Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ০২ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

মওলানা ভাসানীতে নিথর দেহে শামসুল বারী

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০২১, ১২:০০ এএম

বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের (বাহফে) সাবেক সাধারণ সম্পাদক, ঢাকা মেরিনার ইয়াংস ক্লাবের সহ-সভাপতি, সাবেক হকি খেলোয়াড় ও দেশবরেণ্য বর্ষীয়ান ক্রীড়া সংগঠক শামসুল বারী আর নেই। গতকাল ভোর ৫টায় রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন তিনি। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী এবং ২ পুত্র ও ১ কন্যাসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে যান। কাল বাদ যোহর মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে নামাজে জানাজা শেষে মরহুম শামসুল বারীকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়।
নিজ পায়ে হেঁটে অতীতে বহুবার এসেছেন প্রিয় মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে। যা ছিল শামসুল বারীর দ্বিতীয় ঘর। কিন্তু শেষবার আসলেন নিথর দেহে। তাও অন্যের কাঁধে চড়ে। বাংলাদেশ হকির কিংবদন্তী সংগঠকের নিথর দেহটি যখন দুপুরে মাওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে নিয়ে আসা হয়, তখন সেখানে তৈরি হয় এক আবেগঘন পরিবেশ।
অনেকটা আক্ষেপ নিয়েই ইন্তেকাল করলেন শামসুল বারী। বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে এই কীর্তিমান সাবেক খেলোয়াড় ও সংগঠকের জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পাওয়ার সৌভাগ্য হয়নি। খেলোয়াড় ও সংগঠক হিসেবে জীবনের ৪৫টি বছর দেশের হকি অঙ্গনে কাটানো চাট্টিখানি কথা নয়। শামসুল বারী তা পেরেছেন। হকির প্রতি আন্তরিকতা ও অপরিসীম ভালবাসার কারণেই এমনটি সম্ভব হয়েছে। আমৃত্যু তিনি নিজেকে হকির সঙ্গে নিবিড়ভাবে জড়িয়ে রেখেছিলেন।
১৯৮৮ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ১৯ বছর শামসুল বারী ছিলেন বাহফের সাধারণ সম্পাদক। খেলোয়াড় হিসেবে তার হকি ক্যারিয়ার শুরু হয় ১৯৬৪ সালে। ওই বছর মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে প্রথম লিগে খেলেন তিনি। ১৯৬৮ থেকে ’৭৮ সাল পর্যন্ত জাতীয় হকি দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। হকিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘বøু’ পান ১৯৭২ সালে। মাহুতটুলী স্পোর্টিং ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য শামসুল বারী ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত এই ক্লাবে খেলেন। ১৯৭৪ থেকে ’৭৮ সাল পর্যন্ত খেলেছেন ঢাকা আবাহনীতে। স্বাধীনতার পর সাতবার লিগ চ্যাম্পিয়ন দলের খেলোয়াড় শামসুল বারী ১৯৮০ সালে মোহামেডানের পক্ষে খেলেই অবসর নেন। ১৯৮৪ সালে মালয়েশিয়ায় জুনিয়র হকি দলের ম্যানেজার ’৮৫তে ঢাকার দ্বিতীয় এশিয়া কাপে অ্যাসিস্ট্যান্ট টেকনিক্যাল ডেলিগেট, ’৮৮তে সিউলে দশম এশিয়ান গেমসের বিচারক, ’৮৯ তে ভারতের তৃতীয় এশিয়া কাপ হকিতে ‘জুরি অব আপিল’ মেম্বার, ১৯৯০ ও ’৯৪ সালে এশিয়ান হকি ফেডারেশনে কংগ্রেস ডেলিগেট এবং জাপানে দ্বাদশ এশিয়ান গেমসে হকি বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মরহুম শামসুল বারী।
শামসুল বারীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ), বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন (বাহফে), বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে), বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি), মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, ঢাকা আবাহনী লিমিটেড, ঢাকা মেরিনার ইয়াংস ক্লাব, বাংলাদেশ স্পোর্টিং ক্লাব, বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিষ্টস কমিউনিটি (বিএসজেসি), বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ) ও বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিষ্টস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসজেএ)সহ বিভিন্ন ক্রীড়া সংগঠন। তারা মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শামসুল বারী
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ