Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৩ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

অধ্যক্ষ ও হোস্টেল সুপারকে বরখাস্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

এমসি কলেজে গৃহবধূ ধর্ষণ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম

সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে নববধূ গণধর্ষণের ঘটনায় ‘দায়িত্বে অবেহলা’র দায়ের কলেজ অধ্যক্ষ এবং হোস্টেল সুপারকে সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া এবং বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার ডিভিশন বেঞ্চ ইতিপূর্বে জারিকৃত রুল চূড়ান্ত করে এ নির্দেশ দেন। রিটের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মিসবাহ উদ্দিন। সরকারপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী।

গতবছর ২৯ সেপ্টেম্বর এমসি কলেজে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় কলেজ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে তাদের বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে না- এই মর্মে রুল জারি করে ছিলেন একই আদালত। সেই সঙ্গে ওই ঘটনার অনুসন্ধানে যৌথ কমিটি গঠন করে দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। চার সদস্যের অনুসন্ধান কমিটিতে ছিলেন, সিলেটের জেলা ও দায়রা জজ মো. বজলুর রহমান, অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মমিনুন নেসা, চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবুল কাশেম ও সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শারমিন সুলতানা। এ কমিটি হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করে। এতে বলা হয়, সিলেটের এমসি কলেজে গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় হোস্টেল সুপার ও প্রহরীদের দায়িত্বে অবহেলা ছিল। তাই প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে এমসি কলেজের অধ্যক্ষও কোনোভাবেই ওই ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না। ধর্ষণের পেছনে মূলত হোস্টেলের বর্তমান তত্ত্বাবধায়করা, হোস্টেলের মূলগেটের ডে-গার্ড, ৫ নম্বর ব্লকের ডে-গার্ড ও নাইট গার্ড (নৈশ প্রহরী) এবং ৭ নম্বর ব্লকের ডে-গার্ড ও নাইট গার্ডের দায়িত্বে অবহেলা ছিল।

প্রসঙ্গত : গত বছর ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গণধর্ষণের শিকার হন স্বামীর সঙ্গে ঘুরতে যাওয়া গৃহবধূ। পুলিশ ধর্ষণের শিকার ওই নারীকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে ওসিসিতে ৩ দিন চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে যান তিনি। ওই রাতেই ধর্ষণের শিকার গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে মহানগরের শাহপরান থানায় ৬ ছাত্রলীগকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। আসামিরা হলেন, এম. সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেক আহমদ, অর্জুন লঙ্কর, রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান। তারা সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। আসামিদের মধ্যে তারেক ও রবিউল বহিরাগত, বাকিরা এমসি কলেজের ছাত্র।

এ ঘটনার পর সিলেটসহ সারা দেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আসামিদের ধরতে বিভিন্ন স্থানে অভিযানে চালায়। র‌্যাব-৯ ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ৪ জনকে গ্রেফতার করে। এছাড়া সিলেট জেলা পুলিশ দুজনকে, সুনামগগঞ্জ ও হবিগঞ্জ পুলিশ দুজনকে গ্রেফতার করে।
গ্রেফতারের পর ৮ আসামিকে পর্যায়ক্রমে পাঁচদিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। রিমান্ড শেষে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন তারা। জবানবন্দিতে প্রধান আসামি সাইফুর তারেক, রনি ও অর্জুন ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ধর্ষণ

৩ আগস্ট, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন