Inqilab Logo

সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮, ২২ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ভ্যাট কমানোর দাবি রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ীদের

ভ্যাটের হার বেশি হওয়ায় অনেকে ফাঁকি দিচ্ছেন, অভিযানের নামে হয়রানি করা হচ্ছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ জুন, ২০২১, ৬:০৮ পিএম

সব রেস্তোরাঁয় ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে শ্রেণী ভিত্তিক ভ্যাট আরোপের দাবি জানিয়েছে হোটেল রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ীরা। সেক্ষেত্রে চার ও পাঁচ তারকা হোটেল-রেস্তোরাঁর ভ্যাটের হার ১৫ শতাংশ রেখে বিদেশী খাবার বিক্রেতাদের সর্বোচ্চ সাড়ে ৭ শতাংশ এবং নিম্ন ও মাঝারী মানের রেস্তোরাঁ এবং স্ট্রিট ফুডের জন্য ভ্যাটের হার সর্বোচ্চ ৩ থেকে ৫ শতাংশের মধ্যে রাখার দাবি জানানো হয়েছে। শনিবার (১২ জুন) বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাকক্ষে প্রস্তাবিত বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

এ সময় সমিতির সভাপতি ওসমান গনি, মহাসচিব ইমরান হাসান, যুগ্ম-মহাসচিব ফিরোজ আলম সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ মোহাম্মদ আন্দালিব, উপদেষ্টা খন্দকার রুহুল আমিনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্যান্টিন বা ক্যাফেটেরিয়া, শিল্পকারখানার ক্যান্টিন ও হোস্টেলের খাবারের উপরে ভ্যাটের হার সর্বোচ্চ ২ শতাংশ নির্ধারণের দাবি জানানো হয়।

মহাসচিব ইমরান হাসান বলেন, দেশে বিভিন্ন শ্রেণীর হোটেল রেস্তোরাঁ রয়েছে। তাদের ব্যবসায়িক পরিধিও একেক রকম। কিন্তু সার্বিকভাবে ১৫ শতাংশ ভ্যাট যুক্তিযুক্ত নয়। ভ্যাটের হার বেশি হওয়াতে অনেকে ভ্যাট ফাঁকি দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, যারা নিয়মিত ভ্যাট দিচ্ছেন, তারা বিপদে পড়ছেন বেশি। তাদের খাবারের দাম বেশি হওয়ায়, যারা ভ্যাট দিচ্ছে না তাদের সঙ্গে অসম প্রতিযোগিতার তৈরি হচ্ছে। অন্যদিকে এ কারণে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে। সঠিক হারে ভ্যাট নির্ধারণ করে এ খাত থেকে দুই হাজার ৩০০ কোটি টাকা ভ্যাট আদায় করা সম্ভব।

ভ্যাট কমানোর পাশাপাশি রেস্তোরাঁগুলোকে একটি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষরে আওতায় নেয়া এবং শিল্পের মর্যাদার দাবি জানিয়ে বলা হয়, সরকারের ১৩ টি সংস্থা রেস্তোরাঁগুলোকে পরিচালনা করছে। ব্যবসা পরিচালনার জন্য এতো সংস্থার সাথে সমন্বয় করতে হয়। লাইসেন্স নিতে হয়। এতে ভোগান্তি ও ব্যবসা শুরু করতে প্রচুর খরচ হয়। সকল হোটেল রেস্তোরাঁকে একটি সংস্থার আওতায় নিয়ে আনার দাবি করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

এছাড়া বলা হয়, হোটেল রেস্তোরা খাতকে শিল্প মর্যাদা না দেওয়াই কারণে বিদ্যুৎ গ্যাস পানির জন্য অধিক বিল বহন করতে হচ্ছে। যাতে খাবারের দাম বেড়ে যাচ্ছে। ব্যাংক ঋণ সহ অন্যান্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উদ্যোক্তারা।

হোটেল রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ীরা সম্পূরক কর ১০ শতাংশ বাতিল এবং চালুকৃত টেকওয়ে, পার্সেল ও অনলাইন ডেলিভারির ক্ষেত্রে বহির্বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ কমিশন নির্ধারণ এবং একটি সুষ্ঠু নীতিমালা প্রণয়ন পূর্বক তাদের নিয়ন্ত্রণ করার দাবি জানানো হয়।

সভাপতি ওসমান গনি বলেন, বর্তমানে অনলাইন ডেলিভারি সার্ভিসগুলো স্বেচ্ছাচারীভাবে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। তা এই হোটেল রেস্তোরাঁ খাতকে আরো ঝুঁকিতে ফেলছে। তাদের কারণে এ খাতের সুনাম নষ্ট হচ্ছে। পাশাপাশি তারা বড়দের প্রমোশন করায় ছোটরা পিছিয়ে পড়ছে।

এদিকে করোনা সংকট মোকাবেলায় হোটেল রেস্তোরাঁ খাতের কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকে ছয় মাসের প্রণোদনা চাওয়া হয়। করোনার সময় অর্ধেক শ্রমিক চাকরি হারিয়েছে জানিয়ে তাদের মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে প্রণোদনা প্রদান অথবা চলতি বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত কর্মচারীদের করোনাকালীন মাসিক খাদ্য সহায়তা প্রদান করতে বলা হয়েছে।

স¤প্রতি বিভিন্ন রেস্তোরাঁকে জরিমানার প্রসঙ্গ তুলে ইমরান হাসান বলেন, আমরা মোবাইল কোর্টের বিপক্ষে নয়। তবে মোবাইল কোর্টেও প্রক্রিয়া নিয়ে সমস্যা রয়েছে। এতে শুধু জরিমানায় হচ্ছে, কোনো সমাধান হচ্ছে না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অযৌক্তিকভাবে জরিমানা করা হচ্ছে। যা রেস্তোরাঁ মালিকদের সঙ্গে একটি প্রহসন।

তিনি বলেন, এখনো পর্যন্ত যে সকল হোটেল রেস্টুরেন্ট ই.এফ.ডি মেশিন স্থাপন করা হয়নি, সেগুলোতে মেশিন স্থাপনের পরে একযোগে তা চালু করতে হবে। অন্যথায় ই.সি.আর মেশিন এর মত ব্যর্থ হবে এ কার্যক্রমও। ইতিমধ্য ই.এফ.ডি মেশিন স্থাপনকারী প্রতিষ্ঠানে উপর্যুপরি মামলা করা হচ্ছে। যাতে এ মেশিন গ্রহণে সকলের অনীহা সৃষ্টি হচ্ছে।

ভ্যাট আদায়ে হয়রানি বন্ধের দাবি জানিয়ে বলা হয়, তৃতীয় পক্ষের ভাড়া করা লোকের মাধ্যমে ভ্যাট আদায়ের নামে হয়রানী করা হচ্ছে। ভ্যাট কর্মকর্তাদের অসৌজন্য ও হয়রানিমূলক আচরণ বন্ধে সরকার প্রধানের কাছে আমাদের বিনীত আবেদন থাকছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতীয় বাজেট


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ