Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৫ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

মধ্য এশিয়ায় নিরাপত্তা অঞ্চল তৈরি করছে চীন-রাশিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম

গত মাসে, চীনের স্টেট কাউন্সিলর এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইয়ি চীনের শি’আন শহরে চীন+মধ্য এশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সভার আয়োজন করেন। এটি দ্বিতীয় এ জাতীয় বৈঠক, যা ক্রমবর্ধমান (কাজাখস্তান, উজবেকিস্তান, কিরগিজস্তান, তুর্কমেনিস্তান এবং তাজিকিস্তানের সাথে) ভ‚-রাজনৈতিক বিষয়গুলোতে মনোনিবেশ করে। বিস্তৃতভাবে বলতে গেলে, এটি ইঙ্গিত দেয় যে, রাশিয়া এ অঞ্চলে তার চ‚ড়ান্ত অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক স্বার্থ নিয়ে চিন্তিত যেখানে চীনের উদ্বেগের অভাব রয়েছে। আলোচ্যসূচির শীর্ষে ছিল আফগানিস্তান, যেহেতু চীন মধ্য এশিয়া এবং এর পূর্ব প্রদেশগুলোতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং মিত্রবাহিনীর সেপ্টেম্বরে সরিয়ে নেয়ার প্রস্তুতি গ্রহণের সম্ভাবনা বাড়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন ছিল।
তবুও মধ্য এশিয়ার পরিবর্তিত ভ‚-রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপের বৃহত্তম সমস্যা হ’ল অর্থনীতি ও বাণিজ্য। শি’আন বৈঠকে চীন অনেক নতুন প্রকল্পের প্রতিশ্রæতি দিয়েছিল। প্রতিশ্রæতি ছিল কৃষি, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা, বাণিজ্য, শক্তি, পরিবহন এমনকি প্রতœতত্তে¡র ক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধির। আরো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, চীন কিরগিজস্তানকে ঋণের ভার হ্রাসে সহায়তার প্রতিশ্রæতি দিয়েছিল এবং চীন-উজবেকিস্তান সংযুক্ত একটি রেলপথ অনুমোদনের জন্য চাপ প্রয়োগ করেছিল। চীন মধ্যপ্রাচ্য এবং দক্ষিণ ককেশাসের সাথে সংযোগ স্থাপনে প্রধান ভ‚মিকা নিতে প্রস্তুত, এ প্রকল্পে প্রায়শই বিলম্ব দেখতে পেয়েছে। আংশিকভাবে, এটি কিরগিজস্তানের অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক সমস্যার কারণে, তবে রাশিয়াও আংশিকভাবে দায়ী এই ভয়ে যে, এই করিডোরটি ট্রানজিট কার্গোর একটি উল্লেখযোগ্য অংশকে তার রেলপথ থেকে সরিয়ে দেবে। নির্বিশেষে, ভ্রমণের দিকটি পরিষ্কার: প্রতিটি অর্থনৈতিক চুক্তি এ অঞ্চলটিকে চীনের সাথে আরো ঘনিষ্ঠ করে।
চীন স্বীকৃতি দিয়েছে যে, বড় এবং ভারী শীর্ষ সম্মেলনগুলো প্রায়শই প্রত্যাশিত ফল দিতে ব্যর্থ হয় এবং এখন ক্রমবর্ধমান ছোটগুলোর পক্ষে। এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াসহ অন্যান্য অঞ্চলের সাথে একই কাজ করে। এটি অনেক বেশি দক্ষ এবং ঘরের সবচেয়ে বড় শক্তি হিসাবে এটি এজেন্ডা এবং ফলাফলকে প্রভাবিত করতে পারে। স্বভাবতই, এসব ঘটনা মধ্য এশিয়ার ঐতিহ্যবাহী পাওয়ারব্রোকার রাশিয়াতে একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে এবং এটি গ্রহণ করা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের উদ্রেক করে। এটি অবশ্যই তাজিকিস্তান এবং কিরগিজস্তানের ঘাঁটিগুলোর মাধ্যমে এবং উন্নত অঞ্চলের অন্যান্য দেশের সাথে অন্তর্বর্তী সামরিক সহযোগিতার মাধ্যমে - উন্নত সা¤প্রতিক সামর্থ্যগুলো বজায় রেখেছে। রাশিয়াও একটি শক্তিশালী অর্থনৈতিক খেলোয়াড়: এটি পাঁচটি রাষ্ট্রের জন্য একটি প্রধান বাণিজ্য অংশীদার, বিনিয়োগের একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস এবং মধ্য এশীয় অভিবাসী শ্রমিকদের রেমিট্যান্সের একটি উল্লেখযোগ্য উৎস। তদুপরি, রাশিয়ার এ অঞ্চলে ইউরেশিয়ান অর্থনৈতিক ইউনিয়ন এবং সম্মিলিত সুরক্ষা চুক্তি সংস্থার মতো যৌথ সুরক্ষা ও অর্থনৈতিক উদ্যোগ রয়েছে। তবে শেষ কথা নয়, এ অঞ্চলটি লিঙ্গুয়া ফ্রেঞ্চ-এর মতো ভাষা হিসাবে রাশিয়ান ব্যবহারের মাধ্যমে রাশিয়ার খুব কাছাকাছি ছিল।
চীন রাশিয়ার প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রভাব লক্ষ্য করেছে এবং অবাক করা বিষয় হবে যে, এসব ঘটনা অভিযোগের কারণ হিসাবে আসে না। অবশ্যই, পশ্চিম এশিয়ার মধ্য এশিয়ার উভয় পক্ষের মধ্যে একটি আসন্ন ভ‚-রাজনীতিক শোডাউন সম্পর্কে একটি ক্রমবর্ধমান কিংবদন্তি রয়েছে। তবে, বাস্তবতা আরো সঙ্কুচিত হতে পারে এবং বিশ্লেষণটি কেবল ইচ্ছাকৃত চিন্তাভাবনা।
মধ্য এশিয়ায় চীন-রাশিয়ান প্রতিযোগিতার প্রকৃতি বোঝার জন্য উন্নত বিশ্বব্যবস্থা এবং উদারপন্থী শক্তিগুলো কী অর্জন করতে চায় তা সন্ধান করা গুরুত্বপূর্ণ। উদারনীতি ব্যবস্থার একটি বৈশিষ্ট্য হ’ল ভ‚-রাজনৈতিকভাবে সংবেদনশীল অঞ্চলগুলোর অত্যধিক আঞ্চলিকীকরণ। এ অঞ্চলের প্রতিবেশী বড় শক্তি তৃতীয় শক্তিগুলোকে তাড়িয়ে দিতে চায়। রাশিয়া সফলভাবে এটি দক্ষিণ ককেশাসে অনুসরণ করেছে যেখানে তুরস্ক এবং আংশিক ইরানের সাথে একত্রিত হয়ে তারা সম্মিলিত পশ্চিমকে অপসারণ করতে চাইছে। সিরিয়ায়ও অনুরূপ প্রক্রিয়া চলছে এবং এটি দক্ষিণ চীন সাগরে প্রয়োগ করা যেতে পারে, যেখানে চীন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়াই তার প্রতিবেশীদের সাথে সরাসরি আঞ্চলিক সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করে।
উপস্থিতিগুলো বিভ্রান্তিকর হতে পারে। রাশিয়া এবং চীন প্রতিযোগী, তবে তাদের প্রতিদ্ব›দ্বী হওয়ার সম্ভাবনা কম। মধ্য এশিয়ার এ অংশীদারিত্বের ক্ষেত্রে পশ্চিমাদের তার চিন্তার কিছু মৌলিক দিকগুলো পুনর্বিবেচনা করা উচিত।
মধ্য এশিয়ার সাথে সংশ্লিষ্টতা অবশ্যই সহায়তা করতে পারে এবং এর অনুপস্থিতি মধ্য এশিয়াকে কেবল দুটি শক্তির কাছে তুলে ধরবে। এই অঞ্চলটি পুনঃসামগ্রহ করার খুব প্রয়োজন এবং চালচক্রের আরো জায়গা রয়েছে। মধ্য এশিয়ায় রাশিয়া এবং চীন উভয়ই গ্রহণযোগ এবং ভয় পাবার অনুষঙ্গও। তবে পশ্চিমাদের অবস্থান হবে অত্যন্ত কঠিন এবং মধ্য এশিয়ার সাথে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা থাকার জন্য এটিকে অবশ্যই একটি সুসংহত কৌশল তৈরি করতে হবে, নয়তো বন্ধ থাকবে। সূত্র : ইউরেশিয়া রিভিউ।



 

Show all comments
  • তোফাজ্জল হোসেন ২০ জুন, ২০২১, ৪:১৪ এএম says : 0
    এটা একটা প্রশংসনীয় উদ্যোগ। চীনের জন্য সফলতা কামনা করছি।
    Total Reply(0) Reply
  • জোবায়ের খাঁন ২০ জুন, ২০২১, ৪:১৫ এএম says : 0
    দক্ষিণ এশিয়াকে নিরাপদ করা জরুরি। এর জন্য চীন ও রাশিয়াকে ভূমিকা রাখতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • নোমান মাহমুদ ২০ জুন, ২০২১, ৪:১৫ এএম says : 0
    খবুই ভালো উদ্যোগ। আঞ্চলিক নিরাপত্তার জন্য এমন উদ্যোগ জরুরি।
    Total Reply(0) Reply
  • মেঘদূত পারভেজ ২০ জুন, ২০২১, ৪:১৬ এএম says : 0
    আমেরিকা ও েইউরোপের বিরুদ্ধে একটা শক্ত জোট দরকার, যেটা নেতৃত্ব দিতে পারে চীন ও রাশিয়া।
    Total Reply(0) Reply
  • রকিবুল ইসলাম ২০ জুন, ২০২১, ৮:৩১ এএম says : 0
    ভালো উদ্যোগ । আমরা আপনাদের সাথে আছি
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন