Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৫ ফাল্গুন ১৪২৫, ১১ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী পাচ্ছে সবুজ টার্ফ

প্রকাশের সময় : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস রিপোর্টার : ২০১৫ সালের ফেব্রæয়ারিতে মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে নীল টার্ফ স্থাপনের পর অনেকটা অবহেলায়, অযতেœই পড়ে ছিল আগের সবুজ টার্ফটি। নীল টার্ফ বসানোর পর হকি ফেডারেশনের সিদ্ধান্ত ছিল পুরোনো সবুজ টার্ফটি দিনাজপুর কিংবা রাজশাহীতে পাঠানো হবে। তবে সেটি না করে তারা টার্ফের কিছু অংশ আরমানিটোলা স্কুলকে দিয়েছে। বাকি অংশ ভাগ করে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীকে দেয়া হচ্ছে বলে হকি ফেডারেশন সূত্রে জানা গেছে।

প্রায় দেড় বছর পর এমন সিদ্ধান্ত কেন? এ প্রশ্নের উত্তরে ফেডারেশনের সহ-সভাপতি খাজা রহমতউল্লাহ বলেন, ‘আমরা সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছিলাম। বাংলাদেশের যেখান থেকে হকি খেলোয়াড় উঠে আসে, সেখানে আমরা টার্ফ দিতে চেয়েছিলাম। জেলা শহরে ঘাসের মাঠে যারা খেলে থাকে তারা টার্ফে খেলে উপকৃত হবে। পরিপক্ব হয়ে তারা ঢাকায় এসে টার্ফে খেলতে পারবে। কিন্তু দেড় বছর অপেক্ষার পর আমরা জানলাম বেসমেন্ট করার জন্য যে টাকার প্রয়োজন সেটি নেই তাদের। আমাদের পক্ষে জেলা শহরের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব নয়। এভাবে পড়ে থাকলে টার্ফটি নষ্ট হয়ে যাবে। তাই সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি কিছু অংশ আরমানিটোলা স্কুলকে দেয়ার। কারণ আরমানিটোলা স্কুল হকির সূতিকাগার হিসেবে পরিচিত। বাকি অংশ দেশের তিন বাহিনীকে ভাগ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তারা নিজেরাই বেসমেন্ট তৈরি করে টার্ফ বসাতে পারবে।’
গতকাল বিকালে বিমান বাহিনীকে দেখা গেছে তাদের অংশের টার্ফ নেয়ার জন্য প্রস্তুতি নিতে। বিমান বাহিনী প্রধান ও হকি ফেডারেশনের সভাপতি এয়ার মার্শাল আবু এসরারের প্রতিনিধি উইং কমান্ডার মঈনুল হক জানান, ‘হকি ফেডারেশন ভাল একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জেলা শহরে দেয়ার জন্য এতদিন অপেক্ষা করা হয়েছে। কিন্তু তারা অপারগতা প্রকাশ করলে জিবি সভায় তিন বাহিনীকে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এমনিতেই অনেক দিন ধরে পড়ে আছে টার্ফটি। আর দেরি করতে চাচ্ছি না বলে এগুলো নিয়ে যাচ্ছি আমরা। তাছাড়া ক’দিন পরেই জুনিয়র এশিয়া কাপ। মাঠের কিনারে পুরনো টার্ফ পড়ে থাকলে খারাপ দেখা যায়। আমরা বিমান বাহিনীতে ৫০ মিটারের টার্ফ বসাবো। যেটা ফাইভ-এ সাইড হকির জন্য উপযুক্ত হবে। অন্তত পক্ষে আন্তঃবাহিনীর ফাইভ-এ সাইড খেলাগুলো বিমান বাহিনীর এই টার্ফেই আয়োজন করা সম্ভব হবে। সেনাবাহিনীও টার্ফ বসিয়ে ডি বক্সের (২৩ মিটার এরিয়া) প্র্যাকটিস করতে পারবে।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সেনা

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ