Inqilab Logo

শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৯ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

মুশফিকের সেঞ্চুরিতে লড়াকু পুঁজি

শ্রীলঙ্কাকে ২৪৭ রানের লক্ষ্য দিল বাংলাদেশ

ইমরান মাহমুদ | প্রকাশের সময় : ২৫ মে, ২০২১, ৫:৫৮ পিএম | আপডেট : ৬:০৪ পিএম, ২৫ মে, ২০২১

 

১১ বল বাকি থাকতে গুটিয়ে গেল বাংলাদেশের ইনিংস। দুশমন্থ চামিরার উপর চড়াও হতে গিয়ে কাভারে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন মুশফিকুর রহিম। ২৪৬ রানে গুটিয়ে গেল স্বাগতিকরা।

অষ্টম সেঞ্চুরিতে ১২৭ বলে ১০ চারে ১২৫ রান করেছেন মুশফিক। দলের রান আর যেতে পারেননি ৫০ পর্যন্ত। ৪৪ রানে ৩ উইকেট নেন পেসার চামিরা। রিস্ট স্পিনার লাকশান সান্দাক্যান ৩ উইকেট নেন ৫৪ রানে। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ ইনিংস : ৪৮.১ ওভারে ২৪৬ (তামিম ১৩, লিটন ২৫, সাকিব ০, মুশফিক ১২৫, মোসাদ্দেক ১০, মাহমুদউল্লাহ ৪১, আফিফ ১০, মিরাজ ০, সাইফ ১১, শরিফুল ০, মুস্তাফিজ ০*; উদানা ৯-০-৪৯-২, চামিরা ৯.১-২-৪৪-৩, হাসারাঙ্গা ১০-১-৩৩-১, শানাকা ৭-০-৩৮-০, সান্দাক্যান ১০-০-৫৪-৩, ধনাঞ্জয়া ৩-০-২৩-০)

মুশফিকের অষ্টম সেঞ্চুরি

আগের ম্যাচে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে মাঠ ছেড়েছেন ১৬ রানের আক্ষেপ নিয়ে। এবার আর আক্ষেপ থাকলো না; দুবার বৃষ্টির বাগড়ার পর মুশফিক ঠিকই তুলে নিলেন ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি। চার মেরে ১১৪ বলে তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগার। স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে মুশফিক এই সেঞ্চুরি হাঁকান। অপর প্রান্তে যখন আসা যাওয়ার মিছিল মুশফিক তখন এক প্রান্ত আগলে রাখেন। তার সেঞ্চুরির ইনিংসটি সাজানো ছিল ৬টি চারের মারে।

স্কোর: বাংলাদেশ ৪৭ ওভারে ২৩৭/৭

ফের বৃষ্টির হানায় খেলা বন্ধ

২৫ মিনিট বন্ধ থাকার পর আবার শুরু হলো খেলা। কমেনি কোনো ওভার। আকাশ কালো মেঘেই ঢাকা। দুপুর থেকেই জ্বলছে ফ্লাড লাইট। কিন্তু খেলা শুরুর পরেই ফের বৃষ্টির হানায় বন্ধ হয়ে যায় খেলা।

স্কোর: বাংলাদেশ ৪৩ ওভারে ২১২/৭

চোখ রাঙাচ্ছে বৃষ্টি

ইনিংসের মাঝপথে ঘন কালো মেঘে ঢাকা পড়েছিল আকাশ। শেষ দিকে এসে নামলো বৃষ্টি। বন্ধ হয়ে গেল খেলা।

৪১.১ ওভারে বৃষ্টি নামার সময় বাংলাদেশের স্কোর ৭ উইকেটে ১‌৯৬। ১০৬ বলে মুশফিকুর রহিমের রান ৮৫। ১২ বলে ২ রানে খেলছেন মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন।

শূন্য রানে বোল্ড মিরাজ

দ্রুত ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে গেল বাংলাদেশ। ভানিন্দু হাসারাঙ্গার বলে শূন্য রানেই বোল্ড হয়ে গেলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। আগের ম্যাচে ব্যাটিং না পাওয়া এই অলরাউন্ডার ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন লেগ স্পিনারকে। বলের লাইনে যেতে পারেননি মিরাজ, এলোমেলো হয়ে যায় স্টাম্প।

৩৮ ওভারে বাংলাদেশের স্কোর ৭ উইকেটে ১৮৪। ক্রিজে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গী মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন।

টিকলেন না আফিফ

ক্রিজে গিয়েই দুটি চার মেরে আত্মবিশ্বাসী শুরু করেছিলেন আফিফ হোসেন। কিন্তু ইনিংস বড় করতে পারলেন না এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

ইসুরু উদানাকে উড়িয়ে মেরে পাথুম নিসানকার হাতে ধরা পড়েন আফিফ। মিড অন থেকে পিছন দিকে অনেকটা দৌড়ে চমৎকার ক্যাচ নেন ফিল্ডার। ৯ বলে দুই চারে ১০ রান করে ফিরেন আফিফ। মিডল অর্ডার ও লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের নিয়ে দলকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেওয়ার দায়িত্ব এখন মুশফিকুর রহিমের কাঁধে।

৩৭ ওভারে বাংলাদেশের স্কোর ৬ উইকেটে ১৭৯। ৯৫ বলে ৭০ রানে খেলছেন মুশফিক। ক্রিজে তার সঙ্গী মেহেদী হাসান মিরাজ।

সম্ভাবনা দেখিয়ে সাজঘরে মাহমুদউল্লাহ

ক্রিজে থাকা মুশফিকের সঙ্গে দলের হাল ধরেছিলেন মাহমুদউল্লাহ। পঞ্চম উইকেটে গড়েছেন দারুণ জুটি। দুজনের এই জুটি থেকে আসে ১০৮ বলে ৮৭ রান। প্রথম ম্যাচের মতো এই ম্যাচে আর পারলেন না হাফসেঞ্চুরি কর‍তে। সম্ভাবনা দেখিয়ে ৫৮ বলে ৪১ রান করে ফেরেন সাজঘরে।

স্কোর: ৩৪ ওভারে বাংলাদেশ ১৬৬/৫ (আফিফ ৪*, মুশফিক ৫৬*)

মুশফিকের ফিফটিতে এগোচ্ছে টাইগাররা

তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমেই দ্রুত ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ দল। তবে পঞ্চম উইকেট জুটিতে দায়িত্বশীল ব্যাট করতে থাকেন মুশফিকুর রহিম এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এরই সঙ্গে সিরিজে দ্বিতীয় ফিফটি পূর্ণ করেছেন মুশি। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৪০ রান।

ইনিংসের প্রথম ওভারেই ঝড়ো ব্যাটিং শুরু করেন দলীয় অধিনায়ক এবং ওপেনার তামিম ইকবাল। উসুরু উদানার করা প্রথম ওভারেই তুলে নেন ১৫ রান। কিন্তু দ্বিতীয় ওভারেই ছন্দ পতন। দুশমান্থ চামিরার প্রথম বলেই এলবিডব্লিউ আবেদন নাকোচ করে দিলে রিভিউ নেন লঙ্কান অধিনায়ক কুশল পেরেরা। তাতেই প্রথম সফলতা পায় সফরকারীরা। একই ওভারে দ্বিতীয় উইকেটে ব্যাট করতে নামা সাকিব আল হাসানকেও সাজঘরে ফেরান তিনি।

সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ লিটন-মোসাদ্দেক

আগের ম্যাচের বাজে শট কাল হলো মোহাম্মদ মিঠুনের জন্য। একাদশে জায়গা হারান এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। তার জায়গায় সুযোগ পেয়েছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন।

তরুণ এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার সবশেষ ওয়ানডে খেলেন ২০১৯ সালের জুলাইয়ে, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই। তবে সেটি কাজে লাগাতে ব্যর্থ এই টপ অর্ডারও। বাংলাদেশের বিপদ বাড়িয়ে মোসাদ্দেকও ফিরে গেছেন ১০ রানে।

১৭ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারানো বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭৫। আশার বাতি জ্বেলে এখনও টিকে আছেন আগের ম্যাচের নাংক মুশফিকুর রহিম। খেলছেন ২৩ রান নিয়ে।

তাকে সঙ্গ দিতে ক্রিজে এসেছেন আরেক অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এই জুটিতেই আগের ম্যাচে জয়ের ভীত গড়া রান তুলেছিল বাংলাদেশ।

এবারও ব্যর্থ লিটন

রানখরা কাটানোর ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন লিটন দাস। কিন্তু তা রূপ পেল না পূর্ণতার। বাজে শটে আউট হলেন ২৫ রান করে।

বল হাতে নিয়ে প্রথম বলেই সাফল্য পেলেন লাকশান সান্দাক্যান। তবে তা লিটনেরই উপহার।

অফ স্টাম্পের বেশ বাইরে নিরীহ এক লেংথ বলে লিটন কাট করলেন, কিন্তু পা নড়ল না একটুও। পয়েন্টে সহজ ক্যাচ নিলেন ভানিন্দু হাসারাঙ্গা।

৪২ বলে ২৫ রানে আউট লিটন। ৮ ওয়ানডে ইনিংসের মধ্যে এটিই তার সর্বোচ্চ ইনিংস।

মুশফিকের সঙ্গে তার জুটি থামল ৩৪ রানে। বাংলাদেশের বিপদ বাড়ল আরেকটু। ১১.১ ওভারে রান ৩ উইকেটে ৪৯।

শুরুতেই নেই সাকিব-তামিম

প্রথম ওভারে ৩ চারে ভালো শুরুর পর দ্বিতীয় ওভারে দুটি উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তামিম ইকবালের পর এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে যান সাকিব আল হাসান।

মিডল স্টাম্পে থাকা ব্যাক অব লেংথ ডেলিভারি ব্যাটে খেলতে পারেননি সাকিব। সঙ্গে সঙ্গে এলবিডব্লিউর জোরালো আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। লিটন দাসের সঙ্গে কথা বলে রিভিউ না নিয়েই ফিরে যান সাকিব।

বল ট্র্যাকিংয়ে দেখা যায়, মিডল স্টাম্পের উপরের দিকে লাগতো বল। আগের ম্যাচে চার দিয়ে শুরুর পর টাইমিং পেতে ভুগছিলেন সাকিব। এবার টিকলেন কেবল তিন বল।

১০ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪৪। ক্রিজে লিটনের (২২) সঙ্গী আগের ম্যাচের নায়ক মুশফিকুর রহিম (৬)।

এর আগে প্রথম ওভারে তিন চার মেরে দারুণ কিছুর আভাস দিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। তবে রিভিউ নিয়ে বাঁহাতি ওপেনারকে দ্রুতই ফিরিয়ে দিতে পেরেছে শ্রীলঙ্কা।

দুশমন্থ চামিরার লেগ স্টাম্পের বল ফ্লিক করতে গিয়ে ব্যাটে খেলতে পারেননি তামিম। আম্পায়ার জোরালো আবেদনে সাড়া না দিলে রিভিউ নেন লঙ্কান অধিনায়ক। বল ট্র্যাকিংয়ে দেখা যায়, বল লাগতো লেগ স্টাম্পে।

প্রথম ওভারে ১২ রানে জীবন পাওয়া তামিম ফিরেন ৬ বলে ১৩ রান করে।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
 
মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও টস জিতলেন তামিম ইকবাল। আগের ম্যাচের মতো এবারও বাংলাদেশ অধিনায়ক নিলেন ব্যাটিং। তবে ম্যাচ নিয়ে আছে কিছুটা সংশয়। আগের রাতের বৃষ্টির পর আজ মঙ্গলবার সকালেও মিরপুরের আকাশ মেঘে ঢাকা। তবে আছে রোদও। চলছে মেঘ আর রোদের লুকোচুরি। সন্ধ্যায় বৃষ্টির কথা বলা হয়েছে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে।

একাদশে অদল-বদল

একাদশে দুটি পরিবর্তন এনেছে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে কিছুটা খরুচে বল করা তাসকিন আহমেদের জায়গায় ঢুকেছেন বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম। এই ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডেতে অভিষেক হচ্ছে তার। প্রথম ওয়ানডেতে ডাক মারা মোহাম্মদ মিঠুনও জায়গা হারিয়েছেন। তার পরিবর্তে খেলছেন অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

বাংলাদেশ : তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন কুমার দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মোসাদ্দেক হোসেন, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান।

একাদশে কোনো বদল আনেনি শ্রীলঙ্কা। আগের ম্যাচে ৩৩ রানে হেরে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে আছে তারা।

শ্রীলঙ্কা : কুসল পেরেরা (অধিনায়ক), কুসল মেন্ডিস (সহ-অধিনায়ক), দানুশকা গুনাথিলাকা, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা, পাথুম নিসানকা, দাসুন শানাকা, আশেন বান্দারা, ভানিন্দু হাসারাঙ্গা, ইসুরু উদানা, দুশমন্থ চামিরা, লাকসান সান্দাক্যান।

বাংলাদেশের দুই প্রাপ্তির হাতছানি

লঙ্কানরা এই ম্যাচেও হারলে প্রথমবারের মতো তাদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতবে বাংলাদেশ। একই সঙ্গে প্রথমবারের মতো উঠবে আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগের চূড়ায়। দ্বিতীয় ওয়ানডেতেই দুটি লক্ষ্য পূরণ করে ফেলতে চায় বাংলাদেশ।
 
শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের এটি নবম দ্বিপাক্ষিক সিরিজ। ২০১৩ ও ২০১৭ সালে দুটি সিরিজ ড্র হয়, বাকি সবগুলোয় জয় লঙ্কানদের। দ্বিপাক্ষিক সিরিজ ও টুর্নামেন্ট মিলিয়ে এর আগে ২৮টি আসরে মুখোমুখি হয়ে লঙ্কানদের কখনও একাধিকবার হারাতে পারেনি বাংলাদেশ। এবার হাতছানি সেসব অপূর্ণতা ঘুচিয়ে দেওয়ার।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আন্তর্জাতিক ক্রিকেট


আরও
আরও পড়ুন