Inqilab Logo

শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৯ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

ডাইনোসরের পায়ের ছাপ!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জুন, ২০২১, ১২:০৩ এএম

ব্রিটেন জুড়ে আতঙ্ক! হদিস মিলেছে ডাইনোসরের পায়ের ছাপের। সম্প্রতি হেস্টিংস মিউজিয়াম অ্যান্ড আর্ট গ্যালারির কিউরেটর ফিলিপ হ্যাডল্যান্ড এই পায়ের ছাপগুলো আবিষ্কার করেছেন। তিনি একাধারে ব্রিটেনের পোর্টসমাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈজ্ঞানিকও।
ফিলিপ জানিয়েছেন, কেন্ট এলাকায় পাথরের গায়ে ৬টি ডাইনোসরের পায়ের ছাপ পাওয়া গেছে। এই এলাকাটি মূলত ঝড়-বৃষ্টি প্রবণ। উপকূল এলাকায় পানির তোড়ে প্রায়ই নতুন জীবাশ্মের হদিস মেলে সেখানে।
প্রাণী ও উদ্ভিদবিদ্যার অধ্যাপক ডেভিড মার্টিল বলেন, ‘এই প্রথম পাথরের স্তরে এই ধরণের পায়ের ছাপ দেখা গেল। এটাকে ফোকস্টোর ফরমেশন বলা হয়। এটা খুবই বিরল ঘটনা। হয়ত শেষ জীবন্ত ডাইনোসরের পা পড়েছিল এই পাথরগুলোর উপরেই।’
তিনি আরও বলেন, ‘পায়ের ছাপগুলো দেখে বোঝা যাচ্ছে এগুলো আলাদা আলাদা প্রজাতির। অনুমান করা যায় দক্ষিণ ইংল্যান্ডের এই অংশে একাধিক প্রজাতির ডাইনোসর ছিল। এই পায়ের ছাপ আনুমানিক ১১০ বছর পুরনো।’
বিজ্ঞানীদের ধারণা, পায়ের ছাপ হচ্ছে পিঠে কাঁটাজাতীয় অ্যাঙ্কিলোসরাস, তিন পা বিশিষ্ট থেরোপডস, মাংসাশী টাইরেনোসরাস, টাইরেনোসরার রেক্স, তৃণভোজী ও ডানা বিশিষ্ট অর্নিথোপডসের।
কিউরেটর ফিলিপ হ্যাডল্যান্ড বলেন, ‘২০১১ সাল থেকেই কেন্ট এলাকার পাথরে অস্বাভাবিক কিছু লক্ষ্য করেছিলাম। অনেকবার এই ছাপ লক্ষ্য করা গেছে। বহুদিন ধরেই অনুসন্ধিৎসু হয়ে পড়েছিলাম। কিন্তু, জোয়ারের পানিতে ভূমিক্ষয় হওয়ায় ধীরে ধীরে এই পায়ের ছাপ আরও স্পষ্ট হয়। প্রথমে সেটি হাতির পায়ের ছাপ মনে হয়েছিল। পরে আরও খতিয়ে দেখে বোঝা যায় এটি অর্নিথোপডিক্স নামে বিলুপ্ত প্রজাতির কোনও প্রাণীর।’
গবেষণায় জানা গেছে, ১১০ বছর আগে এই জাতীয় ডাইনোসরাসের অস্তিত্ব পাওয়া যেত চীনে। প্রায় ৬৫ থেকে ৮০ সেন্টিমিটার আকৃতির এই পায়ের ছাপ সেই সময়কার ডাইনোসরের পায়ের আকৃতির সঙ্গে হুবহু মিলে যাচ্ছে। অধ্যাপক মার্টিল বলেন, ‘এত যুগ পর এই জায়গায় ডাইনোসরাসের পায়ের ছাপ মেলা সত্যিই রোমহর্ষক!’ সূত্র : বিবিসি নিউজ, টাইমস অব ইন্ডিয়া, ইকনোমিক টাইমস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন