Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৬ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

আর্জেন্টিনার ‘চিলি দুঃখ’

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম

হুয়াংহো নদীকে বলা হতো ‘চীনের দুঃখ’। প্রাচীন চীনে প্রায়ই হুয়াংহো নদী ছাপিয়ে উঠে সবকিছু বন্যায় ভাসিয়ে দিত বলে এই নদীই ছিল চীনের জন্য দুঃখ। এবার আসি, কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনার দুঃখ কী? এ বিষয়ে একটি কুইজ আয়োজন করা গেলে প্রশ্নাতীতভাবেই চলে আসবে চিলির নাম। কারণটাও স্পষ্ট। পরপর দু’বার কোপা আমেরিকার ফাইনালে (২০১৫ ও ২০১৬) দক্ষিণ আমেরিকার এ দেশের বিপক্ষে হেরেই শিরোপা হাতছাড়া করেছিল ১৪ বারের চ্যাম্পিয়নরা।
সময় বদলালো। তবে ভাগ্য বদলালো না আলবেসেলেস্তাদের। প্রতিবেশী দেশ ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে গতপরশু শেষ পর্যন্ত চিলির সঙ্গে ১-১ গোলের ড্রতেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে সবশেষ ১৯৯৩ সালের কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়নদের। লিওনেল মেসির দুর্দান্ত গোলের পরও তাই জয় দিয়ে এবারের কোপা আমেরিকা শুরু করা হলো না কোচ লিওনেল স্কালোনির দলের।
চিলির বিপক্ষে দুইবারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়নদের মাঠে নামার আগে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় ইতিহাসের অন্যতম সেরা প্রয়াত আর্জেন্টিনার তারকা ফুটবলার প্রয়াত ডিয়েগো ম্যারাডোনাকে। প্রদর্শণ করা হয় আলোকসজ্জা ও প্রজেকশনের। তার গোটা জীবনকে সম্মান জানিয়ে প্রদর্শণ করা হয় একটি ভিডিও। দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল সংস্থা কনমেবল আয়োজিত এই আর্জেন্টিনার ফুটবলারের সর্বশেষ শ্রদ্ধার জন্য রিও ডি জেনিরোর নীলটন স্যান্টোস স্টেডিয়ামে কোনও ভক্ত উপস্থিত ছিলেন না। গত বছর নভেম্বর মাসে ম্যারাডোনা মাত্র ৬০ বছর বয়সে মারা যান।
কনমেবলের সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলে শেয়ার করা ৩ মিনিটের ভিডিওটি দেখানো হয় মাঠে। ১৯৮৯ সালে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে উয়েফা কাপের সেমিফাইনালের আগে নেপোলির সাথে ম্যারাডোনরা বিখ্যাত হয়ে ওঠার সেই গানের সঙ্গে এই ভিডিও দেখানো হয়। এক বিবৃতিতে কনমেবল বলেছে, ‘আমরা ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়ের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।’ ম্যারাডোনাকে স্মরণ করার এই ম্যাচের প্রথমার্ধে নিজের ট্রেডমার্ক এক ফ্রি-কিক থেকে দলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন মেসি। প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে এটি মেসির ৩৯তম গোল। সব মিলিয়ে জাতীয় দলের হয়ে ১৪৫ ম্যাচে ৭৩ গোল হলো আর্জেন্টিনার রেকর্ড গোলদাতার।
শুরুতে কী দুর্দান্তই না খেলছিল আর্জেন্টিনা, আত্মবিশ্বাস টগবগ করছিল যেন। ওদিকে চিলি যেন একটু খোলসে ঢুকে ছিল। কিন্তু শেষমেশ ১-১ গোলে ড্র করে এক পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছেড়েছে চিলি। ওদিকে রক্ষণাত্মক ভুলের জন্য গোল খেয়ে মাথা চাপড়াচ্ছে আর্জেন্টিনা। ম্যাচ শেষেও নিজেদের কমতিগুলোই চোখে পড়েছে মেসির। বল নিয়ন্ত্রণে নিজেদের অক্ষমতার পাশাপাশি ড্রয়ের পেছনে আরও কিছু কারণ বের হয়ে এসেছে মেসির কাছে, ‘ম্যাচটা বেশ কঠিন ছিল। আমরা ভালোভাবে খেলতে পারিনি, বলের নিয়ন্ত্রণ ঠিকমতো রাখতে পারিনি, দ্রæতগতিতে খেলতে পারিনি। ওই পেনাল্টিই ম্যাচ বদলে দিয়েছিল।’ কিন্তু তা সত্তে¡ও আশা হারাচ্ছেন না আর্জেন্টিনার অধিনায়ক। সামনের দিকে দৃষ্টি তার। আগামী ম্যাচে এই ম্যাচের ভুলগুলো শুধরে আবারও এগিয়ে যেতে চান, ‘আমরা জিতে টুর্নামেন্ট শুরু করতে চেয়েছিলাম। আমাদের সামনে এখন উরুগুয়ে আছে, যে ম্যাচটাও যথেষ্ট কঠিন। কিন্তু আমাদের অবশ্যই পরের ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করতে হবে এখন।’
মহাদেশ সেরা টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শিরোপাধারীরা এ নিয়ে টানা তিন ম্যাচে এগিয়ে যাওয়ার পর ছন্দ হারিয়ে জয় হাতছাড়া করল তারা। তাই দ্রæত এ সমস্যার সমাধান না মিললে আসরে সামনের পথচলায় পস্তাতে হতে পারে। অবশ্য জয় না মিললেও কোপা আমেরিকায় চিলির বিপক্ষে আর্জেন্টিনার অপরাজেয় পথচলা অবশ্য আরও লম্বা হলো। এই নিয়ে ২৯ বারের দেখায় নয়বার ড্র করেছে, জিতেছে বাকি ২০ ম্যাচ। তবে নয় ড্রয়ের মধ্যেই আছে ২০১৫ ও ২০১৬ আসরের ফাইনাল। যে দুবার টাইব্রেকারে জিতে শিরোপা উল্লাস করেছিল চিলি।
নিজেদের পরের ম্যাচে আগামী শনিবার ভোরে উরুগুয়ের বিপক্ষে খেলবে আর্জেন্টিনা। সেদিনই বলিভিয়ার মুখোমুখি হবে চিলি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল


আরও
আরও পড়ুন