Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৩ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

এবার দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ সুশান্তের বাবা

বিনোদন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ জুন, ২০২১, ২:১৬ পিএম

প্রয়াত বলিউড নায়ক সুশান্ত সিং রাজপুতের বায়োপিক ‘ন্যায়: দ্য জাস্টিস’ ঘিরে হাই কোর্টের দ্বারস্থ হলেন নায়কের বাবা। কিছুদিন আগেই জানা গিয়েছিল সুশান্তের জীবন কাহিনী নিয়ে মুক্তি পাবে ‘ন্যায়: দ্য জাস্টিস’ নামক ছবিটি। তবে এই ছবির মুক্তি আটকাতে ফের দিল্লি হাই কোর্টের দ্বারস্থ হলেন নায়কের বাবা কে কে সিং।

এরা আগে, দিল্লি উচ্চ আদালতের বিচারপতি জানিয়ে দেন, ‘ন্যায়: দ্য জাস্টিস ছবিটি যে বায়োপিক, তার কোনও নির্দিষ্ট প্রমাণ নেই। তাতে সুশান্তের নামও কোথাও ব্যবহার করা হয়নি। তাতে প্রয়াত অভিনেতাকে কোনওরকম বিদ্রূপও করা হয়নি। ফলে ছবির মুক্তির উপর নিষেধাজ্ঞা এখনই দেওয়া সম্ভব নয়।’ ফের আরও একবার আদালতের এই রায়কে এবার চ্যালেঞ্জ করে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন প্রয়াত অভিনেতার বাবা। এই মামলার রায় শোনানো হবে আদালতে ডিভিশন বেঞ্চের পক্ষ থেকে।

সুশান্ত সিং রাজপুতের রহস্য মৃত্যুর পর থেকেই পরিচালক কৃষ্ণ কিশোর সিং, নায়ককে নিয়ে বায়োপিক বানাবেন বলে ঘোষণা করেছিলেন। সেই মতো চিত্রনাট্য, ছবির কলাকুশলীও ঠিক হয়। খুব অল্প সময়েই তৈরি হয়ে যায় ছবি। সামনে আসে ছবির ফার্স্টলুক ও ট্রেলার । সেই সময় থেকেই সুশান্তের পরিবারের লোকজন এই ছবির মুক্তির বিরুদ্ধে ক্ষোভপ্রকাশ করেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবির মুক্তির স্থগিতাদেশ চেয়ে মন্তব্যও করেছিলেন সুশান্তের দিদি। তবে তাতেও আটকানো যায়নি এই বায়োপিকের প্রচার। শেষমেশ, ছবির মুক্তির স্থগিতাদেশ চেয়ে সুশান্তের বাবা দিল্লি হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৪ জুন সুশান্তের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। তারপর থেকেই সুশান্তের জীবন নিয়ে একাধিক সিনেমা তৈরির কথা শোনা গিয়েছিল। সেই সমস্ত সিনেমার বিরুদ্ধেই আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন কে কে সিং। এই তালিকাতেই ছিল ‘ন্যায়: দ্য জাস্টিস’ ছবিটি। ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছেন জুবের খান, শ্রেয়া শুক্লা। এছাড়াও আসরানি, শক্তি কাপুর, অমন বর্মা, সুধা চন্দ্রণ, অরুণ বক্সী, মিলিন্দ গুণাজির মতো অভিনেতা রয়েছেন ছবিতে। এই ছবির রিলিজের উপর স্থগিতাদেশ চেয়েছিলেন সুশান্তের বাবা কে কে সিং। তার অভিযোগ ছিল, সুশান্তের মৃত্যুর তদন্ত এখনও চলছে। তা নিয়ে ছবি তৈরি হতে পারে না। ছবিতে প্রয়াত অভিনেতার মানহানির জন্য ২ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণেরও দাবি করা হয়েছিল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বলিউড


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ