Inqilab Logo

বুধবার, ০৪ আগস্ট ২০২১, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৪ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

বাজেটের ৬০ শতাংশ বরাদ্দ তরুণদের কাজে লাগে না

সানেম ও অ্যাকশন এইডের ভার্চুয়াল সভায় তথ্য

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৩ জুন, ২০২১, ৬:৩০ পিএম

২২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ তরুণদের উন্নয়নের জন্য জড়িত। আগামী অর্থবছরের (২০২১-২২) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) এসব মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোতে যে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে, এর মধ্যে মাত্র ১৪ শতাংশ সরাসরি তরুণদের কেন্দ্র করে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যদিও ৬০ শতাংশ বরাদ্দ তরুণদের কাজে লাগে না। আর বাকি ২৬ শতাংশ বরাদ্দ আংশিকভাবে তরুণদের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে ১২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বরাদ্দে তরুণদের জন্য কোনো বরাদ্দ নেই। এর মধ্যে অন্যতম হলো প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, তথ্য ও যোগাযোগ বিভাগ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়।

রোববার (১৩ জুন) সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম) ও অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ যৌথভাবে ‘তরুণদের প্রেক্ষাপটে বাজেট’ বিষয়ে আলোচনা সভার মূল প্রবন্ধে এসব তথ্য দেয়া হয়। অনলাইনে অনুষ্ঠিত এ সভায় সানেমের গবেষক ইশরাত শারমীন এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। সভাপতিত্ব করেন অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির। সঞ্চালনা করেন সানেমের গবেষণা পরিচালক সায়মা হক। এ আলোচনায় অর্থনীতিবিদ, তরুণ, বেসরকারি উন্নয়নকর্মী, সরকারি কর্মকর্তারা অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে সানেমের নির্বাহী পরিচালক সেলিম রায়হান বলেন, বাজেটে তরুণদের জন্য বরাদ্দ বেশ কম। এবারের কোভিড পরিস্থিতিতে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কর্মসংস্থান, বিনিয়োগÑএসব খাতে উদ্যোগের ঘাটতি আছে। জনমিতির সুবিধা (জনসংখ্যার অনুপাতে তরুণ জনগোষ্ঠী সবচেয়ে বেশি) কাজে লাগাতে হবে। তা না হলে কথা বলতে বলতেই সময় ফুরিয়ে যাবে। সাংসদ নাহিম রাজ্জাক বলেন, দুঃখজনক হলেও তরুণদের জন্য অনেক ভালো উদ্যোগে বাস্তবায়নের ঘাটতি আছে। তরুণদের যে শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে, তা কি শ্রমবাজারের সঙ্গে সম্পৃক্ত?

অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির বলেন, সরকার মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির ওপর জোর দিচ্ছে। কিন্তু তরুণদের ছাড়া কীভাবে এত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব? তাই তরুণদের তথ্য প্রযুক্তি খাতে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করতে পারলে কর্মসংস্থান বাড়বে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হাসানুল ইসলাম বলেন, কোভিডের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত তরুণসমাজ। বিশেষ করে বস্তি এলাকার অনেকে শিক্ষার্থী পড়াশোনা ছেড়েছেন। এখনো জানি না, কত শতাংশ শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছেন। যখন স্কুল-কলেজ খুলবে, তখন তা বোঝা যাবে।

করোনাকালীন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের গুরুত্ব অনেক বেশি। করোনার কারণে দরিদ্র পরিবারের তরুণেরা ভুগছেন। অনেকে কাজ হারিয়েছেন। এমন তরুণদের নিয়ে কী করছে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়। তিনি বলেন, করোনার কারণে অনেক শিক্ষার্থী ঝরে পড়ছে। কারা ঝরে পড়ছে, তা চিহ্নিত করতে হবে। এগ্রো ভেঞ্চারসের পরিচালক ও তরুণ উদ্যোক্তা ফারদিন ফেরদৌস আলম বলেন, বাজেটে তরুণদের জন্য আলাদা কোনো পরিকল্পনা নেই। দীর্ঘ মেয়াদে সহায়তা করবে, এমন কিছু উদ্যোগ আছে। কিন্তু করোনার সময়ে পরিস্থিতি মোকাবিলায় স্বল্পমেয়াদি কোনো উদ্যোগ নেই। প্রণোদনা প্যাকেজ থেকেও তরুণেরা তেমন কিছু পাননি। তাই সরকারের উদ্যোগের জন্য অপেক্ষা না করে বিদেশি দাতা সংস্থা থেকে অর্থ আনার জন্য তরুণদের প্রতি পরামর্শ দেন তিনি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন