধুরী বলেন, ‘সরকারী ইউটিলিটিগুলি অবিশুদ্ধ পানি, জমি এবং বিদ্যুৎ সরবরাহ করে। তবে পানি বিশুদ্ধকরণসহ আমরা অন্য সব কিছু করি।’ এটি ব্যয় কম রাখার চেয়েও বড় পুরষ্কার হিসাবে সিস্টেমের দীর্ঘমেয়াদী স্থায়িত্ব নিশ্চিত করেছে। সস্তা, পরিষ্কার পানি সরবরাহের জন্য অনেকগুলি প্রকল্প তহবিল সঙ্কটের কারণে বন্ধ হয়ে গেছে। এ ক্ষেত্রে ইউটিলিটিগুলির সাথে যৌথভাবে ড্রিঙ্কওয়েলের লাভ-ভিত্তিক মডেল উদাহারণ সৃষ্টি করতে পারে।

শহরে ড্রিঙ্কওয়েলের সাফল্য মোরেলগঞ্জের মতো জায়গাগুলিতে প্রয়োগ করা এখন সময়ের ব্যাপার। এ বিষয়ে গণস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের সাইফুর রহমান বলেছেন, ‘সরকার নির্ধারিত সংস্থা বা এনজিও দ্বারা নির্ধারিত সমস্ত পানি বিশুদ্ধকরণ প্রকল্পের অর্ধেকই ব্যর্থ হয়েছে, চালানো এবং রক্ষণাবেক্ষণের বিষয়টি তখন সমাজের উপর পড়ে যায়। ফলে ব্যয় সাধারণত খুব বেশি হয়।’ গ্রামাঞ্চলে পানি সরবরাহ করার দায়িত্ব স্থানীয় সরকারের। তবে তারা প্রায়ই সেই দায়িত্ব পালন করেন না। নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি যাদের বেশিরভাগ ঢাকায় থাকেন এবং খুব কমই তাদের নির্বাচনী এলাকায় যান - এটা তাদের কাজ বলে মনে করিয়ে দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন সাইফুর রহমান ও তার সহকর্মীরা।



 

Show all comments
  • Dadhack ১১ মে, ২০২১, ১০:০৬ পিএম says : 0
    Until and unless Quranic rule is established we suffer more and more by all these criminals.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বাংলাদেশে পানি
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ