Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৫ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

পাকিস্তান-ভারতের সাম্প্রতিক বিবৃতিতে হিমায়িত সম্পর্কে উন্নতির ইঙ্গিত

শান্তির অনিশ্চিত পথ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৪ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১২:১৪ এএম, ১৪ জুন, ২০২১

পাকিস্তানের নাগরিক ও সামরিক নেতাদের সাম্প্রতিক বিবৃতি ইঙ্গিত দেয় যে, দু’দেশের মধ্যে চরম জ্বালাময়ী বাক-বিতর্ক চলাকালে ভারতের সাথে হিমায়িত সম্পর্কের ক্ষেত্রে নতুন করে চাপ বাড়ছে। সর্বশেষ বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান চলতি মাসের শুরুর দিকে রয়টার্স বার্তা সংস্থাকে বলেছেন যে, ভারতীয় অবৈধভাবে দখলকৃত জম্মু ও কাশ্মীরের পূর্বের অবস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য দিল্লি যদি রোডম্যাপ দেয় তবে পাকিস্তান আলোচনা শুরু করতে প্রস্তুত। তিনি বলেন, ‘যদি কোনও রোডম্যাপ থাকে, তবে হ্যাঁ, আমরা কথা বলব’। প্রায় দুই বছর আগে অধিকৃত কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন প্রত্যাহার করার পর থেকে পাকিস্তান যে অবস্থান গ্রহণ করে তা পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেয়। এর আগে, পিটিআই সরকার জোর দিয়ে বলেছিল যে, ভারতে যে কোনো স্বাভাবিকীকরণের জন্য প্রথমে অধিকৃত কাশ্মীরে তার ২০১৯ সালে গৃহীত পদক্ষেপগুলো পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে আনতে হবে।

খানের বক্তব্য তাৎপর্যপূর্ণ বা অবাক হওয়ার মতো ছিল না। সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া ফেব্রুয়ারির গোড়ার দিকে এ প্রস্তাব এনেছিলেন যখন তিনি বলেন যে, পাকিস্তান পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের আদর্শে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং ‘সব দিক থেকে শান্তির হাত বাড়িয়ে দেয়ার সময় এসেছে’। কয়েক দিন পর, দুই সেনাবাহিনীর ডিজিএমও অবাক করা এক বিবৃতি দিয়ে কয়েক মাসের সীমান্ত সংঘর্ষের পর ২০০৩ সালের যুদ্ধবিরতি চুক্তিকে সম্মান করার এক বিরল যৌথ প্রতিশ্রুতি দেয়। তারা ‘নিয়ন্ত্রণ চুক্তি নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলওসি) ধরে সমস্ত চুক্তি, বোঝাপড়া ও গুলি চালানো বন্ধ করতে’ এবং শান্তি বিঘ্নিত হওয়ার প্রবণতা রয়েছে এমন একে অপরের উদ্বেগ নিরসনে সম্মত হয়।

বন্দুক ততক্ষণে থেমে গেছে এবং সেই থেকে যুদ্ধবিরতি কার্যকর রয়েছে। শান্তির আরও পদক্ষেপে জেনারেল বাজওয়া আরো একটি সম্মিলিত পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। তিনি এ বছরের মার্চ মাসে পাকিস্তানের প্রথমবারের সুরক্ষা সংলাপে বলেছিলেন, পূর্ব ও পশ্চিম এশিয়ার মধ্যে যোগাযোগ নিশ্চিত করে দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার সম্ভাবনা আনলক করার চাবিকাঠি স্থিতিশীল পাকিস্তান-ভারত সম্পর্ক। তিনি বলেন, ‘তবে এ সম্ভাবনা দুটি পারমাণবিক প্রতিবেশীর মধ্যে বিরোধ এবং ইস্যুতে চিরকাল জিম্মি থেকেছে। কাশ্মীর বিরোধ স্পষ্টতই এ সমস্যার শীর্ষে রয়েছে’।

আরেকটি বিস্ময়কর ঘটনা : দু’দেশের মধ্যে সিন্ধু নদীর পানি ব্যবহারের বিষয়ে আলোচনা পুনরায় শুরু হয়। সিন্ধু পানিচুক্তির আওতায় চীনব নদীর তীরে ভারতের পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের নকশায় পাকিস্তানের আপত্তিসহ বকেয়া ইস্যুগুলো প্রকাশে দুই বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে প্রথমবারের মতো কর্মকর্তারা বৈঠকে মিলিত হন।

দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে চিঠি আদান-প্রদান উত্তেজনা আরো কমিয়ে দেয়। ‘ভারত পাকিস্তানের জনগণের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক চায়। এ জন্য সন্ত্রাস ও শত্রুতাবিহীন আস্থার পরিবেশ অপরিহার্য’, মোদি পাকিস্তান দিবস উপলক্ষে তার প্রতিপক্ষকে একটি চিঠিতে লিখেছিলেন। খান প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, পাকিস্তানও শান্তি চায়, তবে সব অসামান্য বিষয় সমাধানের জন্য গঠনমূলক ও ফলাফল-ভিত্তিক আলোচনার জন্য একটি ‘সক্ষম পরিবেশ’ তৈরি করা জরুরি।

ভারতীয় গণমাধ্যমের মতে, এটি ছিল তৃতীয় দেশে কমপক্ষে একটি মুখোমুখি বৈঠকসহ দুই দেশের শীর্ষস্থানীয় জাতীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের মধ্যে কয়েক মাসের বহিরাগত মধ্যস্থতা, ব্যাকচ্যানেল কথোপকথনের ফল। পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মঈদ ইউসুফ অবশ্য প্রতিবেদনটি দ্রুত বাতিল করে দিয়েছিলেন।
ভারতীয় মিডিয়া মধ্যস্থতাকারীর নাম বলেনি। তবে পশ্চিমা একটি সংবাদ সংস্থা প্রকাশ করেছে যে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের শাসকরা দিল্লি ও ইসলামাবাদের মধ্যে ব্রিজ-বিল্ডিংয়ের চেষ্টা করছে। এক মাস পরে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি আলোচনায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত ইউসেফ আল ওতাইবা বিষয়টি নিশ্চিত করেন। ‘সংযুক্ত আরব আমিরাত কাশ্মীরের উত্তেজনা হ্রাস এবং যুদ্ধবিরতিতে ভূমিকা রেখেছে’।

রাষ্ট্রদূত ওতাইবার প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায় যে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যস্থতায় শান্তির রোডম্যাপের অধীনে বিভিন্ন ক্রিয়াকলাপের কোরিওগ্রাফ করা হয়। পরবর্তী পদক্ষেপে দু’দেশের মোদির অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীর সিদ্ধান্তের পর পাকিস্তানের বিচ্ছিন্ন করা কূটনৈতিক সম্পর্ক পুনরুদ্ধারের কথা রয়েছে। এবং এর ফলে বাণিজ্য পুনরায় শুরু করা এবং কাশ্মীরের বিরোধ সমাধানের বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

তবে ভারতের সাথে বাণিজ্য ফিরিয়ে আনার এক পাকিস্তানি পদক্ষেপ ব্যর্থ হয়েছে। অর্থনৈতিক সমন্বয় কমিটি অনুমোদনের কয়েক দিন পর পিটিআই সরকারকে ভারত থেকে চিনি, তুলা ও গম আমদানির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে হয়েছিল। সরকারের পদক্ষেপ বিরোধী দলগুলোর কঠোর সমালোচনায় পড়েছিল।
পাকিস্তান সর্বদা ভারতের সাথে বিরোধ নিষ্পত্তি করতে তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্থতাকে স্বাগত জানিয়েছে। একাত্তরের সিমলা চুক্তি স্বাক্ষরের পর থেকে দিল্লি বিষয়টি এড়িয়ে এসেছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যস্থতায় মোদি প্রশাসনের স্বাচ্ছন্দ্য তার নীতিতে একটি দৃষ্টান্ত বদলের ইঙ্গিত যার পেছনে থাকতে পারে বেশ কয়েকটি কারণ।

প্রথমত, প্রধানমন্ত্রী খান মোদিকে হিটলারের ভার্চুয়াল পুনর্জন্ম এবং তার ফ্যাসিবাদী বিজেপিকে নাৎসি পার্টি রিডেক্স হিসাবে চিত্রিত করতে সোচ্চার বিশ্বব্যাপী প্রচার শুরু করেছিলেন। খানের প্রচারটি বিশ্বব্যাপী গুরুত্ব লাভ করে এবং বিজেপির বিভাজনমূলক রাজনীতি এবং মোদির স্বৈরাচারী শাসন নিয়ে পশ্চিমা গণমাধ্যমে বিতর্ক সৃষ্টি করেছিল। নিরলস অভিযানে বিচ্ছিন্ন ভারত। মোদি পাকিস্তানের সাথে সম্পর্ক পুনঃস্থাপনে জোর দিয়েছিলেন- যদিও জনসমক্ষে নয়।

দ্বিতীয়ত, করোনাভাইরাসের প্রকোপ এবং এটি ভারতে যে অর্থনৈতিক মন্দা সৃষ্টি করেছে তা মোদির জনপ্রিয়তায় ধস নামিয়েছে, যিনি নিজেকে রাজনৈতিকভাবে অজেয় হিসাবে চিত্রিত করার চেষ্টা করেছিলেন। মারাত্মক সংক্রমণের ভয়াবহ প্রসারে মোদির মহাকাব্যিক ব্যর্থতা রাজনীতিবিদদের তার জনপ্রিয়তা হ্রাসে প্ররোচিত করেছে। এহেন পরিস্থিতি মোদিকে তার ডুবতে থাকা রাজনৈতিক ভাগ্য বাঁচাতে পাকিস্তানের প্রতি বৈরিতা পরিত্যাগে বাধ্য করেছিল।

তৃতীয়ত, ভারত বিশ্বাস করে যে, তার প্রাথমিক উদ্বেগ চীন, বিশেষত গত বছর লাদাখের বিরোধপূর্ণ সীমান্তে একটি মারাত্মক সামরিক লড়াইয়ের পর। যদিও উভয় পক্ষই আংশিক প্রত্যাহারে সম্মত হয়েছে, তবুও তাদের সেনা এখনও অঞ্চলে একাধিক স্থানে অবস্থান নিয়ে রয়েছে। এখনো মহামােিত বিধ্বস্ত মোদি’র ভারত জানে যে, একই সাথে দুটি পরমণু-সমৃদ্ধ প্রতিপক্ষের সাথে সীমান্ত উত্তেজনা বাড়িয়ে তোলা তার পক্ষে খারাপ। চীনের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা জোরদার করার জন্য সময় ও সংগৃহীত সংস্থানগুলো সুরক্ষিত করার জন্য পাকিস্তানের সাথে বৈরিতা ত্যাগ করতে হবে।

চতুর্থত, মোদি প্রশাসন নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছিলেন যে, আফগান এন্ডগেম আবারও পাকিস্তানকে আমেরিকার স্পটলাইটে ফিরিয়ে নিয়েছে। পাকিস্তান কেবল সুশৃঙ্খল মার্কিন প্রত্যাহারের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ নয়, ভবিষ্যতের পেন্টাগনেরও নিশ্চিত করার পরিকল্পনা রয়েছে যে, আফগানিস্তান আবারও সন্ত্রাসের সূচনা-প্যাডে পরিণত হবে না। বিশ্বব্যাপীও, পাকিস্তান সাফল্যের সাথে নিজেকে একটি আঞ্চলিক শান্তির প্রতীভূ হিসাবে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেছে। মোদি প্রশাসন কেবলমাত্র যুক্তরাষ্ট্রের যে কোনও চাপ রোধেই ইসলামাবাদের সাথে পুনর্বাসনে সম্মত হতে পারে।

অন্যদিকে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী, যাকে দেশটির পররাষ্ট্রনীতির স্থপতি হিসাবে বহুলভাবে বিবেচনা করা হয়, এটি দৃশ্যতঃ পাকিস্তান ভূ-রাজনীতি থেকে ভূ-অর্থনীতিতে দৃষ্টান্ত বদলে দিয়েছে। বাজওয়া মতবাদ ২০২১ আমাদের নিজস্ব ঘরকে যথাযথভাবে স্থাপন, আঞ্চলিক শান্তি প্রতিষ্ঠা, অন্তঃ-আঞ্চলিক বাণিজ্য বাড়ানো এবং সংযোগ বাড়ানোর কল্পনা করেছে। এ মতবাদের সাথে সামঞ্জস্য রেখে পাকিস্তান আফগানিস্তানের কৌশলগত গভীরতার দিকে এগিয়ে যাওয়ার বহু দশক পুরাতন নীতি প্রকাশ্যে ত্যাগ করেছে। রয়টার্সের সাক্ষাৎকারে জনাব খান বলেছিলেন, ‘জনগণের দ্বারা নির্বাচিত যে কোনো আফগান সরকারই পাকিস্তানের সাথে মোকাবেলা করা উচিত’। ‘পাকিস্তানের আফগানিস্তানে কোনো হেরফের করার চেষ্টা করা উচিত নয়’।

দিল্লি নিয়মিতভাবে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীকে রাজনৈতিক সরকারগুলোর বারবার শান্তির প্রচেষ্টায় বিঘ্ন ঘটানোর জন্য অভিযুক্ত করে আসছে। যাইহোক, প্রধানমন্ত্রী খান এবং জেনারেল বাজওয়ার বক্তব্যগুলো দেখায় যে, এ মুহূর্তে নাগরিক ও সামরিক নেতৃত্ব ভারতের বিষয়ে একই মতে রয়েছেন। মোদি প্রশাসন যদি আরো উপ-মহাদেশীয় ভালোর জন্য পাকিস্তানের সাথে শান্তি স্থাপনে সত্যই বিশ্বাস করে, তবে সুযোগটি কাজে লাগাতে হবে।
তবে, ভারতের রাজনৈতিক নেতৃত্বের কাছ থেকে শান্তির জন্য পাকিস্তানের ক্রমবর্ধমান আহ্বানগুলোর কোনও প্রকাশ্য সাফল্য পাওয়া যায়নি। তাদের সেনাপ্রধান জেনারেল নারাভানের একমাত্র বিবৃতি এসেছিল, তিনি স্বীকার করেছেন যে, গত তিন মাস ধরে যুদ্ধবিরতি অনুষ্ঠিত হওয়া শান্তি ও সুরক্ষার অনুভূতিতে ভূমিকা রেখেছে। তিনি এটিকে ‘স্বাভাবিককরণের দীর্ঘ সড়কের প্রথম পদক্ষেপ’ বলে অভিহিত করেছেন। তবে একই নিঃশ্বাসে তিনি বলেন যে, পাকিস্তানের সেনাবাহিনী তাদের নিয়ন্ত্রণ রেখার পক্ষের ‘সন্ত্রাসের অবকাঠামো’ ভেঙে দিয়েছে বিশ্বাস করার কোনও কারণ নেই। তবে এমন অভিযোগ পাকিস্তানের সেনাবাহিনী অস্বীকার করেছে। জেনারেল নারাভান বিশ্বাস করেন যে, পাকিস্তান পূর্ব সীমান্তে এমন এক সময় উত্তেজনা বাড়িয়ে দিতে রাজি নয় যখন বিদেশি সেনারা আফগানিস্তান থেকে বেরিয়ে আসছে, যা এই সঙ্ঘাতের মধ্যে পাকিস্তানকে ঠেলে দেয়ার সম্ভাবনা নিয়ে মারাত্মক বিশৃঙ্খলায় ফিরে যাওয়ার ঝুঁকি রয়েছে।

এছাড়াও, মোদি সরকার অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত বাতিল করবে বা কমপক্ষে কোনো পরিকল্পনা পূর্বাবস্থায় নেবে এমন কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি। বিপরীতে, সাম্প্রতিক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, বিতর্কিত হিমালয় রাজ্যে দিল্লি আরো প্রশাসনিক পরিবর্তন পরিকল্পনা করছে। এটি দু’দেশের মধ্যে আবারো উত্তেজনা বাড়াতে পারে। এবং দুই দেশ নিজেদের আবার একই অবস্থানে খুঁজে পেতে পারে।

ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের ক্ষেত্রে যে প্রতিবন্ধক কাশ্মীর বিরোধ তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। অতীতে যখনই দুটি দেশ কাশ্মীরের বিষয়ে অগ্রগতি করতে ব্যর্থ হয় তখনই দ্রুত শান্তি বিঘ্নিত হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী খান ধারাবাহিকভাবে বলেছেন যে, কাশ্মীর বিরোধের সমাধান না করে দিল্লির সাথে স্বাভাবিকীকরণ কাশ্মীরিদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতার শামিল হবে। জেনারেল কামারও নিশ্চিত যে, কাশ্মীর বিরোধ নিষ্পত্তি না করা পর্যন্ত ‘রাজনীতি-প্রভাবিত বেহাল অবস্থা’র কারণে ‘উপ-মহাদেশীয় সৌহার্দ্য’ পুনঃপ্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া সর্বদা লাইনচ্যুত হওয়ার আশঙ্কা থাকবে। সূত্র : এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।



 

Show all comments
  • রুবি আক্তার ১৪ জুন, ২০২১, ২:০৫ এএম says : 0
    সাম্প্রদায়িক মোদি ক্ষমতায় থাকতে দুদেশের মধ্যে সম্পর্ক উন্নতি হওয়া সম্ভব না।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ নাজমুল ইসলাম ১৪ জুন, ২০২১, ২:০৫ এএম says : 0
    পাকিসতান ভারত সম্পর্ক ভালো হলে এই অঞ্চলের জন্য ভালো।
    Total Reply(0) Reply
  • কুদ্দুস তালুকদার ১৪ জুন, ২০২১, ২:০৬ এএম says : 0
    আমরাও চাই দেশের মধ্যে সম্পর্ক ভালো হোক। তবে সেটা কি আদৌ সম্ভব???
    Total Reply(0) Reply
  • Mominul+Hoque ১৪ জুন, ২০২১, ৯:৩৬ এএম says : 0
    পূর্ব ও পশ্চিম এশিয়ার মধ্যে যোগাযোগ নিশ্চিত করে দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার সম্ভাবনা আনলক করার চাবিকাঠি স্থিতিশীল পাকিস্তান-ভারত সম্পর্ক।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান-ভারত


আরও
আরও পড়ুন