Inqilab Logo

রোববার, ০১ আগস্ট ২০২১, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮, ২১ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

এরদোয়ানের পৃষ্ঠপোষকতায় তুরস্কে বাড়ছে হাফেজার সংখ্যা

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ জুন, ২০২১, ৩:২১ পিএম

তুরস্কে গত ২০ বছর ধরে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়িপ এরদোয়ানের পৃষ্ঠপোষকতায় নারীদের হিফজ মাদরাসা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ‘আদর্শ ও নিষ্ঠাবান প্রজন্ম’ তৈরির বাসনা থেকে এরদোয়ান এই উদ্যোগ নেন। দীর্ঘকাল ধরে এরদোয়ান মুসলিম সংস্কৃতির প্রচার-প্রসারে কাজ করছেন। দেশে আদর্শ নাগরিক গড়ে তুলতে সরকারি ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছেন প্রেসিডেন্ট তায়িপ এরগোয়ান। যার সুফল বর্তমানে দৃশ্যমান।
আলজাজিরা ডট নেটের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ২০০২ সালে তুরস্কে ১৬৭৭টি কোরআন হেফজের মাদরাসা ছিল। এখন তা বৃদ্ধি পেয়ে ১৮ হাজার ৬৭৫-এ দাঁড়িয়েছে। তুরস্কের ধর্ম বিভাগের তথ্যমতে, প্রতিবছর এসব মাদরাসায় ১৫ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী কোরআনের হিফজ সম্পন্ন করে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, তুরস্কে গত দুই দশকে মেয়েদের কোরআন শেখাতে বহু মাদরাসা তৈরি হয়েছে। হাফেজ হওয়ার বাসনায় মেয়েরা তাতে আবাসিক থাকেন। এসব আবাসিক প্রতিষ্ঠানে মেয়েদের পাঠ-পরিবেশ আনন্দময় করতে অবসরে তাদের জন্য আনন্দ-বিনোদনের ব্যবস্থাও রাখা হয়।
কোরআন শেখা তুর্কি মেয়েদের জীবনযাত্রা নিয়ে ‘হাফিজ : দ্য গার্ডিয়ান অব কোরআন’ শিরোনামে তুরস্কের ফটো সাংবাদিক সাবিহা সাইমন একটি প্রতিবেদন তৈরি করেন। তা ২০২০ সালের ওয়ার্ল্ড প্রেস ফটো পুরস্কার লাভ করে। মূলত তাঁর বেশির ভাগ ফটোগ্রাফি মেয়েদের কোরআন হেফজের আবাসিক মাদরাসা নিয়ে হওয়ায় তা আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বেশ সাড়া ফেলে।
মূলত এসব হেফজ মাদরাসায় প্রবেশে নানা রকম বিধি-নিষেধ আছে। কিন্তু ৩৫ বছর বয়সী ফটো সাংবাদিক সাবিহা সাইমন আনাতোলিয়ার পাঁচটি শহর ঘুরে বিভিন্ন মাদরাসার শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সময় কাটান এবং তাদের বর্ণিল জীবনচিত্র তুলে ধরেন। ইস্তাম্বুলের অধিবাসী সাবিহা সাইমন বর্ণনা করেন, ‘১২ বছর বয়সে আমার যমজ বোনের সঙ্গে একটি হিফজ মাদরাসায় পড়ি।
তখন মাদরাসাটি ছিল খুবই ছোট। পরবর্তী সময়ে আমার বোন পবিত্র কোরআনের হাফেজ হন।’ কোরআন মুখস্থ করা নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে জীবনাচার তুলে ধরে তিনি ইসলামী সংস্কৃতির উজ্জ্বল দিক তুলে ধরার প্রয়াস চালান। মূলত তাঁদের জীবনাচারে তিনি নিজের শৈশবের প্রতিচ্ছবি দেখতে পান। অনলাইনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘ম্যাগনাম ফটোস’-এ হিফজ মাদরাসার মেয়ে শিক্ষার্থীদের জীবনাচারবিষয়ক তার তোলা ছবিগুলো পাওয়া যায়।
সাবিহা বলেন, ‘মূলত সব কিছুই পুনরাবৃত্তির ওপর নির্ভর করে। তাই যেকোনো বিষয়ে গভীর পাণ্ডিত্বের জন্য প্রথমে শব্দ মুখস্থ করতে হয়। এরপর তার অর্থ বুঝতে অনেক বছর পড়াশোনা করতে হয়। তাই মানবজীবনে পবিত্র কোরআনের নির্দেশনা অনুসরণ করতে প্রথমে তা মুখস্থ করা হয়। এরপর দীর্ঘকাল পড়াশোনা করে তাঁরা এর মর্ম উপলব্ধি করেন।’
উল্লেখ্য, ইসলামী সমাজব্যবস্থায় পবিত্র কোরআন হিফজ করা তথা পুরো মুখস্থ করা অতীব গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণত এতে তিন থেকে চার বছর সময় লাগে। অবশ্য বহু মেধাবী শিক্ষার্থী আরো কম সময়ে হিফজ সম্পন্ন করে। সাধারণত ৭-১৩ বছর বয়সের মধ্যে কোরআন হিফজ সম্পন্ন করে। সূত্র: আলজাজিরা নেট



 

Show all comments
  • মোঃ মোশারফ হোসেন ২০ জুন, ২০২১, ৪:৫০ পিএম says : 0
    ইউরোপের মত একটি দেশে ইসলামের এমন প্রচার প্রসার সত্যি অবাক করার। আল্লাহ আমাদের সবাইকে বেশী বেশী ইসলামকে জানার, বুঝার এবং মানার তৌফিক দান করুন, আমিন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mahmudul Hasan ২০ জুন, ২০২১, ৫:৩০ পিএম says : 0
    এরদোগানের জন্য দোয়া করি আল্লাহ তায়ালা যেন তাকে দুনিয়ায় মুসলমানদেরকে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য যোগ্য করে গড়েতোলেন। সাথে তার নেক হায়াত এরজন্য দোয়া করি।আমন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohsin Ahmed ৩০ জুন, ২০২১, ৮:০২ পিএম says : 0
    যোগ্য জাতী গঠনে নেতার কার্যক্রম সত্যি অসাধারণ...
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এরদোগান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ