Inqilab Logo

শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮, ২০ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

ফিলিস্তিনের পক্ষে সোচ্চার হোন ও সহযোগিতা করুন -ছারছীনার পীর ছাহেব

প্রেস বিজ্ঞপ্তি | প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০২১, ১২:০৩ এএম

আমীরে হিয্বুল্লাহ ছারছীনা দরবারের পীর আলহাজ হযরত মাওলানা শাহ্ মোহাম্মাদ মোহেব্বুল্লাহ ইসরাইল ও ফিলিস্তিন যুদ্ধ বিষয়ে ভক্ত-মুরীদান, জমইয়াতে হিযবুল্লাহর নেতা-কর্মী, মুসলিম জনতা ও বাংলাদেশ সরকারের উদ্দেশ্যে বলেছেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইঙ্গ-মার্কিন বিজয়ী জোট পরাজিত অটোমান সম্রাজ্যেকে খন্ডে খন্ডে বিভক্ত করে তার মধ্যখানে ফিলিস্তিন অংশে জোর পূর্বক আগ্রাসী ইহুদীদের বসিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে অশান্তির বীজ বপন করে। ফলে দখলদার ইসরাইলিদের ক্রমাগত আগ্রাসনে ফিলিস্তিন দেশের আদি বাসিন্দা মুসলমানগণ ভিটে মাটি হারিয়ে নিজ দেশে পরবাসী ও উদ্বাস্তু হয়ে যায়। বিগত অর্ধ শত বছরে কয়েকবার আরব-ইসরাইল যুদ্ধে ইসরাইল তার মিত্র আমেরিকার প্রত্যক্ষ মদদে শুধু ফিলিস্তিনকেই গ্রাস করেনি বরং মিশর, জর্ডান ও লেবাননের এক বিস্তির্ণ এলাকাও দখল করে নিয়েছে।
বর্তমানে ইসরাইল পারমানবিক শক্তিধর একটি অবৈধ রাষ্ট্র। পক্ষান্তরে গাজা ও পশ্চিম তীরের যত সামান্য এলাকা নিয়ে গঠিত ক্ষুদ্র ফিলিস্তিন রাষ্ট্রটি এখনো সারা বিশ্বের স্বীকৃতি পায়নি এবং তাদের উদ্বাস্তু জীবনের অবসানও ঘটাতে পারেনি। তাদের নেই কোন নিয়মিত সৈন্য, বিমান, জাহাজ ও ট্যাঙ্ক। এহেন একটি দুর্বল জনগোষ্ঠীর উপর কথায় কথায় বিমান হামলা করা, ট্যাঙ্ক নিয়ে আক্রমণ করা জঘন্যতম মানবতা বিরোধী অপরাধ। গাজা ও পশ্চিম তীরের সামান্য মরুময় অঞ্চল যেখানে মুসলমানরা গাদাগাদি করে বসবাস করছে সেখান থেকেও জোরপূর্বক মুসলমানদের উচ্ছেদ করে ইহুদী বসতি স্থাপন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে তারা মুসলমানদের প্রথম কিবলা বাইতুল মুকাদদাসের নগরী জেরুজালেমকে তাদের রাজধানী ঘোষণা করেছে। মুসলমান, খ্রীস্টান ও ইহুদী তিন ধর্মের নিকট পবিত্র স্থান বাইতুল মুকাদদাসকে তারা কুক্ষিগত করে সেখানে মুসলমানদের যেতে বাধা প্রদান, তল্লাশীর নামে হয়রানি, নির্যাতন ও হত্যা পর্যন্ত করছে।
গত মাহে রমজানের লাইলাতুল কদরে নামাজ পড়তে আসা মুসল্লীদের উপর অতর্কীতভাবে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে অর্ধশতাধিক মুসলমানকে শহীদ করেছে। এ জুলুমের কোন প্রতিবাদ করলেই তারা হয় জঙ্গী, সন্ত্রাসী ও উগ্রবাদী। অপরদিকে ইহুদীদের আত্মরক্ষার অধিকারের নামে মুসলমানদের হত্যা করার লাইসেন্স দিয়ে রেখেছে বিশ্ব মোড়লরা। হাজার হাজার মুসলমান মারা পরলেও তাদের কিছু আসে যায় না। ইহুদীদের স্বার্থে সামান্য আঘাতও তারা সহ্য করেনা।
নমাজরত মুসল্লীদের হত্যার প্রতিবাদ করায় ইসরাইল গাজায় বিমান হামলা চালিয়ে মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে। এহেন মুহূর্তে সর্বাত্মক সহযোগিতা নিয়ে ফিলিস্তিনীদের পাশে দাঁড়ান মুসলমানের নৈতিক দায়িত্ব। এ দায়িত্ব পালনে হযরত পীর ছাহেব বাংলাদেশ সরকারকে সেখানে ত্রাণ ও ওষুধসহ মেডিকেল টীম পাঠাতে, বিশ্ব ফোরামে প্রতিবাদ জানাতে এবং প্রয়োজন হলে জাতিসংঘের অধীনে শান্তিরক্ষী মিশনে সৈন্য পাঠানোর পরামর্শ দেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

 



 

Show all comments
  • Md Borhan uddin ২১ মে, ২০২১, ৫:১১ পিএম says : 0
    আল্লাহ তায়ালা হযরত পীর ছাহেব কেবলার হায়াতে তাইয়্যেবা দান করুন। আমিন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ছারছীনার পীর ছাহেব


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ