Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৩ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

বরগুনায় আগামীকাল ২৯ ইউনিয়নের নির্বাচনঃ ১৬৯ ভোটকেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

ভোটার আর প্রার্থীদের মধ্যে সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ ভোট নিয়ে সংশয়

বরগুনা জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২০ জুন, ২০২১, ৫:৫৭ পিএম

বরগুনা জেলার পাঁচটি উপজেলার ২৯টি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ২১ জুন। নির্বাচনে সদর উপজেলা, বামনা ও বেতাগী উপজেলার ৮৮টি ভোটকেন্দ্র ‘গুরুত্বপূর্ণ’ হিসেবে বিবেচনা করেছে প্রশাসন। আমতলী ও পাথরঘাটা উপজেলার সব কেন্দ্রই ‘গুরুত্বপূর্ণ’ বলা হচ্ছে। যদিও স্থানীয় লোকজন এসব কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে উল্লেখ করে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছেন। তবে নির্বাচন আয়োজনের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা বলছেন, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজনে সব রকম প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা একাধিক প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারের সাথে আলাপে তারা বলেন, 'কেন্দ্রে বহিরাগতরা হামলা করলে আমরা তাদের প্রতিহত করতে বোকার মতো ঝুঁকি নেব না। সুষ্ঠু ভোট গ্রহণে জীবনের ঝু্ঁকি নিলে কোন মূল্যায়ন হয়না।'

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বরগুনা সদর উপজেলায় ৯টি ইউনিয়নে ভোট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ৯টি ইউনিয়নের ৮১টি ভোটকেন্দ্রর মধ্যে ৩৩ ভোটকেন্দ্র অধিক 'গুরুত্বপূর্ণ'। এর মধ্যে নলটোনা ইউনিয়নের সব কটি ভোটকেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন।

আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের পূর্ব কেওড়াবুনিয়া গ্রামের রাবেয়া বেগম (৬০) বলেন, ‘সব কটি ভোটকেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ। ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে পারব কি না, তা নিয়ে চিন্তায় আছি।’

নলটোনা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ সফিকুল ইসলাম মাহফুজ বলেন, 'এই ইউনিয়নে সবকটি ভোটকেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ। আমি আগে একবার এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলাম। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ভোটাররা আমাকেই চেয়ারম্যান নির্বাচিত করবেন।'

বুড়িরচর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী হুমায়ুন কবির বলেন, 'এ ইউনিয়নের যে চারটি ভোট কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে সে কেন্দ্রগুলো উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বর্তমান চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমানের এলাকার। ভোট কেন্দ্রগুলো রক্ষা করতে এখানে অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করতে হবে। তার লোকজন ভোটকেন্দ্রগুলো ভোটগ্রহণ শুরুর পর থেকেই কেন্দ্র করে দখলে নিয়ে নিতে পারেন বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন। বিগত ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে তিনি এসব কেন্দ্রগুলো দখল করতেন। পাল্টা অভিযোগ করে এই ইউনিয়নের চেয়াারম্যান প্রার্থী বলেন, স্বতন্র প্রার্থীরা ইতোমধ্যে তাদের এলাকার ভোটকেন্দ্র দখলের প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে প্রচারনায় এসেছে।

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নাজমুল হাসান বলেন, অধিক গুরুত্বপূর্ণ ভোটকেন্দ্রগুলোতে তাঁদের স্পেশাল ফোর্স থাকবে। কেন্দ্রের কাছাকাছি ক্যাম্প স্থাপন করার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে তাঁরা সভা করে রেখেছেন।

এদিকে বেতাগীর সাতটি ইউনিয়নের ভোটকেন্দ্র আছে ৬৩টি। এর মধ্যে মোট ৩৮টি ভোটকেন্দ্র 'অধিক গুরুত্বপূর্ণ' এবং ১০টি কেন্দ্র 'গুরুত্বপূর্ণ' হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বেতাগী সদর, মোকামিয়া ও সড়িষামুড়ি ইউনিয়নের ২৭টি ভোটকেন্দ্র অধিক গুরুত্বপূর্ণ। বেতাগী সদর ইউনিয়নের ১,২,৩ কেন্দ্র দখলের প্রস্তুতি নিয়েছে নৌকার প্রার্থী এ অভিযোগ এনে স্বতন্র প্রার্থী, খ,ম,আমিনুর বলেন, 'নির্বাচনের আগেই বহিরাগত অস্ত্রধারীরা প্রকাশ্যে প্রচারনাসহ হুমকি দিচ্ছে, নৌকায় ভোট না দিলে ভোটারদের কেন্দ্রে না যাবার। প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্হা নিতে সাহস পাচ্ছে না।'

সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বামনা উপজেলার চারটি ইউনিয়নের সাতটি কেন্দ্র অধিক গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। আমতলী উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের সবকটি (৫৪টি) কেন্দ্র এবং পাথরঘাটা উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের সবকটি (২৭টি) কেন্দ্র অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

বেতাগীর মোকামিয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুল আলম বলেন, ‘এসব অধিক ঝুঁকিপূর্ণ ভোটকেন্দ্রে সুষ্ঠু ভোট গ্রহণ নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। পুরো ইউনিয়ন ঝুঁকিপূর্ণ। বর্তমানে আমি ও আমার পরিবার নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আছি। তারা হুমকি দিয়েছেন, প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে না দাঁড়ালে আমার সন্তানদের তুলে নেবে। প্রতিদিন আমার সমর্থকদের মারধর করা হচ্ছে। তাদের বাড়ি থেকে বের হতে দিচ্ছে না। আমাকে অপহরণ চেষ্টার করা হয়।'

বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেহেদী হাসান (বরগুনা সদর ও বেতাগী সার্কেল) বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন থাকবে।পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালত, স্ট্রাইকিং ফোর্স নিয়োজিত থাকবে।কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে, তার জন্য পুলিশ প্রশাসন সতর্ক রয়েছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন