Inqilab Logo

সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮, ২২ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

পুলিশসহ আহত ৮

মাদারীপুরে হামলা-ভাঙচুর

স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুর থেকে : | প্রকাশের সময় : ১৩ জুন, ২০২১, ১২:০১ এএম

মাদারীপুরের ঘটকচর এলাকায় গতকাল আওয়ামী লীগের বিরাজমান এক গ্রুপের অতর্কিত হামলায় কেন্দুয়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সোহরাব হোসেন সর্দারের মার্কেটে ব্যাপক তান্ডব চালিয়েছে বিক্ষুব্ধরা। এসময় মার্কেটে অবস্থিত দুইটি ব্যাংকের শাখা, ৭টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, প্রায় ১৫টি মোটরসাইকেলে ভাঙচুর চালানো হয়। এতে সদর থানা পুলিশ, নারী ও শিশুসহ অন্তত ৮ জন আহত হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সম্প্রতি মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন আহম্মেদ মোল্লার দেয়া একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে আ.লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খান গ্রুপের লোকজনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল সকালে সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের কলাবাড়ী এলাকায় পক্ষে-বিপক্ষে বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ করার চেষ্টা করেন। এসময় দুই গ্রুপের লোকজন উত্তেজিত হয়ে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক অবরোধ করলে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
তবে শাজাহান খান গ্রুপের লোকজন কলাবাড়ী থেকে মাদারীপুর শহরে আসার পথে ঘটকচর এলাকায় ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সোহরাব হোসেন সর্দারের ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান সর্দার মার্কেটে হামলা চালায়। এসময় মার্কেটে অবস্থিত কৃষি ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংকের দুটি শাখা, রেখা বিউটি পার্লার, একটি হোটেলে ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। এছাড়াও মার্কেটের প্রায় ৭টি ছোট-বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও ১৫টি মোটরসাইকেল ভেঙে ফেলেন বিক্ষুব্ধরা। পরে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় পুলিশ, নারী ও শিশুসহ অন্তত ৮ জন আহত হয়েছে।
সোহরাব হোসেন সর্দার জানান, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রুবেল খান, এমপি পুত্র আসিবুর রহমান খান ও কেন্দুয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি জয়নাল মাতুব্বরের লোকজন প্রায় শ’খানেক মোটরসাইকেল নিয়ে আমার মার্কেটে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে অপরাধীদের বিরুদ্ধে মামলা করবো। স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি আ.লীগের সাথে ভর দিয়ে আমাদের ক্ষতি করছে। আমি কঠোর বিচার দাবি করছি।
অভিযোগের বিষয়ে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রুবেল খান বলেন, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত, তিন বারের সাবেক সংসদ সদস্য মৌলভী আসমত আলী খানকে নিয়ে শাহাবুদ্দিন আহম্মেদ মোল্লা যে কটুক্তিমূলক বক্তব্য দিয়েছে, তারই প্রতিবাদে গতকাল আমাদের নির্ধারিত প্রতিবাদ সভা ছিল কলাবাড়ী। সেখানে শাহাবুদ্দিন আহম্মেদ মোল্লার লোকজন আমাদের সাথে ইচ্ছে করে বিরোধে জড়িয়েছে। এতে আমাদের কিছুই করার নেই। বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনাও ঘটেছে।
আইনশৃঙ্খলার বিষয়ে মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এহসানুর রহমান ভূইয়া জানান, বিরাজমান দুই গ্রুপের বিক্ষোভ সমাবেশকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলেও বিক্ষুব্ধরা দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর করেছে। যা কয়েকটি সিসিটিভি দেখে শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি।
উল্লেখ্য, গত ২৫ মে রাজৈরে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন মোল্লা মুক্তিযোদ্ধা আছমত আলী খানের মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা নিয়ে কটূক্তি করেন। শাহাবুদ্দিন মোল্লার এই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে পক্ষে-বিপক্ষে প্রতিবাদ হচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হামলা-ভাঙচুর

১৩ জুন, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ