Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮, ১৩ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

উত্তরপ্রদেশে গঙ্গার তীরে হাজার হাজার মৃতদেহ, ভয়ঙ্কর ছবি প্রকাশ

উত্তরপ্রদেশে, গঙ্গার তীরে হাজার হাজার মৃতদেহ, ভয়ঙ্কর ছবি প্রকাশ | প্রকাশের সময় : ১৫ মে, ২০২১, ৪:৫৯ পিএম

গত কয়েক দিনে ভারতের উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও বিহারে নদীতে ভাসতে দেখা গিয়েছে অসংখ্য মৃতদেহ। এমন ভিডিও সামনে এসেছে যেখানে দেখা যাচ্ছে কোভিডে মৃতদের দেহ নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হচ্ছে। জানা গিয়েছে, সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের ২৭ জেলায় গঙ্গার তীরে মাটি চাপা দেওয়া হয়েছে অসংখ্য মৃতদেহ। গঙ্গার ১১৪০ কিলোমিটার যাত্রাপথে নদীর তীরে ২ হাজারের বেশি মৃতদেহ এভাবে মাটি চাপা দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমে খবর, উত্তরপ্রদেশের বিজনৌর, মেরঠ, মুজফ্ফরনগর, বুলন্দশহর, হাপুর, আলিগড়, বদায়ুঁ, শাহজাহানপুর, কনৌজ, কানপুর, উন্নাও, রায়বরেলী, ফতেপুর, প্রয়াগরাজ, প্রতাপগর, মির্জাপুর, বারাণসী, গাজিপুর, বালিয়া প্রভৃতি জেলায় এই ছবি দেখা গিয়েছে। তার মধ্যে কানপুর, কনৌজ, উন্নাও, গাজিপুর ও বালিয়ার অবস্থা সবথেকে খারাপ।
কনৌজের মহাদেবী গঙ্গাঘাটের কাছে ৩৫০-র বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে বলে খবর। ঘাটে কর্মরত রাজনারায়ণ পাণ্ডে নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘‘বার বার মৃতদেহগুলি মাটি চাপা দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু গঙ্গার জলস্তর বাড়লে মাটি সরে যাচ্ছে। ফলে অনেক সময় মৃতদেহ নদীতে ভেসে যাচ্ছে।’’
কানপুরের শেরেশ্বর ঘাটের কাছে একই ছবি চোখে পড়ছে। যে দিকে চোখ পড়ছে সে দিকেই মৃতদেহ। স্থানীয়রাই বলছেন, ৪০০-র বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে সেখানে। মাটি সরে গিয়ে কিছু মৃতদেহ বেরিয়ে পড়ছে। তার উপর চিল, শকুন গিয়ে বসছে। এর থেকে সংক্রমণ ও দূষণ দুইই ছড়াতে পরে বলে আশঙ্কা করছেন পরিবেশবিদরা।
উন্নাওয়ের অবস্থা সব থেকে খারাপ। এখানকার দু’টি ঘাট (শুক্লাগঞ্জ ও বক্সার)-এর কাছে ৯০০-র বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে বলে খবর। কুকুর, শেয়ালে অনেক মৃতদেহ টেনে বের করে নিয়ে আসছে।
উন্নাওয়ের পাশেই ফতেপুরে গঙ্গার তীরে ২০টির বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে বলে খবর। একই ভাবে প্রয়াগরাজ, বারাণসী, চন্দৌলি, ভদোহী ও মির্জাপুরে গঙ্গার তীরে ৫০টিরও বেশি মৃতদেহ কবর দেওয়া রয়েছে বলে খবর। কিছু জায়গায় বিক্ষোভের পরে প্রশাসনের তরফে মৃতদেহগুলি বের করে এনে শেষকৃত্যের ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে খবর।
গাজিপুরে এখনও পর্যন্ত ২৮০টির বেশি মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে গঙ্গার তীরে। তার মধ্যে অনেক মৃতদেহ বের করে শেষকৃত্যের ব্যবস্থা করছে পুলিশ ও প্রশাসন। কিন্তু প্রায় প্রতিদিন ১২ থেকে ১৫টি করে মৃতদেহ সেখানে এসে মাটিতে পুঁতে দেওয়া হচ্ছে। কে বা কারা এই ঘটনা ঘটাচ্ছে সেই বিষয়ে এখনও প্রশাসনের তরফে কিছু বলা হয়নি। গাজিপুরের পাশে বলিয়াতে গঙ্গার তীর থেকে ১৫টি মৃতদেহ বের করে শেষকৃত্য করেছে পুলিশ। নতুন করে যাতে আর কেউ মৃতদেহ কবর দিতে না পারে তার জন্য নিরাপত্তারক্ষী নিয়োগ করা হয়েছে।
গোটা উত্তরপ্রদেশ জুড়ে এই ছবি সামনে আসছে। পরিবেশবিদরা বলছেন, করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হলে সেই মৃতদেহের শেষকৃত্যের একটা বিশেষ পদ্ধতি থাকে। এ ভাবে কবর দিলে সেটা শুধু পরিবেশের জন্য ক্ষতিকারক তা নয়, সেখান থেকে সংক্রমণও দ্রুত ছড়াতে পারে। তা ছাড়া এই মৃতদেহ গঙ্গায় ভেসে গেলে পানিও দূষিত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যাচ্ছে। প্রশাসনকে আরও কড়া ভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলা করার আবেদন জানাচ্ছেন তারা। সূত্র: হিন্দুস্থান টাইমস।



 

Show all comments
  • ওবাইদুর রাহমান ১৬ মে, ২০২১, ৬:৪৮ এএম says : 0
    'ইনকিলাব' পরিবারের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ ১. এ্যাপসটি উন্নত করা হোক। ২. সম্পাদনার প্রতি আরো মনযোগ দেয়া হোক। বিভিন্ন সময় বানানগত ভুল দেখা যায়। এই খবরে সাধু-চলিত একাকার 'ভাসিয়ে দেওয়া হচ্ছে। জানা গিয়েছে, ' ৩. অন্য পত্রিকার মত মবতব্য করা আরো সহজ করা হোক। আশারাখি লেখাগুলি দৃষ্টিগোচর হবে। মা'আসসালাম, ওবাইদুর রহমান
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মৃতদেহ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ