Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৫ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

বিশ্বে ভিন্ন ধরনের ‘মহামারি’ আসছে

জাতিসংঘের খরা বিষয়ক প্রতিবেদনে সতর্কতা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম

হাজার বছরের ইতিহাস আমাদের বলে যে, খরা নতুন কিছু নয়। কখনো কখনো আমরা বিজয়ী হই, প্রায়শই হই না। ভবিষ্যতের এক নির্লজ্জ দৃষ্টিভঙ্গি আমাদের জানায় যে, আমরা এখনো কিছুই দেখিনি। আবহাওয়া পরিবর্তনের মিশ্রণ, পানি ব্যবস্থাপনার দুর্বল পদ্ধতি এবং ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার ঘনত্বের বিপর্যয়ের খরার ‘মহামারি’ আসন্ন।

২০২১ সালের জাতিসংঘের বিশেষ খরার প্রতিবেদনে বিশ্বজুড়ে মূল অঞ্চলগুলোতে হ্রাসপ্রাপ্ত বৃষ্টিপাত, খরার কারণগুলো অন্বেষণ এবং পানি সঙ্কট মোকাবিলায় আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে আগামী বছরগুলোতে আমরা যে ঝুঁকির মুখোমুখি হয়েছি তার বিবরণ দেওয়া হয়েছে। ‘মানব-সৃষ্ট আবহাওয়া পরিবর্তনের সাথে সাথে বিশ্বের কয়েকটি অঞ্চলে ইতোমধ্যে খরার ফ্রিকোয়েন্সি এবং তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন এই প্রতিবেদনের লেখকরা।

‘প্রাক-শিল্প স্তরের তুলনায় বিশ্ব গড় তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস উষ্ণতার দিকে আপাতদৃষ্টিতে নিরলসভাবে এগিয়ে চলেছে বলে মনে হচ্ছে, খরাটির প্রভাব ক্রমশ বাড়ছে এবং অনেক অঞ্চলে বিশেষত ব্যবসায়িক-স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে যেমন অবস্থা রয়েছে ততই খারাপ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে’। বিশ্বজুড়ে কমপক্ষে দেড়শ কোটি মানুষ গত দুই দশকে খরায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, বিশ্বের সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর ব্যয় হয়েছে ১২৪ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।

লেখকরা যেমন উল্লেখ করেছেন, সাধারণত জানা লোকসান এবং প্রকৃত প্রভাবগুলোর মধ্যে একটি ব্যবধান থাকে, যার অর্থ এ জাতীয় পরিসংখ্যানগুলোকে সর্বোত্তম রক্ষণশীল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। অনুমানগুলো উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতিগুলোকে বিবেচনা করে না এমনটি উল্লেখ করার দরকার নেই।

হাস্যকরভাবে, যখন আমরা মারাত্মক খরার কথা ভাবি, তখন উন্নয়নশীল দেশ এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলি প্রথমে মাথায় আসে। তবুও বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় পঞ্চমাংশ এমন একটি অঞ্চলে বাস করে যা সম্ভবত পানির ঘাটতির ঝুঁকিতে রয়েছে। শতাব্দীর শেষে, আমরা বেশিরভাগ দেশ কোনো না কোনোভাবে খরা দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার আশা করতে পারি। আবহাওয়া সঙ্কটের কারণে ভবিষ্যতে পানি সঙ্কট বাড়ার ঝুঁকি নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করা প্রতিবেদনগুলো মামুলি হয়ে উঠছে। খরার আশ্রয়কেন্দ্রকে আজকাল খুব কমই সংবাদ হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

তবে যেহেতু আমরা এসব কিছু জানি - কারণ আমরা জানি যে, কতটা বিধ্বংসী খরার সৃষ্টি হতে পারে এবং আমাদের মধ্যে অনেকেরই দুর্ভিক্ষের ভবিষ্যতের মুখোমুখি হয় - কেন এটি মোকাবিলায় আমরা আরো ভালো কিছু করব না? জবাব খোঁজার প্রয়াসে জাতিসংঘের প্রতিবেদনে খরার বিভিন্ন পরিস্থিতিতে ‘বাস্তব অভিজ্ঞতা’ বিশদ সম্পর্কিত কয়েকটি স্টাডি সঙ্কলিত হয়েছে, এটা বোঝানোর জন্য যে, ঘন ঘন পানির চাপে সমাজে কে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

কৃষি শ্রমিকদের ক্ষমতায়ন একটি সুস্পষ্ট প্রথম পদক্ষেপ। তবে পর্যটন, পরিবহন, পানিবিদ্যুৎ বা মাছ ধরার ক্ষেত্রে যে কোন স্বাস্থ্যকর পানির পরিবেশের প্রয়োজন রয়েছে তার দক্ষ পানি ব্যবস্থাপনায় অংশীদারিত্ব রয়েছে। এক্ষেত্রে সংগৃহীত অভিজ্ঞতার ওপর ভিত্তি করে, এটি স্পষ্ট যে, পানিনীতি দুর্বল সচেতনতার সমস্যা নয়, দুর্বল স্মৃতির সমস্যা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘খরা মোকাবিলার জন্য বর্তমান ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা এবং প্রশাসনের ব্যবস্থা এবং পদ্ধতিগুলো খরার ঝুঁকির ক্রমবর্ধমান পদ্ধতিগত প্রকৃতির দ্বারা অভিভূত হয়েছে’। ‘কেস স্টাডিগুলো নীতি বিকাশের ক্ষেত্রে পদক্ষেপ, খরা যখন মারাত্মক হয় তখন পর্যালোচনা এবং পুনর্গঠন এবং যখন খরা আর স্পষ্ট হয় না তখন নিষ্ক্রিয়তার বর্ণনা দেয়’। বৃষ্টিপাতের পরে কেউই পরবর্তী খরা সম্পর্কে চিন্তা করতে চায় না, তাই অবাক হওয়ার কিছু নেই যে, সর্বাধিক নীতিগত পন্থাগুলো ক্রিয়াশীলতার বিপরীতে প্রতিক্রিয়াশীল।

জাতিসংঘ মহাসচিবের দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি মামী মিজুতোরি, ভবিষ্যতের পানির সঙ্কটকে বিশ্বব্যাপী বিপর্যয়ের সাথে তুলনা করার জন্য আমাদের দ্রুত কল্পনা করার দরকার নেই। গার্ডিয়ান ফিওনা হার্ভির বরাত দিয়ে বলেছেন, ‘পরবর্তী মহামারী হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে এবং এর চিকিৎসার জন্য কোনও ভ্যাকসিন নেই’।

মিজুতোরির কোভিড-১৯ এর উপমা অনুরণন করা উচিত। সামাজিক বৈষম্য, প্রস্তুতির অভাব এবং নতুন ঝুঁকির সাথে মানিয়ে নিতে অসুবিধা কেবল সেই বিষয়টিকেই আরও জটিল করে তুলেছে যা আমরা অতীতে প্রায়শই কার্যকরভাবে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছি। তবে যেমন একটি স্বাস্থ্যকর প্রতিরোধ ব্যবস্থা অতীতের রোগের দীর্ঘমেয়াদী স্মৃতি থেকে উপকৃত হয়, তেমনি আমাদের বিশ্ব সম্প্রদায় তাজা পানিতে নির্ভরযোগ্য অ্যাক্সেসের অভাবে ইতিহাস থেকে বর্ণহীন এমন সম্প্রদায়গুলোকে ভুলতে পারে না। সূত্র : সায়েন্স অ্যালার্ট।



 

Show all comments
  • Dadhack ২০ জুন, ২০২১, ১২:৩৪ পিএম says : 0
    মুসলিমদেরকে বলা হয়েছে তোমরা কোরআন দিয়ে সারা বিশ্ব শাসন করবে তাহলে বিশ্বে শান্তিতে মানুষ বসবাস করবে গণহত্যা খুন-গুম যুদ্ধ এগুলো সব বন্ধ হয়ে যাবে পরিবেশকেও ধ্বংস করবে না অথচ আমরা মুসলিমরা কাফের আইন দিয়ে দেশ চালায় এবং আমাদের জন্যই আজ দুনিয়া ধ্বংস হয়ে গেছে
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতিসংঘ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ