Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৫ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

রাজনৈতিক সমাধান না হলে আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধ : ইমরান খান

বিদেশি সেনারা আমাদের অসম্মান ও বিপর্যয়ে ফেলে যাচ্ছে : হামিদ কারজাই

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জুন, ২০২১, ১২:০২ এএম

কোন ধরনের রাজনৈতিক সমাধান বা শান্তি চুক্তি না হলে আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধের আশঙ্কা করছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তনের ভ্যবিষৎ নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে ইমরান বলেন, মার্কিন সেনারা কাবুল ছেড়ে যাওয়ার আগে যুক্তরাষ্ট্রকে রাজনৈতিক সমাধানের পথ বের করা উচিত।
আগামী ১১ সেপ্টেম্বর বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে আফগানিস্তান ছেড়ে যাচ্ছে মার্কিন সেনারা। কিন্তু দেশটিতে তালেবান গোষ্ঠী ও সরকারি দলের মধ্যে সঙ্ঘাত এখনও অব্যাহত। এমন পরিস্থিতির মধ্যেই পর্যাক্রমে আফগানিস্তান ছাড়ছে মার্কিন সৈন্যরা। কিন্তু কোন রাজনৈতিক সমাধান না করেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন নিজ দেশের সেনাদের তুলে নিচ্ছেন। এ নিয়ে আফগান সীমান্ত সংলগ্ন দেশ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী উদ্বেগ জানিয়েছেন।
তার মতে, সঙ্ঘাত কবলিত আফগানিস্তানে শান্তি চুক্তি ছাড়া মার্কিন সেনা তুলে নেয়ার সময় এখনও হয়নি। গত রোববার মার্কিন সংবাদমাধ্যম এক্সিয়াসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেন, ‘আমেরিকার সৈন্যদের প্রত্যাহারের আগে কার্যকর সমাধানে পৌঁছানো উচিত। রাজনৈতিক সমাধান বলতে এক ধরনের জোট সরকার গঠন করতে হবে। সেখানে তালেবান এবং সরকারের পক্ষ থাকবে। এর বাইরে অন্য কোন উপায় নেই’।
২০২০ সালে যুক্তরাষ্ট্র এবং তালেবান গোষ্ঠীর মধ্যে শান্তি চুক্তি হয়। ঐ চুক্তির অংশ হিসেবেই সেনা প্রত্যাহার চলছে। চুক্তিতে বলা হয়েছিল, বিদেশি সেনা সরানোর বিনিময়ে আফগানিস্তানকে সন্ত্রাসী ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার বা দেশটিতে সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাবে না তালেবান। কিন্তু এখনও আফগানিস্তানজুড়ে হামলা অব্যাহত।
রাজনৈতিক সমাধান না দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান ছেড়ে গেলে গৃহযুদ্ধের প্রবল আশঙ্কা রয়েছে বলেও বিশ্বকে সতর্ক করেছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। ‘তালেবানরা যদি সর্বাত্মক বিজয় অর্জন করতে পারে, তবে দেশটিতে রক্তপাত বয়ে যাবে। আর আফগানিস্তানের পর যে দেশটিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হতে চলেছে তা হলো প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান’।
তিনি বলেন, এখনও ইসলামাবাদ কয়েক লাখ আফগান শরণার্থীর ভরণ-পোষণ দিয়ে যাচ্ছে। এই যুদ্ধে আমরা যে কারো থেকে বেশি ত্যাগ শিকার করেছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখন আমরা শুধু শান্তি চাই, কোনো সঙ্ঘাতে সম্পৃক্ত হতে চাই না। ‘মার্কিনীদের আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার আগে অবশ্যই দেশটিতে রাজনৈতিক সমাধান দিয়ে যেতে হবে’। বিদেশি সেনারা আমাদের অসম্মান ও বিপর্যয়ে ফেলে যাচ্ছে : হামিদ কারজাই
আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই বলেছেন, বিদেশি সেনারা আফগানিস্তানকে ‘পুরোপুরি অসম্মান ও বিপর্যয়ে’ ছেড়ে যাচ্ছে। গত রোববার একটি বিদেশি প্রকাশনার সাথে সাক্ষাৎকারে কারজাই বলেন, মার্কিন বাহিনী চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াই এবং স্থিতিশীলতা আনতে আফগানিস্তানে এসেছিল, তবে প্রায় ২০ বছর পরে উভয় ক্ষেত্রেই ব্যর্থ হয়েছে। তিনি বলেন, তাদের উত্তরাধিকার হ’ল ‘সম্পূর্ণ অবজ্ঞার ও দুর্যোগে’ একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত জাতি।
গত দু’মাসে আফগানিস্তান জুড়ে লড়াই বাড়ার প্রেক্ষিতে কারজাইয়ের এ বক্তব্য এসেছে। ১৪ এপ্রিল মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ঘোষণা করেন যে, ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আমেরিকান সেনারা আফগানিস্তান ছেড়ে চলে যাবে।
‘তাদের সামরিক উপস্থিতি না থাকলে আমরা আরো ভাল হয়ে উঠব’ যোগ করেছেন করজাই। ‘আমি মনে করি আমাদের নিজের দেশকে রক্ষা করা উচিত এবং নিজের জীবন দেখাশোনা করা উচিত। আমরা যে দুর্দশা ও ক্রোধের মুখোমুখি হয়েছি তা চালিয়ে যেতে চাই না। তাদের চলে যাওয়াই আফগানিস্তানের পক্ষে ভালো’।
বাইডেনের সাথে সাক্ষাত করবেন আফগান নেতারা :
এদিকে হোয়াইট হাউস গত রোববার ঘোষণা করেছে যে, প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি এবং চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ আগামী শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্র সফর করবেন। হোয়াইট হাউস এক বিবৃতিতে বলেছে, প্রেসিডেন্ট আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি এবং জাতীয় পুনর্মিলন সম্পর্কিত হাই কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ড. আবদুল্লাহ আবদুল্লাহকে আগামী শুক্রবার হোয়াইট হাউসে স্বাগত জানাতে প্রত্যাশী’। সূত্র : এক্সপ্রেস ট্রিবিউন।



 

Show all comments
  • মালিহা হায়াত ২২ জুন, ২০২১, ১:২৭ এএম says : 0
    ইমরান খান সম্ভবত ভয় পাচ্ছে! যদি তালেবানরা আফগানিস্তান দখল করে ফেলে তাহলে তারা পাকিস্তানেও প্রভাব বিস্তার করতে পারে এবং ইমরান খানের প্রধানমন্ত্রিত্ব হুমকির মুখে পড়তে পারে। বিদেশী সৈন্য আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার অল্প কিছুদিনের মধ্যে হয়ত তালেবানরা পুরা আফগানিস্তান দখল করে নিবে। মনে হয়না আর কেউ তাদেত ঠেকাতে পারবে। পৃথিবীতে যারাই পরাশক্তি হিসেবে আবির্ভুত হয় তারাই একটা সময় আফগানিস্তানে শক্তি পরিক্ষা করতে আসে। এভাবে আফগানিস্তানে বৃটিশ ও রাশিয়া শক্তি পরিক্ষা করতে গিয়ে নিজেদেত দেউলিয়া করে ফেলেছে। আমেরিকাও টানা ২০ বছর শক্তি পরিক্ষা করে এখন দেওলিয়ার পথে। তারা বুঝতে পেরেছে আফগানিস্তান হল পরাশক্তিদের কবরস্থান। মনে হয়না আমেরিকাকে শেকল দিয়ে বেধেও আর আফগানিস্তানে রাখা যাবে। এখন শুধু আফগানিস্তান নয়, মিডল ইষ্ট সহ পৃথিবীর অন্যান্য যায়গা থেকেও মার্কিনীরা তাদের সৈন্য সরিয়ে নিচ্ছে। আমেরিকা হয়ত ভিতরে ভিতরে ইতিমধ্যে দেওলিয়া হয়েই গেছে যা এখনো প্রকাশ্যে আসেনি।
    Total Reply(0) Reply
  • রক্তিম সূর্য ২২ জুন, ২০২১, ১:২৯ এএম says : 0
    বিদেশি সেনাদের তাবেদারি করে আফগান সরকারেরর কি লাভ হলো না।
    Total Reply(0) Reply
  • সাইফুল ইসলাম ২২ জুন, ২০২১, ৫:৪১ এএম says : 0
    আমেরিকাকে আর কোনোভাবেই আফগানে ধরে রাখা যাবে না। এখন তাদের অবস্থা ছেড়ে দে মা কেদে বাচি।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ নাজমুল ইসলাম ২২ জুন, ২০২১, ৫:৪২ এএম says : 0
    একমত। রাজনৈতিক সমাধান না হলে আফগান নতুন এক ঝুকিতে পড়বে।
    Total Reply(0) Reply
  • নুর নাহার আক্তার নিহার ২২ জুন, ২০২১, ৫:৪২ এএম says : 0
    পাকিস্তানকে রাজনৈতিক সমাধানের জন্য সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • হাদী উজ্জামান ২২ জুন, ২০২১, ৫:৪৩ এএম says : 0
    আমেরিকা যেহেতু তালেবানদের কাছে নতি স্বীকার করে সৈন্য নিয়ে পলাচ্ছে, সেখানে আফগান সরকারের তালেবানের প্রতি আরও নমনীয় হয়ে একটা সমঝোতায় আসা উচিত।
    Total Reply(0) Reply
  • সোয়েব আহমেদ ২২ জুন, ২০২১, ৫:৪৪ এএম says : 0
    আফগানিস্তানে এখন শান্তি আসা জরুরি।
    Total Reply(0) Reply
  • Monjur Rashed ২২ জুন, ২০২১, ৩:৫৩ পিএম says : 0
    Afghanistan is a landlocked country. No government in Afghanistan ( even be it Taleban) can survive without mutual understanding with Pakistan & Iran.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন