Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৯ আষাঢ় ১৪২৮, ১১ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

এনটিআরসিএ’র নিবন্ধিত প্রার্থী নিয়োগে বাঁধা নেই

৫৪ হাজার প্রার্থীর বিষয়ে হাইকোর্টের আদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম

‘নন-গভর্ণমেন্ট টিচার্স রেজিস্ট্রেশন অ্যান্ড সার্টিফায়েড অথরিটি (এনটিআরসিএ)’র নিবন্ধিত ৫৪ হাজার প্রার্থীর শিক্ষক হিসেবে নিয়োগের বাঁধা অপসারিত হয়েছে। গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত করে দেয়া আদেশ সংশোধন করে হাইকোর্টের আদেশ প্রদানের মধ্যদিয়ে এ অন্তরায় দূর হলো। ইতিপূর্বে এনটিআরসিএ’র জারিকৃত তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এমপিওভুক্ত এবং নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের কার্যক্রম স্থগিত করে দেয়।
এ আদেশ মোডিফাই করে গতকাল সোমবার আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে এনটিআরসিএ কর্তৃক প্রথম থেকে ১২তম নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ আড়াই হাজার চাকরিপ্রার্থীকে এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের সুপারিশের জন্য চার সপ্তাহ সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। এনটিআরসিএ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগের নিষ্পত্তির মাধ্যমে উপরোক্ত আদেশ দেন আদালত।
বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন রিটকারীদের পক্ষের আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। বিচারপতি মামনুন রহমান এবং বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের ভার্চুয়াল ডিভিশন বেঞ্চ এ আদেশ দিয়েছেন বলে জানান তিনি।
প্রসঙ্গত, গত বছর ১৫ ডিসেম্বর এনটিআরসিএ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন হাইকোর্ট। আদালত অবমাননার বিষয়টি নিষ্পত্তি না করে শিক্ষক নিয়োগে এনটিআরসিএ কোনো বিজ্ঞপ্তি দিতে পারবে না বলেও আদেশে উল্লেখ করা হয়।
এরও আগে ২০১৭ সালের ১৪ ডিসেম্বর হাইকোর্ট একটি রায় দেন। ওই রায়ে কয়েক দফা নির্দেশনা ছিল। তার মধ্যে একটি ছিল সম্মিলিত মেধা তালিকা অনুযায়ী রিট পিটিশনারদের জন্য সুপারিশ করবে এনটিআরসিএ।
কিন্তু অনেক সময় পার হলেও রায় বাস্তবায়ন না করায় রিট পিটিশনারগণ আদালত অবমাননার আবেদন করেন। এ আবেদনের শুনানি নিয়ে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সনদধারীদের মধ্যে রিটকারী প্রায় দেড় হাজার জনকে এক সপ্তাহের মধ্যে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হাইকোর্টের আদেশ


আরও
আরও পড়ুন