Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

ব্রেক্সিট পরবর্তী বাণিজ্য সহজে আয়ারল্যান্ড ও ব্রিটেনের সম্মতি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ মে, ২০২১, ১২:০১ এএম

ব্রেক্সিট-পরবর্তী বাণিজ্য সহজ করতে ব্রিটেনের সঙ্গে একযোগে কাজ করবে আয়ারল্যান্ড। শুক্রবার ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের বাসভবনে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এমনটা ঘোষণা দেন ব্রিটেন ও আয়ারল্যান্ডের নেতারা। সেখানে তারা বলেন, ব্রিটেন উত্তর আয়ারল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের মধ্যকার বাণিজ্যিক সম্পর্ক সহজ করতে ভবিষ্যতে দুই দেশ একসঙ্গে কাজ করবে। খবর রয়টার্স। গত বছরের শেষ দিকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকেই ইইউ ও ব্রিটেনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক নিয়ে নানা টানাপড়েন চলছে। বিশেষ করে ব্রিটেন ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে সরকারি বাণিজ্যবিষয়ক গৃহীত চুক্তিগুলো নিয়ে এ টানাপড়েন চলছিল। এসব সমস্যা দূরীকরণে ব্রিটেন ও ইইউর মধ্যে বেশ কয়েকটি সমঝোতাম‚লক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ম‚লত ব্রিটেন ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে যেকোনো বাণিজ্যিক বিপর্যয় এড়াতে এসব বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তবে এসব বৈঠক থেকে কোনো কার্যকর সমাধান আসেনি। এ অবস্থায় লন্ডন আশা করছে, ইইউর আরেক সদস্য রাষ্ট্র আয়ারল্যান্ড এ সমস্যা ও আলোচনায় কিছু সাহায্য করতে পারবে। এক বিবৃতিতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের কার্যালয়ের এক মুখপাত্র জানান, বেলফাস্ট/গুড ফ্রাইডে চুক্তি বজায় রাখতে একসঙ্গে কাজ করার গুরুত্বের ওপর জনসন ও আইরিশ প্রধানমন্ত্রী মাইকেল মার্টিন সম্মতি দিয়েছেন। একই সঙ্গে গ্রেট ব্রিটেন, উত্তর আয়ারল্যান্ড ও রিপাবলিক অব আয়ারল্যান্ডের মধ্যকার বাণিজ্যিক সম্পর্ক সহজভাবে পরিচালনা করতেও তারা সম্মত হয়েছেন। ১৯৯৯ সালে স্বাক্ষরিত দ্য ভেলফাস্ট অথবা গুড ফ্রাইডে চুক্তি তিন দশক ধরে চলা ক্যাথলিক জাতীয়তাবাদীদের মাধ্যমে অখন্ড আয়ারল্যান্ডের জন্য সংঘটিত সংঘাতের সমাপ্তি ঘোষণা করেছিল। দুই আয়ারল্যান্ডের ভবিষ্যৎ নিয়ে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে একত্রে থাকতে চাওয়া ইউনিয়নবাদীদের সঙ্গে ক্যাথলিক ন্যাশনালিস্টের সঙ্গে এ সংঘাত শুরু হয়েছিল। ব্রেক্সিটের সময় এ চুক্তি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছিল। এ সময় দুপক্ষই দ্বীপরাষ্ট্রটিতে নিরাপদ শান্তি, মুক্ত বাণিজ্য ও ভ্রমণের শর্তে উন্মুক্ত আইরিশ সীমান্তের ব্যাপারে সম্মত হয়েছিল। কিন্তু এ চুক্তির ফলে এটিও প্রতীয়মান হয় যে, উত্তর আয়ারল্যান্ড বিভিন্ন পণ্যের জন্য ইইউর একক বাজার হিসেবে অবস্থান করবে। এ সময় জনসনের মুখপাত্র জানান যে, ১৯৭১ সালে বেলফাস্টের সময় সংঘটিত সহিংসতায় ব্রিটিশ সেনাবাহিনী পরিচালিত অভিযানে ১০ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ ও ক্ষমা প্রার্থনা করেন বরিস জনসন। বৈঠকে জনসন ও মার্টিন এ ঘটনাকে গভীরভাবে দুঃখজনক বলে সম্মতি প্রকাশ করেন। তারা বলেন, এটি সত্যিই দুঃখজনক যে আক্রান্তদের পরিবারের সদস্যদের এত দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করতে হয়েছে সত্য প্রকাশিত হওয়ার জন্য। বুধবার এ ঘটনার জন্য ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার সরকারের পক্ষ থেকে শর্তহীনভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এর আগে, আদালতের এক তদন্তে এটা প্রমাণিত হয় যে, তখন ব্রিটিশ সেনাবাহিনী অন্যায়ভাবে অথবা অযাচিত পন্থায় ওই ১০ জনের নয়জনকে হত্যা করেছে। এর আগে, গত ২৮ এপ্রিল ব্রেক্সিট-পরবর্তী সময়ের জন্য ইইউ-যুক্তরাজ্য বাণিজ্য চুক্তি অনুমোদন করে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সংসদ। এ চুক্তি অনুমোদনের ফলে দুপক্ষের মধ্যে ট্যারিফ এবং কোটামুক্ত বাণিজ্য চলমান রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। গত জানুয়ারি থেকেই দ্য ট্রেড অ্যান্ড কোন্ডঅপারেশন অ্যাগ্রিমেন্ট (টিসিএ) নামক এ চুক্তি অস্থায়ীভাবে পরিচালিত হয়ে আসছিল। ইইউ সংসদের অনুমোদনের ফলে এখন থেকে এটি আনুষ্ঠানিকভাবে পরিচালিত হবে। রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ব্রিটেন

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন