Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০১ আষাঢ় ১৪২৮, ০৩ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ভারতে নদী-নালায় ভাসছে লাশ

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ মে, ২০২১, ২:১৭ পিএম

এত লাশ রাখবে কোথায় ভারতের মানুষ। চিতায় মিলছেনা সৎকারের ব্যবস্তা। তাই যেখানে সেখানে ফেলে দিচ্ছে। আর এতে করে আরও ঝুঁকিতে পড়ছে দেশটি।

এদিকে ভারতের করোনা পরিস্থিতি কতটা মারাত্মক জায়গায় পৌঁছেছে, তার প্রমাণ মিলছে নদী-নালাতে লাশের সারিতেই। প্রথমে বিহার, তারপর উত্তরপ্রদেশ, আর এবার মধ্যপ্রদেশ। বিহারের বক্সারে গঙ্গায় একের পর এক লাশের খোঁজ মিলেছিল, তার পর দিনই উত্তরপ্রদেশের গাজীপুরে নদীর পাড়ে মেলে বেওয়ারিশ লাশের সারি। করোনা পরিস্থিতি এভাবে নদীর পানিতে মৃতদেহ ভেসে আসায় স্বাভাবিকভাবেই গোটা ভারতে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ওই ঘটনার রেশ মিটতে না মিটতেই এবার আরেক বিজেপি-শাসিত রাজ্য, মধ্যপ্রদেশেও দেখা মিলল প্রায় একই দৃশ্যের।

এবার মধ্যপ্রদেশের পান্না জেলার রুঞ্জ নদীতে কমপক্ষে ৬টি লাশ ভেসে থাকতে দেখা গেল। লাশগুলো পচেগলে এসে জমা হয় নদীর পাড়ে। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, প্রতিটি লাশই কোভিড আক্রান্তদের। সামনে থেকে বোঝা না গেলেও মধ্যপ্রদেশের অবস্থাও শোচনীয়, শ্মশানে পোড়ানোর জায়গা-কাঠ নেই। ওই কারণেই নদীতে লাশ ভাসিয়ে দিচ্ছেন অনেকে, এমনই মত স্থানীয়দের।

উত্তরপ্রদেশের ঘটনায় স্থানীয়দের দাবি, এই প্রথম নয়, বিগত বেশ কয়েক দিন ধরেই নদীতে লাশ ভেসে আসার ঘটনা ঘটছে। এত বিপুল সংখ্যায় লাশ নদীর পাড়ে জমে থাকায় প্রশাসন নড়েচড়ে বসে। উত্তরপ্রদেশের হামিরপুরে যমুনায় ও বিহারের কাটিহার ও বক্সায় গঙ্গায় লাশ ভেসে আসার ছবির পর এবার একই দৃশ্য মধ্যপ্রদেশেও।

পচাগলা, আধপোড়া লাশের গন্ধে অস্বস্তিকর, অস্বাস্থ্যকর পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে নদী সংলগ্ন গ্রামগুলোতে। উল্লেখ্য, করোনার প্রথম ঢেউয়েও বিহার ও উত্তরপ্রদেশে নদীতে করোনায় মৃতদের লাশ ভাসিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছিল।

সূত্র : নিউজ ১৮



 

Show all comments
  • Mahadi ১২ মে, ২০২১, ৪:৩৯ পিএম says : 0
    Baparna indiate manusher ovabnei.ei samanno marajaoate kichui jayashena.????????????????
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন