Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৮ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

কুয়েত মনোনীত ভ্যাকসিন নিতে চান আটকেপড়া শ্রমিকরা

মানববন্ধনে জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়াই নিবন্ধনের সুযোগ দাবি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ জুন, ২০২১, ১২:০২ এএম

কুয়েতগামী কর্মীদের কর্মস্থলে ফিরতে হলে দেশটির অনুমোদিত ভ্যাকসিন দিয়েই যেতে হবে। আর কুয়েত সরকার অনুমোদিত ভ্যাকসিন হলো হচ্ছে, ফাইজার, অক্সফোর্ড, মর্ডানা ও জনসন্ এন্ড জনসন। এর মধ্যে বাংলাদেশে শুধু ‘ফাইজার’ ভ্যাকসিন রয়েছে এবং তা ৪০-ঊর্ধ্ব বয়সীদের জন্য। এমনকি জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া ভ্যাকসিনের জন্য আবেদন করা যাচ্ছে না। এতে কুয়েতগামী অপেক্ষমান প্রবাসী কর্মীরা চরম হতাশায় দিন কাটাচ্ছেন। অবিলম্বে কুয়েত গমনেচ্ছু আটকেপড়া প্রবাসী কর্মীদের ভ্যাকসিন দিয়ে দেশটির কর্মস্থলে যাওয়ার সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় হাজার হাজার কুয়েতগামী প্রবাসী কর্মী চাকরি হারিয়ে পথে বসবে। ভ্যাকসিন দিয়ে আটকে পড়া কুয়েত প্রবাসীদের কর্মস্থলে পাঠানোর উদ্যোগ গ্রহণের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচিতে প্রবাসী কর্মীরা এসব কথা বলেন।

কুয়েত প্রবাসী কর্মীদের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচিতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মহসিন পারভেজ-এর উদ্যোগে আজ মানববন্ধনের আরো বক্তব্য রাখেন, নুর আলম বাশার, জাহাঙ্গীর, সাইফুল ইসলাম ও জাকিরসহ অনেক কুয়েত প্রবাসীর। প্রবাসী কর্মীরা বলেন, অনেক প্রবাসীর জাতীয় পরিচয়পত্র নেই, তাহলে করনীয় কী বা কীভাবে ভ্যাকসিন গ্রহণ করে কুয়েতে ফিরতে পারে তার জন্য দ্রæত প্রয়োজন ব্যবস্থা নিতে হবে। তারা বলেন, বর্তমানে দেশে আটকেপড়া কুয়েত প্রবাসীরা দূরাবস্থার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে এবং চলার পথে নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এ থেকে রেহাই পেতে কুয়েত সরকার অনুমোদিত ফাইজার ভ্যাকসিন প্রদান করে আমাদেরকে কুয়েত ফিরতে প্রস্তুত রাখা হোক।

কুয়েতে ফ্লাইট চালু হওয়া মাত্রই আমরা যেনো আবার কুয়েতে আমাদের কর্মস্থলে ফিরে যেতে পারি। প্রবাসী কর্মীরা বলেন, বৈধ ইকামাধারী প্রবাসী কর্মীদের ভ্যাকসিন প্রদানে অগ্রাধিকার দিয়ে তাদের কর্মস্থল কুয়েত ফেরার সুযোগ করে দেয়ার দ্রæত উদ্যোগ নিতে হবে। করোনা মহামারির মাঝে আটকে পড়া কুয়েত প্রবাসীরা চরম হতাশায় দিন কাটাচ্ছে। একদিকে কড়াকড়ি নিয়ম অন্য দিকে দেশে আটকে পড়া প্রবাসীদের দুর্বিষহ জীবন যাপন করতে হচ্ছে। বিগত ১৬ মাসে কুয়েত ফিরতে পারেনি অনেকেই। এসব কর্মীদের আবার ইকামার মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে আর কুয়েত ফেরা হবেনা তাদের। তারা কুয়েতের শ্রমবাজার ধরে রাখতে অনতিবিলম্বে করোনা ভ্যাকসিন দিয়ে প্রবাসীদের কর্মস্থলে ফেরার উদ্যোগ নেয়ার জোর দাবি জানান।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মানববন্ধন


আরও
আরও পড়ুন