Inqilab Logo

সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮, ২২ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

দুইটি বৃহৎ তেলক্ষেত্র আবিষ্কার, জ্বালানী খাতে স্বনির্ভর হচ্ছে চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জুন, ২০২১, ৫:৫৮ পিএম

একদিনের ব্যবধানে দুইটি বিশাল তেলক্ষেত্র পাওয়ার কথা জানাল চীন। চায়না ন্যাশনাল পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (সিএনপিসি) দেশের বৃহত্তম শেল তেল রিজার্ভ খুঁজে পেয়েছে। এর আয়তন একশো কোটি বিলিয়ন টন। গানসু প্রদেশের অর্ডোসে নতুন এই তেল ক্ষেত্র পাওয়া গিয়েছে বলে শনিবার জানিয়েছে সিএনপিসি।

এর আগে গত শুক্রবার উইঘুর মুসলিম অধ্যূষিত চীনের স্বায়ত্তশাসিত জিনজিয়াং প্রদেশের তারিম অববাহিকায় ৯০০ মিলিয়ন টনের নতুন একটি তেল ও গ্যাসক্ষেত্রের সন্ধান পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে তারা। জিনজিয়াংয়ের ফুমান এলাকার মানসেন-২ নামে অপর এক তেল-গ্যাসক্ষেত্রের পাশে তারিম নদীর দক্ষিণে এবং তকলিমাকান মরুভূমির কেন্দ্রে ১০ হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে নতুন এই তেল ও গ্যাসক্ষেত্রটির সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। সিএনপিসি জানিয়েছে, ২০২৫ সালের মধ্যে তেল-গ্যাস রিজার্ভ থেকে বছরে ৪০ লাখ টন তেল এবং ১ হাজার ৪০০ কোটি ঘনমিটার প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলন করা সম্ভব হবে। সিএনপিসির আওতাধীন তারিম ওয়েলফিল্ডি কোম্পানির ব্যবস্থাপক ইয়াং শুয়েওয়েন জানান, ‘আমরা সফলভাবে নতুন একটি তেল ও গ্যাসক্ষেত্রের সন্ধান পেয়েছি, যেখানে একশ কোটি টন তেল রয়েছে। কয়েক দশকের মধ্যে তারিম অববাহিকায় এটি সর্ববৃহৎ অনুসন্ধান।’

সিএনপিসি হলো চীনের সর্ববৃহৎ তেল ও গ্যাস উৎপাদনকারী রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান। তারা ২০১৯ সাল থেকে খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান এবং উৎপাদন শুরু করেছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, নতুন দুই ক্ষেত্র আবিষ্কারের ফলে আমদানির উপর থেকে চীনের নির্ভরতা অনেকাংশে কমে আসবে। বর্তমানে চীন জাতীয় চাহিদার প্রায় ৭০ শতাংশই অন্যান্য দেশ থেকে আমদানি করে। এর আগে খবরে বলা হয়েছিল যে, চলতি বছরের এপ্রিলে রাশিয়া থেকে চীনে তেল সরবরাহ ১৫ দশমিক ৩ শতাংশ কমেছে। ওই মাসে সউদী আরব থেকে ৬৪ লাখ ৭০ হাজার টন খনিজ কাঁচামাল আমদানি করেছিল চীন। তার আগের মাসে এর পরিমাণ ছিল ৭৮ লাখ ৪০ হাজার টন। অর্থাৎ, একমাসে আমদানির পরিমাণ কমেছে ১৭ দশমিক ৫ শতাংশ। একই সময়ে রাশিয়া থেকে ৬৩ লাখ ও ইরাক থেকে ৪৪ লাখ ৫০ হাজার টন খনিজ কাঁচামাল আমদানি করা হয়েছিল। তার আগের মাসে এই পরিমাণ ছিল যথাক্রমে ৭৪ লাখ ৪০ হাজার ও ৩৬ লাখ ২০ হাজার টন।

অর্তাৎ, তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা ইরাকের কাছ থেকে চীনের আমদানির পরিমাণ বৃদ্ধি পেলেও (২২ দশমিক ৯ শতাংশ) এর বিপরীতে শীর্ষ দুই অবস্থানে থাকা দেশগুলো থেকে আমদানির পরিমাণ কমেছে। চলতি বছরের প্রথম চার মাসে চীন বার্ষিক দিক দিয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে তেল ক্রয়ের পরমিাণ ২ দশমিক ১৪ শতাংশ কমিয়েছে। ২০২০ সালে চীন রাশিয়া থেকে ২ হাজার ৭৬০ কোটি ডলার মূল্যের ৮ কোটি ৩৪ লাখ টনেরও বেশি কাঁচামাল আমদানি করেছিল। সূত্র: ব্রেক নিউজ, গ্লোবাল টাইমস।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চীন


আরও
আরও পড়ুন

কাশ্মীর লীগকে স্বীকৃতি না দিতে আইসিসিকে ভারতের চিঠি!

img_img-1627915521

আগামী ৬ আগস্ট থেকে কাশ্মীরে শুরু হতে যাওয়া ক্রিকেট লীগ নিয়ে উত্তাল ক্রিকেট বিশ্ব। তবে এই লীগ নিয়ে এবারো কড়া অবস্থান নিলো সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন বিসিসিআই। কাশ্মীর ক্রিকেট লীগকে স্বীকৃতি না দিতে এবার আইসিসিকে চিঠি দিলো ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড। চিঠিতে বলা হয়, কোনোভাবেই যেন কাশ্মীর প্রিমিয়ার লীগকে (কেপিএল) স্বীকৃতি দেয়া না হয়। -সংবাদ প্রতিদিন কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তান-ভারত বিবাদ দীর্ঘদিনের। বিষয়টি নিয়ে বরাবরই সোচ্চার হয়েছে নয়াদিল্লি। অঞ্চলটিতে নির্বাচন আয়োজনের পর এবার সেখানে ক্রিকেট লীগেরও আয়োজন করতে চলেছে পাকিস্তান। আর সেকারণেই বিষয়টিকে ভালোভাবে নেয়নি বিসিসিআই। পাকিস্তান সুপার লীগ আয়োজন করা নিয়ে কোনো আপত্তি না থাকলেও জাতীয় সুরক্ষার খাতিরে কাশ্মীর প্রিমিয়ার লীগকে কোনোভাবেই স্বীকৃতি দেবে না বিসিসিআই। ইতোমধ্যে বিশ্বের সমস্ত ক্রিকেট বোর্ডকে মৌখিকভাবে সেকথাও জানিয়ে দিয়েছেন সৌরভরা। শুধু তাই নয়, এই লীগে অংশগ্রহণকারী ক্রিকেটারদের ভারতে ক্রিকেট সম্পর্কিত সমস্ত কার্যকলাপে নিষিদ্ধ করা হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়। সেই কথাও স্পষ্ট করে ঘোষণা দেয়া হয়। আর এবার এ ব্যাপারে সরাসরি আইসিসিকে চিঠি দিলো ভারতীয় বোর্ড। একটি ক্রীড়াবিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, চিঠিতে ভারতীয় বোর্ডের পক্ষ থেকে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থাকে বলা হয়েছে, কাশ্মীর নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে রাজনৈতিক বিবাদ রয়েছে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে। তাই ওই অঞ্চলে আয়োজিত এই ক্রিকেট লীগকে যেন কোনোভাবেই স্বীকৃতি দেয়া না হয়। এদিকে এই লীগ আয়োজনে বাধা দেয়ার অভিযোগ তুলে বিসিসিআইয়ের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।কাশ্মীরে আয়োজিত ক্রিকেট লীগে না খেলার জন্য তার উপর চাপ সৃষ্টি করছে বিসিসিআই। এমনকি ভারতে প্রবেশের উপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হতে পারে। এর আগে টুইটে এমনই অভিযোগ তুলেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাক্তন ক্রিকেটার হার্শেল গিবস। শুধু গিবস নন, আরেক প্রাক্তন ক্রিকেটার পাকিস্তানের রশিদ লতিফও একই অভিযোগ করেছেন। আর এই নিয়েই উত্তাল ক্রিকেট দুনিয়া।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ