Inqilab Logo

শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮, ২০ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ফলোআপ : দশ লাখ টাকা যৌতুক না দেওয়ায় স্ত্রীকে তালাকের হুমকি বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারীর

ময়মনসিংহ ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৬ জুন, ২০২১, ৮:৩৫ পিএম

দশ লাখ টাকা যৌতুক না দেওয়ায় স্ত্রীকে তালাকের হুমকি দিয়েছেন ত্রিশালের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস সহায়ক আব্দুল্লাহর ওরফে আব্দুল আলী। যৌতুক দাবিতে ইতিমধ্যে স্ত্রী মোছা: শারমিন আক্তারকে নির্যাতন করে দুই সন্তানসহ বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের হওয়ায় সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির সাথে যোগাযোগ করলে তিনি রেজিষ্ট্রারের কাছে পৃথক অভিযোগ দিতে বলায় গত রোববার (১৩ জুন) রেজিষ্ট্রার বরাবর পৃথক অভিযোগ দেন ভুক্তভোগীর পিতা মো: শাজাহান মিয়া।

বুধবার (১৫ জুন) বিকেলে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিষ্ট্রার কৃষিবিদ ড. হুমায়ন কবীর। তবে রেজিষ্ট্রার জানিয়েছেন ইতোমধ্যে নাকি অভিযুক্ত আব্দুল্লাহ তার স্ত্রীকে তালাক দিয়েছে। কিন্তু ভুক্তভোগীর পিতা মো: শাজাহান মিয়া জানান, এ বিষয়ে তারা অবগত নন এবং তালাকের কোন কাগজপত্রও তারা পাননি। এ সময় অভিযুক্তের পক্ষে সাফাই গেয়ে রেজিষ্ট্রার কৃষিবিদ হুমায়ন কবীর বলেন, এ ঘটনায় আমাদের কিছুই করার নেই। তবে ওই কর্মচারীকে বিষয়টি সামাজিক ভাবে আপোষ করতে বলা হয়েছে। যদি তা না হয়, তবে মামলা হলে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগীর পিতা মো: শাজাহান মিয়া বলেন, যৌতুক না দেওয়ায় আমার মেয়েকে তালাকের হুমকি দিচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত তালাক সংক্রান্ত কোন কাগজ আমরা পাইনি। মূলত দশ লাখ টাকা যৌতুকের বিষয়টি আড়াল করার জন্য তারা এসব কথা বলছে। এ সময় তিনি তালাক নিয়ে রেজিষ্ট্রারের বক্তব্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তালাকের বিষয়টি ভুক্তভোগী এবং তার পরিবার না জানলেও তিনি কিভাবে জানলেন বলেও প্রশ্ন রাখেন। এছাড়া রেজিষ্টার কোনরকম তদন্ত না করেই কিভাবে তালাকের বিষয়টি জানলেন এ বিষয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভুক্তভোগীর পিতা।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে ময়মনসিংহ সদর উপজেলার ১০নং দাপুনিয়া ইউনিয়নের শষ্যমালা পশ্চিমপাড়া গ্রামের মো. শাজাহান মিয়ার একমাত্র কন্যা শারমিন আক্তারকে বিয়ে করেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস সহায়ক আব্দুল্লাহ। তাদের দাম্পত্য জীবনে সাইম(৫) ও সিয়াম(২) নামের দু’টি পুত্র সন্তান রয়েছে। এদের মধ্যে বড় সন্তান সাইম বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। আরও জানা যায়, বিয়ের কিছুদিন পর থেকে ভুক্তভোগীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে দশ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে আব্দুল্লাহ। এছাড়া আব্দুল্লার মাও নির্যাতন করে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।এমন পরিস্থিতিতে দু’টি সন্তান নিয়ে অসহায় জীবন-যাপন করছে ভুক্তভোগী শারমিন আক্তার।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ময়মনসিংহ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ