Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ০৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পাঠদান দুর্ঘটনার আশংকায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা থাকেন আতঙ্কে

প্রকাশের সময় : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

কামরুল হাসান, কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) থেকে

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় ১০নং তুলশীবাড়ী ও ৫৩ নং ছিকুটিবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে শিক্ষাদান। এ দুটি পুরাতন বিদ্যালয়ের ছাদের প্লাস্টার খুলে পড়ছে এবং ফ্লোর ভেঙ্গেচুরে জরাজীর্ণ হয়ে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে যে, যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সে কারণে সর্বক্ষণ কোমলমতি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের থাকতে হয় অজানা এক আতঙ্কের মধ্যে। ভবন দুটি নির্মাণের জন্য দীর্ঘদিন ধরে অনেক আবেদন নিবেদন করা হলেও এখন পর্যন্ত কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। ১৯৩ জন শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রদান করা হচ্ছে তুলশীবাড়ী বিদ্যালয় আর ১৪২ জন শিক্ষার্থী রয়েছে ছিকুটিবাড়ী বিদ্যালয়। ছিকুটিবাড়ী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুশান্ত কুমার রায় বলেন দীর্ঘদিন ধরে আমার বিদ্যালয়ের ভবনটি পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। তাই সর্বক্ষণ আতঙ্কের মধ্যে থেকে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত করতে হয়। তাছাড়াও বিদ্যালয়টি কোটালীপাড়া-রাজৈর হাইওয়ে সড়কের পাশে অবস্থিত হওয়ায় প্রাচীর না থাকায় সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকি রয়েছে। তাই আমাদের সব সময় দুশ্চিন্তায় থাকতে হয়। তুলশীবাড়ী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিমল কৃঞ্চ বাড়ৈ বলেন ভবনের এমন অবস্থা হয়েছে যে, ছাদের প্লাস্টার খুলে শিক্ষার্থীদের মাথার উপর পরে। এজন্য সর্বক্ষণ আতঙ্কের মধ্যে থাকতে হয়। বৃষ্টি নামলে ভবনের সামনে পানিকাদা জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পরে। অজানা এক আতঙ্ক তাড়া করে প্রতিনিয়ত। সঠিক শিক্ষা প্রদান করার লক্ষ্যে অচিরেই ভবন দুটি নির্মাণ করার দাবি তাদের। এছাড়াও আরো ২৮টি বিদ্যালয় ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষা প্রদান করছেন বলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে জানা যায়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।